logo
  • ঢাকা রবিবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২০, ১৩ মাঘ ১৪২৭

আফ্রিকান নেশন্স কাপ

নাইজেরিয়া-তিউনিশিয়াকে বিদায় করে ফাইনালে আলজেরিয়া-সেনেগাল

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৫ জুলাই ২০১৯, ১৩:৪৯ | আপডেট : ১৫ জুলাই ২০১৯, ১৪:০৪
নাইজেরিয়া, তিউনিশিয়া, আলজেরিয়া, সেনেগাল
ফাইনাল নিশ্চিতের পর আলজেরীয় ফুটবলারদের বিজয়োল্লাস
১-১ গোলে সমতায় শেষ হবার অপেক্ষায় থাকা ম্যাচের অন্তিম স্নায়ু-চাপ।  শেষ বাঁশির ঠিক আগ মুহূর্তে নাইজেরিয়ার ডি-বক্সের বাইরে ফ্রি-কিক পেলো আলজেরিয়া। সেমিফাইনাল ম্যাচের শেষ শটটি নিতে এগিয়ে এলেন দলপতি রিয়াদ মাহরেজ।  ম্যানচেস্টার সিটি উইঙ্গারের বা-পায়ের শটটি জড়িয়ে গেলো নাইজেরিয়া গোলপোস্টের বা-প্রান্তে। 

লাল রঙে গর্জে উঠলো কায়রো আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম। ২-১ গোলে ‘সুপার ঈগলস’দের হারিয়ে ফাইনালে ‘মরুভূমির শৃগাল’রা। প্রায় ৩০ বছর পর আফ্রিকা মহাদেশ সেরার ফুটবল লড়াইয়ের চূড়ান্ত মঞ্চে জায়গা করে নিলো আলজেরিয়া।

শুরুর পর থেকে খেলা গড়িয়েছে সমান তালে। আক্রমণ-প্রতি-আক্রমণ, বলের দখল, ডিফেন্স সব ক্ষেত্রেই কাঁধে-কাঁধ মিলিয়ে লড়েছে দুদল। তবে গোল পাওয়াটা সহজ ছিল না কারো জন্যই।

৪০ মিনিটে এলো সেই কাঙ্ক্ষিত সময়। ৪০ মিনিটে রিয়াদ মাহরেজের ক্রস ফেরাতে গিয়ে নিজের জালেই বল জড়িয়ে দেন নাইজেরীয় ডিফেন্ডার ট্রুস্ট-একোং। ১-০তে এগিয়ে যায় আলজেরিয়া।

       জয়ের পথে ফ্রি-কিক নিচ্ছেন আলজেরীয় দলপতি রিয়াদ মাহরেজ

সমতায় ফিরতে নাইজেরিয়া সময় নেয় আধা ঘণ্টা। পিটার এতেবোর শট প্রতিহত করতে গিয়ে আইসা মান্দির হাতে লাগালে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেয় ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (VAR)। স্পট-কিক থেকে ১-১ করেন ওডিয়ন ইঘালো।

ফল পক্ষে আনার জন্য গ্যালাতাসারে ফরোয়ার্ড হেনরি ওনেকুরুকে ৭৮ মিনিটে মাঠে নামান সুপার ঈগলস কোচ গের্নোট রোহর কিন্তু কাজ হয়নি। উল্টো ইনজুরি টাইমে মাহরেজের ফ্রি-কিক নিষ্পত্তি করে দেয় খেলা।

তবে তিউনিশিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ নিষ্পত্তি করতে অতিরিক্ত সময়ের সাহায্য নিতে হয়েছে সেনেগালকে। সেটাও এসেছে প্রতিপক্ষ দলের কাছ থেকেই। অর্থাৎ আত্মঘাতী গোলে নিজেদের কপাল পুড়িয়েছেন তিউনিশিয়ান ডিফেন্ডার ডাইলান ব্রুন। দ্বিতীয়বারের মতো আফ্রিকান নেশন্স কাপের ফাইনাল নিশ্চিত হয় সেনেগালের।

           ফাইনালে ওঠার পর সেনেগালের ফুটবলারদের অভিনব উৎযাপন

ম্যাচের নাটকীয়তা চূড়ান্ত করেছে দুদলই একটি করে পেনাল্টি মিস করে। কায়রো ডিফেন্স স্টেডিয়ামে গোলশূন্য এগিয়ে চলা খেলার খেলার ৭৩ মিনিটে কালিদু কুলিবালি ডি-বক্সে হ্যান্ডবল করায় পেনাল্টি পায় তিউনিশিয়া। কিন্তু ফেরজানি সাস্সির স্পট-কিক ঠেকিয়ে দেন সেনেগালের গোলরক্ষক।

এর পাঁচ মিনিট পরেই ইসমাইলা সার’র ফাউলের কল্যাণে পেনাল্টি পায় সেনেগাল। এবার হেনরি সাইভেতের শট ঠেকিয়ে দেন তিউনিশ গোলরক্ষক। গোলশূন্য শেষ হওয়া ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে।

অচলাবস্থা ভাঙে ম্যাচের শততম মিনিটে। সাদিও মানের ফ্রি-কিকে নেয়া মুয়েজ হাসেনের হেড ফেরাতে গিয়ে নিজের জালে বল জড়িয়ে দেন ব্রুন।  লিড পায় সেনেগাল। বাকি সময়ে সেই গোল আর শোধ করতে পারেনি তিউনিশিয়া।

শুক্রবার ফাইনালে মুখোমুখি হবে আলজেরিয়া ও সেনেগাল। দ্বিতীয় শিরোপার পথে ৩০ বছরের প্রতীক্ষা আলজেরিয়ার। আর ৫৪ বছর চেষ্টার পর প্রথম শিরোপা ঘরে তোলার অপেক্ষায় সেনেগাল।

অগ/সি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • ফুটবল এর সর্বশেষ
  • ফুটবল এর পাঠক প্রিয়