• ঢাকা বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১
logo
১৮ জুলাই: ইতিহাসে আজকের এই দিনে
১৩ জুলাই: ইতিহাসে আজকের এই দিনে
ঘটে যাওয়া আজকের এই দিনের ঘটনা, অনেক আলোচিত-সমালোচিত ব্যক্তির জন্ম-মৃত্যু আমরা জানতে চাই। পাঠকের এ চাওয়া মাথায় রেখে নিয়মিত আয়োজন ‘ইতিহাসের এই দিনে’। আজ শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪। ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ। ইতিহাসের দিকে চোখ বুলিয়ে দেখে নেব এই দিনে বিশিষ্টজনদের জন্ম-মৃত্যু, দিনসহ ঘটে যাওয়া নানান ঘটনা। ঘটনাবলি : ১৫৮৫ - স্যার রিচার্ড গ্রীনভিলের নেতৃত্বে ১০৮ জনের একটি ইংরেজ দল আমেরিকার নিউক্যালেডোনিয়ার রোয়ানোকে দ্বীপে উপনিবেশ স্থাপনের উদ্দেশ্যে পৌঁছায়। ১৭১৩ - গ্রেট ব্রিটেন, ফ্রান্স ও নেদারল্যান্ডের মধ্যে শান্তি ও সৌভ্রাতৃত্ব চুক্তি স্বাক্ষর। ১৭৭১ - বিখ্যাত বৃটিশ সমুদ্র ভ্রমনকারী জেমস কুক তিন বছর ধরে পৃথিবীর দক্ষিণ গোলার্ধ ভ্রমণ শেষ করেন। ১৭৭২ - ক্যাপ্টেন জেমস কুক তার দ্বিতীয় অভিযান শুরু করেন। ১৮৩০ - কলকাতায় আলেকজান্ডার ডাফ ও রাজা রামমোহন রায়ের যৌথ উদ্যোগে জেনারেল এসেমব্লিজ ইনস্টিটিউশন [স্কটিশ চার্চ কলেজ] চালু হয়। ১৮৩২ - হেনরী স্কুলক্র্যাফট মিনেসোটায় মিসিসিপ নদীর উৎস আবিষ্কার করেন। ১৮৫৮ - স্কটিশ সংস্কার আইন পাস হয়। ১৮৭১ - পৃথিবীর ইতিহাসে প্রথমবারের মতো লন্ডনে বিড়াল প্রদর্শনী। ১৮৭৮ - তুরস্ক থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে রোমানিয়া স্বাধীনতা ঘোষণা করে। ১৮৮২ - রাশিয়ায় এক রেল দুর্ঘটনায় ২০০ জনের মৃত্যু হয়। ১৮৯৮ - মার্কোনি রেডিওর প্যাটেন্ট পান। ১৯০৫ - কলকাতা থেকে প্রকাশিত ‘শক্তিবান’ পত্রিকা ব্রিটিশ পণ্য বর্জনের আহ্বান জানায়। ১৯৩০ - উরুগুয়েতে বিশ্বকাপ ইতিহাসের প্রথম ম্যাচে ফ্রান্স মেক্সিকোকে ৪-১ গোলে হারায়। ১৯৩১ - জার্মানীর একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান ডানাব্যাংক দেউলিয়া হয়ে যায়। ফলে জার্মানীর সব ব্যাংক বন্ধ হয় যা আবার ৫ আগস্ট খুলে। ১৯৩৩ - নাৎসি পার্টি ছাড়া অন্যসব রাজনৈতিক দলকে জার্মানিতে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। ১৯৩৯ - ফ্রাঙ্ক সিনাত্রা চলচ্চিত্র অঙ্গনে পা রাখেন। ১৯৬০ - জন এফ. কেনেডী লস এন্জেলসে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিসেবে ডেমোক্রেট দলের নমিনেশন পান। ১৯৭৩ - আফগানিস্তানকে প্রজাতন্ত্র ঘোষণা। ১৯৭৭ - নিউইয়র্ক সিটি একটানা ১৪ ঘণ্টা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন থাকার নজিরবিহীন ঘটনা। এ সময় ভয়াবহ লুটপাট, খুন, ধর্ষণ সংঘটিত হয়। ২০০৭ - নেপালের পশ্চিমাঞ্চলে দু’টি পৃথক ভূকিম্পে অন্তত ২৬ জন নিহত হয়। ২০১১ - শিশু রাজনকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। জন্ম : ১৬০৮ - হাঙ্গেরির রাজা তৃতীয় ফার্দিনান্দ। ১৭৪৮ - লরেন জোসো নামের বিখ্যাত উদ্ভিদ বিজ্ঞানী ফ্রান্সের লিওন শহরে জন্ম গ্রহণ করেন। ১৮২২ - অযোধ্যার শেষ নবাব সংগীতামোদী ওয়াজিদ আলী শাহ। ১৮৮০ - কথাসাহিত্যিক ইসমাইল হোসেন শিরাজী। ১৮৯৪ - রুশ সাহিত্যিক আইজাক বাবেল। ১৯০০ - বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা ছবি বিশ্বাস। ১৯৩৪ - নোবেল বিজয়ী নাইজেরীয়ান লেখক ওল সোয়েন্কা। ১৯৪০ - প্যাট্রিক স্টুয়ার্ট, ইংরেজ চলচ্চিত্র, টেলিভিশন ও মঞ্চ অভিনেতা, এবং হাডার্সফিল্ড বিশ্ববিদ্যালয় এর চ্যান্সেলর। ১৯৪১ - আমেরিকান অভিনেতা রবার্ট ফ্রষ্টার। ১৯৪২ - অভিনেতা হ্যারিসন ফোর্ড। ১৯৮২ - ইংরেজ অভিনেত্রী সামিয়া স্মিথ। মৃত্যু : ৬৭৮ - হযরত আয়েশা সিদ্দিকা (রাঃ)। ১৭৯৩ - ফরাশি সাংবাদিক ও বিপ্লবী জ্যা পল মারাত তার বাথটাবে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ চার্লট কর্ডের হাতে নিহত হন। ১৮৫১ - অস্ট্রীয় সঙ্গীত স্রষ্টা আর্নল্ড শোয়েম বার্গ। ১৮৮৯ - অস্ট্রিয়ান কবি রবার্ট হ্যামালিঙ। ১৯২১ - নোবেলজয়ী (১৯০৮) পদার্থ বিজ্ঞানী গ্যাব্রিয়েল লিপমান সমুদ্রে ডুবে নিহত। ১৯৬৯ - ভাষাবিজ্ঞানী ও বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ। ১৯৮০ - বতসোয়ানার প্রথম প্রেসিডেন্ট সেরেতসি খামার। ১৯৯৫ - ঔপন্যাসিক আশাপূর্ণা দেবী। ২০০২ - তুর্কি বংশোদ্ভুত কানাডিয়ান ফটোগ্রাফার ইউসুফ কার্শ।  
সম্প্রীতির মেলবন্ধনে রথযাত্রা উৎসব
চকলেট প্রেমীদের দিন আজ
৬ জুলাই: ইতিহাসে আজকের এই দিনে
‘দুঃখ-কষ্ট-বঞ্চনার জীবনে এত পরমায়ু সৃষ্টিকর্তা আমাকে কেন দিল?’
সিএনজি বাইক আনলো বাজাজ, মাইলেজ জানলে অবাক হবেন
বাই-ফুয়েল প্রযুক্তির ব্যবহারে চালকের খরচ কমানো ও পরিবেশের খেয়াল রাখা বিশ্বের প্রথম সিএনজিচালিত মোটরসাইকেল বাজারে আনলো বাজাজ। ভারতের দিল্লির একটি অটো শোতে এই বাইকটি লঞ্চ করা হয়েছে৷ তবে সিএনজির পাশাপাশি এই বাইক পেট্রোলেও চালানো যাবে। আপাতত ভারতের বাজারেই পাওয়া যাবে ১২৫ সিসির এই মোটরসাইকেলটি। নতুন বাইকটির নাম দেওয়া হয়েছে ফ্রিডম ১২৫। ভালো সাড়া পাওয়া গেলে ভারতের বাজারে সিএনজি চালিত আরও বাইকের মডেল নিয়ে আসা হবে বলে জানিয়েছে কোম্পানিটি। পাশাপাশি এই মোটরবাইক অন্য দেশেও রফতানি করার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। জানা গেছে, বাইকটির হ্যান্ডেলেই একটি সুইচ থাকবে যা চাপলেই বাইক পেট্রোল থেকে সিএনজি মোডে চলে যাবে। আবার ওই সুইচটি চাপলেই ফের সিএনজি মোডে চলবে বাইক। বাজাজের এই বাইকে দু লিটারের একটি সিএনজি ট্যাঙ্ক রয়েছে। ফুল ট্যাঙ্ক সিএনজি ভরলে বাইকটি ৩০০ কিলোমিটার যাবে।  সিএনজি চালিত বাইক চালানোর খরচ কিলোমিটার প্রতি মাত্র ১ টাকায় দাঁড়াবে বলে জানিয়েছেন ভারতের কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহন মন্ত্রী নীতিন গড়কড়ি। বাজাজর এমডি রাজীব বাজাজ জানিয়েছেন, বাইকটির আরও একটি বৈশিষ্ট্য হল এটির সিট অন্যান্য যেকোনও বাইকের থেকে লম্বা। ফলে পরিবার নিয়ে সফরের জন্য আদর্শ এই ফ্রিডম ১২৫৷ রাজীব বাজাজের কথায়, এই বাইকে বাচ্চাকে কোলে নিয়ে বসতে হবে না। তবে বাজাজের নতুন এই বাইকের দাম এখনও জানা যায়নি। যদিও একটি সূত্রের খবর, ফ্রিডম ১২৫-এর দাম শুরু হতে পারে ৯৫ হাজার রুপি থেকে। সিএনজি চালিত বাইকের সুবিধা-অসুবিধা বাজারে অনেকদিনই ব্যাটারি চালিত স্কুটার এবং বেশ কিছু বাইক এসেছে। তবে ব্যাটারি চালিত বাইক অথবা স্কুটির অন্যতম প্রতিবন্ধকতা হল চার্জ করতে অনেকটা সময় চলে যায়। আর একটি সমস্যা হল ব্যাটারি চালিত স্কুটির বা মোটরবাইকের তুলনায় সিএনজি চালিত এই বাইকের মাইলেজ অনেক বেশি। তবে জ্বালানির খরচের হিসেবের দিক দিয়ে ব্যাটারি চালিত বাইক বা স্কুটিই সস্তা। তাছাড়া, এখনও সিএনজি পাম্পের সংখ্যা কম।
রসগোল্লার চা বানিয়ে মাসে আয় ২ লাখ
জিভে জল আনা ভিন্ন স্বাদের রসগোল্লার চা। খাঁটি গরুর দুধ,  দুধের সর ও ছানার রসগোল্লা দিয়ে বানানো হয় ব্যতিক্রমী এই চা। এতে দেওয়া হয় না বাড়তি কোনো চিনি। ভিন্ন স্বাদের রসগোল্লার চা বানিয়ে রীতিমতো সাড়া ফেলেছেন চুয়াডাঙ্গার তরিকুল ইসলাম। প্রতিদিন বিক্রি হয় ২০০ কাপ চা। প্রতি কাপ রসগোল্লার চায়ের দাম ৩০ টাকা। এতে প্রতিদিন আয় হয় ৬ হাজার টাকা, যা ১ মাসে দাঁড়ায় প্রায় ২ লাখ টাকায়। চা বিক্রির টাকা দিয়েই চলে তার সংসার। রং চা, দুধ চা, আদা চা, লেবু চা কিংবা মসলা চাসহ হরেক রকমের চায়ের স্বাদ নিয়েছেন অনেকেই। তবে চায়ের স্বাদে একটু ভিন্নতা আনতেই এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ।  দুধ ও রসগোল্লায় তৈরি এ চা দেখে যে কারও জিভে জল আসবে। কেন না এর উপকরণ আর বানানোর পদ্ধতি এর স্বাদে দিয়েছে ভিন্নতা।  চা আর রসগোল্লা— বাঙালির পছন্দের দুটি খাবার। আর দুটো স্বাদই এক সঙ্গে পাওয়া যায় এ চায়ে। এরইমধ্যে রসগোল্লা চায়ের খ্যাতি ছড়িয়েছে এলাকাজুড়ে। ভিন্ন স্বাদের এ চায়ের স্বাদ নিতে ভিড় করছেন অনেকেই।  তাইতো বিকেল হলেই শুরু হয় চা তৈরির কর্মযজ্ঞ। একটি পাত্রে খাটি গরুর দুধ জাল দেওয়া হয় ঘন ও হলুদ বর্ণ ধারণ করা পর্যন্ত। ঘন দুধের ওপর জমতে থাকে সর। তারপর কাপে দেওয়া হয় আগে থেকে তৈরি ছানার রসগোল্লা। এর সাথে দুধ, সর ও চায়ের লিকার মিশিয়ে তৈরি হয় ভিন্ন স্বাদের রসগোল্লা চা।  ভিন্ন স্বাদের এই রসগোল্লার চা খেতে বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত ভিড় করছেন অনেকেই। শুধু চুয়াডাঙ্গা নয়, কুষ্টিয়া, মেহেরপুরসহ আশপাশের জেলার মানুষ চা খেতে আসছেন এখানে। দীর্ঘ ২ বছর ধরে চা তৈরি করে আসছেন তারিকুল ইসলাম। প্রথমে ভিন্ন স্বাদের রসগোল্লার চা তৈরি করে আশপাশের দোকানিদের খাওয়ান তারিকুল। পরে সেই চা আকৃষ্ট করে ক্রেতাদের। প্রথমদিকে ছোট্ট পরিসরে শুরু করলেও সময়ের ব্যবধানে বেড়েছে তার কাজের পরিধি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়েছে এ চায়ের খ্যাতি। আর তা দেখে চায়ের স্বাদ নিতে বন্ধু-বান্ধব ও পরিবার-পরিজন নিয়ে আসছেন অন্যরা। বিশ্বের এমন কোনো দেশ নেই, যেখানকার মানুষ চা পছন্দ করেন না। তবে স্বাদের ভিন্নতার কারণে ক্রেতাদের মুখে নিজের তৈরি চায়ের সুনাম শুনে প্রশান্তি পান তারিকুল ইসলাম।  
শশী বলতেই দৌড়ে আসে হরিণ, খায় চা-বিস্কুট ভাত নুডুলস 
মানুষের মতোই খায় ভাত, নুডুলস, সেমাই, মুড়ি-চানাচুর, চা-বিস্কুটসহ নানা খাবার। প্রায় সাড়ে ৫ মাস বয়সী হরিণ শাবকের নাম শশী।  নাম ধরে ডাকলেই শশী ছুটে যাচ্ছে সবার কাছে।  মানুষের ভালোবাসায় বড় হয়ে উঠছে সাবকটি।  শাবকটির মা-বাবা এখন বন বিভাগের বোটম্যান নূরউল্ল্যাহ।  গত ৩০ জানুয়ারি সকালের দিকে তজুমদ্দিন উপজেলার হানু দালাল বাজার ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় খাবারের সন্ধানে ছুটে আসে একটি মা হরিণ সঙ্গে জন্ম দে এ শাবক।  ওইদিনই দুপুরের দিকে স্থানীয়দের আনাগোনার শব্দ শুনে শাবকটিকে রেখে পালিয়ে যায় মা হরিণ। পরে স্থানীয়রা বিষয়টি জানান বন বিভাগকে।  এরপর হরিণটিকে লালনপালন করার দায়িত্ব দেওয়া হয় বন বিভাগের বোটম্যান নূরউল্ল্যাহকে।  পরম যত্নে হরিণটিকে লালনপালনের সাথে তার নাম দেন শশী। প্রায় ৩ মাস পর্যন্ত হরিণ শাবকটিকে দৈনিক দেড় লিটার করে গরুর দুধ খাওয়ানো হয়।  পরে আস্তে আস্তে  ভাতের মাড় ও ঘাস খাওয়ানো হয়।  বর্তমানে হরিণটি ঘাসের পাশাপাশি ভাত, নুডুলস, সেমাই, মুড়ি-চানাচুর, চাসহ বিভিন্ন ধরনের মানুষের খাবার খায়। চাকরি জীবনের মাত্র ৬ মাসের মধ্যে শশীকে পেয়ে নূরউল্ল্যাহ যেন তার পরিবার থেকে দূরে থাকার কষ্টটা ভুলে গেছেন।  তবে মায়ায় কষ্ট হলেও নিয়ম অনুযায়ী হরিণ শাবকটিকে বনে অবমুক্ত করতে হবে বলে মনে করেন নুরউল্লাহ ।  
ভূতের গলি-পরীবাগসহ ঢাকার বিভিন্ন স্থানের নামকরণের রহস্য
ভূতের গলির মানে কি গলি ভরা ভূতের সমারোহ, পরীবাগ মানে কি বাগান ভরা পরী? স্বামীবাগে কি শুধু স্বামীরাই থাকেন? আরামবাগের মানুষ কি সারাদিনই আরাম করেন? এলিফেন্ট রোড কি শুধু হাতিদের জন্য?  রাজধানী ঢাকা কারো কাছে ভালোবাসার শহর, কারো কাছে মায়ার শহর আবার কারো কারো কাছে জাদুর শহর। এ শহরের বিভিন্ন জায়গার রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন নাম। শুনতে মজার হলেও এসব নামের পেছনে রয়েছে এক একটি ইতিহাস। আসুন জেনে নেই রাজধানীর অতি পরিচিত বেশ কয়েকটি স্থানের নামকরণের নেপথ্য— ভূতের গলি এ এলাকায় Mr. boot নামে একজন ব্রিটিশ নাগরিক ছিলেন, তার নাম থেকে বুটের গলি, পরবর্তীতে বুট থেকে প্রচলিত হয়ে যায় ভুতের গলি নামে।   গেন্ডারিয়া  ইংরেজি শব্দ Grand Area থেকে এসেছে।  এ এলাকায় অভিজাত ধনী ব্যক্তিরা থাকতেন বলে এর নাম ছিল Grand Area।  কিন্তু লোকমুখে ইংরেজি শব্দ গ্র্যান্ড এরিয়া হয়ে যায় গেন্ডারিয়া। মহাখালী এ এলাকায় মহাকালী নামের একটি মন্দির ছিল।  সেই মহাকালি থেকে জায়গার নাম হয়ে যায় মহাখালী। গোপীবাগ এ এলাকায় গোপীনাগ নামক এক ধনী ব্যবসায়ী ছিলেন।  নিজ খরচে তৈরি করেন ‘গোপীনাথ জিউর মন্দির’। এর পাশেই ছিল হাজারো ফুলের বাগান।  আর সর্বোপরি বাগান আর গোপীনাগ থেকে জায়গার নাম হয়ে যায় ‘গোপীবাগ’   পুরানা পল্টন, নয়া পল্টন: ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর ঢাকাস্থ সেনানিবাসে এক প্ল্যাটুন সেনাবাহিনী ছিল, তবে বাঙালীর বাংলা বলতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। তাই প্ল্যাটুন থেকে নাম হয়ে যায় পল্টন। পরবর্তীতে আগাখানিরা এই পল্টনকে দুইভাগে ভাগ করেন, নয়া পল্টন ছিল আবাসিক এলাকা আর পুরানো পল্টন ছিল বাণিজ্যিক এলাকা। পিলখানা, হাতিরঝিল, এলিফ্যান্ট রোড ও হাতিরপুল  ইংরেজ শাসনামলে প্রচুর হাতি পালা হতো বলে জায়গার নাম হয় পিলখানা।  হাতিগুলো যেখানে গোসল করানো হত তার নাম হয় হাতিরঝিল।  আর পিলখানা হতে ঝিলে যাওয়ার জন্য হাতিরা যে রাস্তা দিয়ে ব্যবহার করত তার নামকরণ করা হয় এলিফ্যান্ট রোড।  আর এর মাঝে ছোট্ট একটি কাঠের পুল ছিল, যার নামকরণ হলো হাতিরপুল।  স্বামীবাগ এ এলাকায় ত্রিপুরালিঙ্গ স্বামী নামে এক ধনী ও রাজনৈতিক প্রভাবশালী এক ব্যক্তি ছিলেন।  এলাকায় স্বামীজি নামেও পরিচিত ছিলেন তিনি।  তার নামানুসারে এলাকার নাম হয় স্বামীবাগ। পরীবাগ পরীবানু নামে নবাব আহসানউল্লাহর এক মেয়ে ছিল।  ধারণা করা হয় পরীবানুর নামে একটি বড় বাগান করা হয়।  পরবর্তীতে তার নাম ও বাগানুসারে এর নামকরণ হয় পরীবাগ।  ধানমন্ডি এককালে এ এলাকায় বড় একটি হাট বসতো।  হাটটি ধান ও অন্যান্য শস্য বিক্রির জন্য বিখ্যাত ছিল।  আর তা থেকে এর নাম হয়ে যায় ধানমন্ডি।  কাকরাইল ঊনিশ শতকের শেষ দশকে ঢাকার কমিশনার ছিলেন মি. ককরেল।  নতুন শহর তৈরি করে নামকরণ হলো "কাকরাইল"। আরামবাগ এখানে প্রচুর ফল ও অন্যান্য গাছের বাগান ছিল।  মানুষ সেসব গাছের ছায়ায় আরাম করার পাশাপাশি ফল পেড়ে খেতো।  আর সর্বোপরি বাগান সমৃদ্ধ এলাকার নাম হয়ে যায় আরামবাগ।       
বাজারে বাজাজের নতুন পালসার এন১৬০, অজানা ফিচার জানুন
সম্প্রতি পালসারের সেরা বাইকগুলোর অন্যতম এন১৬০ মডেলের একটি আপডেটেড ভার্সন লঞ্চ করেছে বাজাজ। স্পোর্টি লুকের এই ভার্সনে কোম্পানিটি বেশ কিছু নতুন ফিচার্স যোগ করেছে। আসুন জেনে নেওয়া যাক মোটরসাইকেলটির খুঁটিনাটি। এন১৬০ বাইকটির স্টাইলিশ ট্রেন্ডি লুক এবং দুরন্ত ফিচার্স এটিকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলেছে। ২০২৪ বাজাজ পালসার এন১৬০ মডেলের দাম ভারতে ১ লাখ ৪০ হাজার রুপি নির্ধারণ করেছে বাজাজ অটো।  এতে পাবেন এলইডি প্রোজেক্টর হেডল্যাম্প, শার্প ট্যাংক এক্সটেনশন ইত্যাদি। সেই সঙ্গে রয়েছে আপসাইড ডাউন ফর্ক সাসপেনশন, বাইকে পিছনে রয়েছে মনোশক সাসপেনশন। ফিচারের ক্ষেত্রে রয়েছে ডিজিটাল কনসোল এবং ব্লুটুথ কানেক্টিভিটি। এন১৬০ বাইকটিতে পাবেন কল ও এসএমএস অ্যালার্ট, টার্ন-বাই-টার্ন নেভিগেশন এবং রাইডিং মোড। এতে রয়েছে অফ-রোড ফিচারও। অ্যাডভান্স ব্রেকিংয়ের জন্য পাবেন ডুয়াল চ্যানেল এবিএস (অ্যান্টি লক ব্রেকিং সিস্টেম)। দুই চাকাতেই রয়েছে ডিস্ক ব্রেক (সামনে ২৮০ মিলিমিটার ও পেছনে ২৩০ মিলিমিটার)।  বাইকটি ১৬৪.৮২ সিসি অয়েল কুল্ড ইঞ্জিন ইঞ্জিন ক্যাপাসিটির, রয়েছে ৫ স্পিড গিয়ারবক্স, যা সর্বোচ্চ ১৫.৬৮ হর্সপাওয়ার এবং ১৪.৬৫ এনএম টর্ক তৈরি করতে পারে। মোট ১৪ লিটার ফুয়েল ট্যাংক ক্যাপাসিটির বাইকটির কার্ব ওয়েট ১৫২ কেজি। প্রতি লিটারে ৫১ কিলোমিটার মাইলেজ দেবে এন১৬০ মডেলের একটি আপডেটেড ভার্সনটি।   পালসার ১২৫, পালসার এনএস১২৫, পালসার এন১৫০, পালসার এন১৬০, পালসার এনএস২০০ ইত্যাদি পালসার সিরিজের মোটরসাইকেল রয়েছে বাজাজের। সম্প্রতি এনএস৪০০ জেড লঞ্চ করেছে বাজাজ, যা এই সিরিজের সবচেয়ে বড় বাইক।  
যে কারণে বছরের সবচেয়ে ছোট রাত আজ
আজ শুক্রবার (২১ জুন) পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধে বছরের সবচেয়ে বড় দিন এবং ছোট রাত। তবে দক্ষিণ গোলার্ধে কিন্তু আজ সবচেয়ে ছোট দিন ও বড় রাত। আবহাওয়া অফিসের তথ্য বলছে, আজ দিন থাকবে ১৩ ঘণ্টা ৩৭ মিনিট।। আজ সূর্যোদয় হয়েছে ৫টা ১২ মিনিটে আর সূর্যাস্ত যাবে ৬টা ৪৮ মিনিটে। অর্থাৎ দিন হবে ১০ ঘণ্টা। তবে নিশ্চয়ই অনেকের মনে প্রশ্ন আসছে দিন বা রাত ছোট বড় হয় কীভাবে। আর কিভাবেই বা আজকের দিনটি উত্তর গোলার্ধে বড় এবং দক্ষিণ গোলার্ধে ছোট হয়। ঋতু পরিবর্তনের পাশাপাশি দিন ও রাতের সময়কালও বদলে যায়। বছরের ৩৬৫ দিন কখনো সমান থাকে না। কখনো দিন ছোট হয় এবং রাত বড় হয়, আবার কখনো দিন বড় হয় এবং রাত ছোট হয়। ঠিক এমনভাবেই, বছরে এমন একটি দিন আসে, যাকে সবচেয়ে বড় দিন এবং রাত সবচেয়ে ছোট হিসেবে ধরা হয়। আজ ২১ জুন বছরের সবচেয়ে বড় দিন। সৌরজগতের নিয়ম অনুযায়ী, পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘোরার সময় একদিকে একটু হেলে থাকে। ফলে কখনো উত্তর গোলার্ধ সূর্যের কাছে আসে, কখনো দক্ষিণ গোলার্ধ। এই দিনে সূর্যের রশ্মি পৃথিবীতে দীর্ঘ সময় ধরে পড়ে। তাই ২১ জুন বছরের দীর্ঘতম দিন। এই ঘটনাটিকে ‘সামার সলসটিস’ বলা হয়। সলসটিস একটি ল্যাটিন শব্দ। মানে সূর্য এবং সিস্টেরার মানে এক জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকা। ২১ জুন উত্তর গোলার্ধ সূর্যের সবচেয়ে কাছাকাছি আসে। সূর্যকে ২১ জুন মধ্যগগনে, প্রায় মাথার উপরে দেখা যায়। ২০ থেকে ২৩ জুনের মধ্যে ‘সামার সলসটিস’ হয়ে থাকে। আজকের দিনটি কর্কট ক্রান্তি দিবস হিসেবে পরিচিত। এটি উত্তর গোলার্ধের সবচেয়ে বড় দিন। এদিনে সূর্য সবচেয়ে বেশি সময় ধরে কিরণ দেবে পৃথিবীর এ অংশে। কর্কট ক্রান্তি রেখা আর মকর ক্রান্তি রেখা দুটির মধ্যে কর্কট ক্রান্তি রেখা দিন কতটা বড় হবে তা নির্ধারণ করে থাকে। আজকে দিনে সূর্য কিরণ থাকবে ১৩ ঘণ্টা ৩৬ মিনিট ৮ সেকেন্ড। ২৩ সেপ্টেম্বর সূর্য আবার অবস্থান নেয় বিষুব বৃত্তের বিন্দুতে, যেখানে ক্রান্তি বৃত্ত ও বিষুব বৃত্ত পরস্পরকে ছেদ করেছে। একে বলা হয় জলবিষুব বিন্দুতে। এই দিন পুনরায় পৃথিবীর সর্বত্র দিন-রাত সমান হয়ে থাকে। এর পর থেকেই আবার উত্তর গোলার্ধে ক্রমশ রাত বড় হতে হতে সূর্য পৌঁছে যায় ক্রান্তি বৃত্তের দক্ষিণ অয়নায়ন বিন্দুতে। এভাবে ২১ ডিসেম্বর তারিখে উত্তর গোলার্ধে হয় দীর্ঘতম রজনী আর ক্ষুদ্রতম দিবস। এ সময় সূর্য মকর বৃত্তে অবস্থান করে থাকে। উত্তর গোলার্ধে সূর্য সোমবার বেশি সময় ধরে কিরণ দেওয়ার কারণে দক্ষিণ গোলার্ধে কিন্তু স্বভাবতই দিন হবে সবচেয়ে ছোট। উত্তর গোলার্ধে সোমবার দুপুর ১২টায় সূর্য থাকবে ঠিক কর্কট ক্রান্তি রেখার উপরে।
এক চার্জে ১৮৭ কিলোমিটার চলবে এই বাইক
একবার চার্জ দিলে ১৮৭ কিলোমিটার চলবে ভারতের বেঙ্গালুরু ভিত্তিক ওবেন রর কোম্পানির ই-বাইক। প্রতিষ্ঠানটি ১ লাখ ১০ হাজার রুপির এই দুরন্ত ব্যাটারি চালিত বাইক হাজির করেছে।  দেখে নেওয়া যাক ওবেন রর ইলেকট্রিক বাইকের স্পেসিফিকেশন ও ফিচার্স ভারতে লং রেঞ্জ ইলেকট্রিক বাইকগুলোর মধ্যে অন্যতম ওবেন রর। বাইকের সিটের উচ্চতা রয়েছে ৮১০ মিলিমিটার, গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স ২০০ মিলিমিটার। যারা রাতে রাইডিং করেন তাদের জন্য রয়েছে এলইডি লাইটিং (হেডলাইট, টেল লাইট, টার্ন সিগন্যাল ল্যাম্প)। বাইকে মিলবে লো ব্যাটারি ইন্ডিকেটরও। ওবেন রর মডেলের দু চাকাতেই রয়েছে ডিস্ক ব্রেক। তবে অ্যান্টি লক ব্রেকিং সিস্টেম পাওয়া যাবে না। বাইকটিতে রয়েছে ৮ কিলোওয়াট আওয়ারের ব্যাটারি প্যাক, যা ফুল চার্জে ১৮৭ কিলোমিটার রেঞ্জ চলবে। বাইকটি ০ থেকে ৪০ কিমি প্রতি ঘণ্টা গতি স্পর্শ করতে সময় নেয় ৩ সেকেন্ড এবং সর্বোচ্চ গতি ১০০ কিমি প্রতি ঘণ্টা। এতে রয়েছে ব্লুটুথ কানেক্টিভিটি, রোড অ্যাসিস্ট্যান্স, জিও ফেন্সিং, অ্যান্টি থেফট এলার্ম, ডিজিটাল স্পিডোমিটার এবং একাধিক রাইডিং মোড ও ডিজিটাল ইনস্ট্রুমেন্ট কনসোল। একই সঙ্গে ইলেকট্রিক বাইকটিতে মিলবে ড্রাইভার অ্যালার্ট সিস্টেম।