• ঢাকা বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১
logo
শুটিং সেটে আহত প্রিয়াঙ্কা চোপড়া
তবে কি প্রিয়াঙ্কা-পরিণীতির সম্পর্কে ফাটল
বলিউডের জনপ্রিয় দুই অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও পরিণীতি চোপড়া। বিয়ের পর থেকেই বিদেশে গিয়ে পাকাপাকিভাবে থাকছেন প্রিয়াংকা। তবে সেখানে গিয়ে থাকলেও  পরিবারের সঙ্গে কোনো দূরত্ব তৈরি হয়নি তার। পরিবারের ভাইবোনদের সঙ্গেও সুসম্পর্ক বজায় রয়েছে প্রিয়াংকার।  তবে সাম্প্রতিক এক ঘটনা বলছে সম্পর্কে ফাটল ধরেছে প্রিয়াঙ্কা-পরিণীতির। দুই বোনের মাঝে নাকি দূরত্ব হয়তো তৈরি হয়েছে।    জানা গেছে, ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বরে আম আদমি পার্টির সাংসদ রাঘব চাড্ডার সঙ্গে সাত পাকে বাঁধা পড়েন পরিণীতি। তবে চোপড়া পরিবারের সব সদস্য বিয়ের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকলেও সেখানে ছিলেন না প্রিয়াঙ্কা।  শুধুমাত্র নতুন জীবনের অধ্যায় শুরু করায় সমাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শুভেচ্ছা জানিয়ে আত্মীয়তা সেরেছিলেন প্রিয়াঙ্কা। পরিণীতির বিয়েতে প্রিয়াঙ্কা না থাকায় সেসময় ব্যাপক সমালোচনা হয় নেটদুনিয়ায়।  প্রিয়াঙ্কার মা মধু চোপড়া অবশ্য মেয়ের অনুপস্থিতির কারণ জানিয়ে বলেছিলেন, বিয়ের জন্য আগে থেকে নিজের সব কাজ সম্পন্ন করার অনেক চেষ্টা করেছিল প্রিয়াঙ্কা। কিন্তু শেষ মুহূর্তে গুরুত্বপূর্ণ কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ায় বোনের বিয়েতে আসতে পারেনি সে। চলতি মাসে দীর্ঘদিনের প্রেমিকা নীলম উপাধ্যায়ের সঙ্গে বাগদান পর্ব সারেন প্রিয়াঙ্কার ভাই সিদ্ধার্থ চোপড়া। এদিকে ভাইয়ের আংটি বদলের অনুষ্ঠানে ছিলেন না পরিণীতি। কিন্তু হাজির ছিলেন প্রিয়াঙ্কার অন্য কাজিন মান্নারা চোপড়া। শোনা যায়, পরিণীতিকে নাকি খানিকটা এড়িয়েই চলেন প্রিয়াঙ্কা। তাই পারিবারিক অনুষ্ঠানে একজন হাজির হলে অন্যজন অনুপস্থিত থাকেন। তবে পরিণীতির চেয়ে   মান্নারার সঙ্গে ভালো সম্পর্ক প্রিয়াঙ্কার।    কয়েকদিন আগে প্রিয়াংকা যখন ভারতে এসেছিলেন, তখনও পরিণীতির সঙ্গে দেখা করেননি তিনি। এমনকি বিয়ের অনুষ্ঠানেও না আসায় প্রিয়াঙ্কার উপর অভিমানও করেন পরিণীতি। মিডিয়াপাড়ার একাংশের দাবি— এ কারণেই নাকি দুই বোনের সম্পর্কে চিড় ধরেছে।
কিংবদন্তি অভিনেত্রী কবরী চলে যাওয়ার তিন বছর
শিল্পী সমিতির নির্বাচন নিয়ে যা বললেন কাজী হায়াৎ
সমালোচনার ঝড়, ইউটিউব থেকে সরিয়ে নেওয়া হলো ‘রূপান্তর’
তুমি আমার জীবন এত সুখে ভরিয়ে দিলে খোদা : পরীমণি (ভিডিও)
ঈদের সপ্তম দিন আরটিভিতে যা দেখবেন
বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ । একনজরে জেনে নিন আরটিভির আজকের আয়োজন- সকাল ১০টা ১০মিনিটে বাংলা ছায়াছবি ‘তুই যদি আমার হইতি রে’। অভিনয় করেছেন শাকিব খান, মৌসুমী, ফেরদৌস প্রমুখ।   দুপুর ২টা ১০মিনিটে বাংলা ছায়াছবি ‘কিস্তিমাত’। অভিনয় করেছেন- আরেফিন শুভ, আঁচল, মিশা সওদাগর প্রমুখ।  বিকেল ৫টা ৩০মিনিটে গান ও আড্ডার অনুষ্ঠান ‘মিউজিক অন ফায়ার’। সম্ভাব্য শিল্পী- কর্ণিয়া, অংকন, মেহরাব। প্রযোজক: রাজু আহসান।  বিকেল ৬টায় টক শো ‘ঈদ কার্ণিভাল’। অতিথি- মন্দিরা চক্রবর্তী। উপস্থাপনায়- ইমতু রাতিশ, প্রযোজক দিপু হাজরা।  সন্ধ্যা ৭টায় ৭ পর্বের ধারাবাহিক নাটক- ‘তিন অক্ষরে নাম যার’।  রচনা ও পরিচালনা- হারুন রুশো।  অভিনয় করেছেন- চাষী আলম, সালহা খানম নাদিয়া, মুকিত জাকারিয়া, তানজিম হাসান অনিক, আব্দুল্লাহ রানা, মনিরা আক্তার মিঠু প্রমুখ।  রাত ৭টা ৩০ মিনিটে একক নাটক ‘পেপারম্যান’। পরিচালনা- আলোক হাসান। অভিনয় করেছেন- মিশু সাব্বির, সেমন্তি সৌমি প্রমুখ।  রাত ৮টা ৩০মিনিটে একক নাটক- ‘সেই রাতে’। পরিচালনা- সাইদুর ইমন। অভিনয় করেছেন- মিশু সাব্বির, মুনমুন আহমেদ মুন প্রমুখ।  রাত ৯টা ৩০মিনিটে একক নাটক- ‘এক একে দুই’।  পরিচালনা- রিয়াদ তালুকদার।  অভিনয় করেছেন- আরশ খান, অনামিকা ঐশী প্রমুখ। রাত ১১টা একক নাটক- ‘উভয় পক্ষ’। পরিচালনা- সাদেক সাব্বির। অভিনয় করেছেন- মনোজ প্রামাণিক, তাসনুভা তিশা প্রমুখ।    রাত ১১টা ৫৫মিনিটে ঈদ স্পেশাল লাইভ ‘কালার্স অফ মিউজিক’।  রাত ১২টায় মিনিটে ‘নিউজ টপটেন’।
‘শেষমেশ’, যে গল্প কাঁদিয়েছে দর্শকদের
দেশের নাট্যাঙ্গনে আলোচিত নাম কাজল আরেফিন অমি। ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ ধারাবাহিক দিয়ে দর্শকের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন তিনি। শুধু ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ নয়, নির্মাণ করেছেন একাধিক একক নাটক, ড্রামা সিরিজ ও ওয়েব সিরিজ। এবার ঈদে তিনি নির্মাণ করেছেন ‘শেষমেশ’ নামের একটি টেলিফিল্ম। এটি মুক্তির পর থেকেই দর্শক মহলে বেশ সাড়া ফেলেছে।  নাটকটি প্রচারের পর বিভিন্ন স্থিরচিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের নানা গ্রুপে শেয়ার দিয়ে নির্মাতা, অভিনয় শিল্পীদের প্রশংসায় ভাসাচ্ছেন দর্শকরা। বিশেষ করে মনিরা মিঠু ও পলাশের অভিনয়ে মুগ্ধ দর্শক।  আরটিভির সঙ্গে আলাপ কালে নাটকটি নিয়ে নির্মাতা অমি বলেন, আলহামদুল্লিহাহ, ‘শেষমেশ’ নিয়ে একটু চিন্তিত ছিলাম কারণ আমার অন্যান্য কন্টেন্টের মত ছিলো না। আসলে দর্শক যখন গল্পটির সঙ্গে নিজদের মিল খুঁজে পায় তখন সেই গল্প গুলো মানুষ আপন করে নেয়।  টেলিফিল্মটি মুক্তির পর চার ঘন্টায় এক মিলিয়ন হয়ে যায়। ‘শেষমেশ’  নিয়ে মানুষ যে পরিমাণ পজেটিভ রিভিউ দিচ্ছে তা সত্যই আমার জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি। দর্শক যখন এই ধরণের গল্প পছন্দ করে তখন আসলে আমি আরও অনেক ধরণের গল্প বলার সাহস পাই।  এ নাটকের বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন জিয়াউল হক পলাশ, পারসা ইভানা, মনিরা মিঠু, চাষি আলম, শিমুল শর্মা, পাভেল, সুমন পাটোয়ারী, ইশরাত জাহিন, তানজিম অনিক, সাদিয়া তানজিন।  
‘এই চরিত্রের জন্য মেকআপ নিতে এবং তুলতে ৫ ঘণ্টা সময় লাগত’
গেল ঈদে মুক্তি পেয়েছে ঢালিউডের ১১টি সিনেমা। এর মধ্যে অন্যতম হিমেল আশরাফ নির্মিত সিনেমা ‘রাজকুমার’। এতে শাকিব খানের মায়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি।  তবে এই সিনেমায় মাহির চরিত্রটি করার বিষয়টি গোপন রাখা হয়েছিল। এমনকি সেসময়ে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকেও এটা নিয়ে মুখ খোলেননি কেউই। তবে ছবিটি মুক্তির আগেই বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায়। এরপর থেকেই পর্দায় মায়ের চরিত্রে মাহিকে দেখার জন্য মুখিয়ে ছিলেন দর্শকরা।   সিনেমাটি মুক্তির পর মাহির চরিত্রটি নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া চলছে। অনেকেই বৃদ্ধ মায়ের চরিত্রে অভিনেত্রীর অভিনয়ের প্রশংসা করেছেন। তবে মেকআপ নিয়ে মন্তব্য করেছেন সিনেমাপ্রেমীদের একাংশ।  সম্প্রতি দেশের এক গণমাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন মাহি। চিত্রনায়িকা বলেন, ফেসবুকে অনেকেই আমাকে নিয়ে রিভিউ দিয়েছেন, অনেকেই তো দেখছি প্রশংসা করছেন। দু-একজন মেকআপের ব্যাপারে কথা বলেছেন। কিন্তু শুটিংয়ের সময় মেকআপ নিয়ে আমার কাছে সমস্যা মনে হয়নি। তাছাড়া এই চরিত্রের জন্য আমার মেকআপ নিতে আড়াই ঘণ্টা লাগত, তুলতেও আড়াই ঘণ্টা। উপযুক্তভাবেই মেকআপ করা হয়েছিল। জানা গেছে, মাহিকে নিয়ে শুটিং হয় রাঙ্গামাটির সাজেকের লোকেশনে। শাকিবের ৬৫ বছরের মায়ের চরিত্রে মাহিকে তৈরি করতে ভারত থেকে মেকআপশিল্পীকে আনা হয়েছিল। চরিত্রটি নিয়ে মাহি বলেন, আমি গতানুগতিক চরিত্র থেকে একটু বের হয়ে যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে চাই। বলিউডে দীপিকা যদি মায়ের চরিত্র করতে পারে, তাহলে আমি করলে সমস্যা কোথায়?  আমার কাছে মনে হয়, হিমেল আশরাফ নির্মাতা হিসেবে নিজেকে যথেষ্ট প্রমাণ করেছেন। তিনি আমাকে যখন চিন্তা করেছেন, আমার বিশ্বাস তিনি আমাকে ওইভাবেই উপস্থাপন করবেন। তাই কাজটি করেছি। এছাড়া সিনেমার প্রযোজক আরশাদ আদনান আমাকে কাজটি করার জন্য বলেছেন, তাই করেছি। বৃদ্ধ মায়ের চরিত্রটি করতে দারুণ অভিজ্ঞতা হয়েছে জানিয়ে মাহি বলেন, সিনেমায় সন্তানের সঙ্গে বৃদ্ধ মায়ের কথোপকথনের জায়গাটা খুবই আবেগময়। চরিত্রটি করার সময় আমার সন্তান ফারিশকেই কল্পনায় রেখেছি। ফলে সহজেই পর্দায় চরিত্রটি ফুটিয়ে তুলতে পেরেছি।    
সালমান খানের বাড়িতে হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার দুই অভিযুক্ত
বলিউড সুপারস্টার সালমান খানের বাড়িতে হামলার ঘটনায় অভিযুক্ত দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে মুম্বাই ক্রাইম ব্রাঞ্চ। সোমবার (১৫ এপ্রিল) রাতে গুজরাটের ভুজ থেকে দুর্বৃত্তদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।      রোববার (১৪ এপ্রিল) ভোর ৫টার দিকে সালমানের বাড়ির বাইরে চার রাউন্ড গুলি ছুড়ে পালিয়ে যান অজ্ঞাতনামা দুই দুর্বৃত্ত। অভিনেতার মুম্বাইয়ের বান্দ্রা এলাকায় গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টের সামনে এই ঘটনা ঘটে।  এ প্রসঙ্গে মুম্বাই পুলিশ জানায়, সালমানের বাড়িতে গুলি চালানোর পর মুম্বাই থেকে পালিয়ে যাওয়া দুই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তদন্তের জন্য গ্রেফতারকৃতদের মুম্বাই আনা হবে। পাশাপাশি সালমানের বাড়ির এই ঘটনাটিকে পরিকল্পিত হামলা হিসেবেই অভিহিত করেছে মুম্বাই ক্রাইম ব্রাঞ্চ।  সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, দুই বন্দুকধারীর মধ্যে একজন অভিনেতার বাড়ি লক্ষ্য করে গুলি চালায়। সন্দেহভাজন দুই ব্যক্তিই বাইকে থাকাকালে ব্যাকপ্যাক নিয়ে ছিলেন এবং পরিচিতি গোপনের জন্য টুপি পরা ছিল। এই ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পরেই হামলার দায় স্বীকার করার পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রীতিমতো সালমানকে হুমকিও দিয়েছে বিষ্ণোই গ্যাং। মূলত এরপরেই নড়েচড়ে বসে মুম্বাই পুলিশ। ফেসবুক পোস্টে গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোইয়ের ভাই আনমোল বিষ্ণোই লেখেন, ‘আমদের ওপর হওয়া অত্যাচারের নিষ্পত্তি চাই। যদি তুমি সরাসরি যুদ্ধের ময়দানে নামতে চাও, তাই সই। আজ যা হয়েছে, সেটা শুধু ট্রেলার ছিল সালমান খান। যাতে তুমি বুঝতে পারো, আমরা চাইলে কতদূর যেতে পারি। এটাই ছিল তোমাকে দেওয়া শেষ সুযোগ।    এরপর গুলিটা তোমার বাড়ির বাইরে চলবে না। দাউদ ও ছোটা শাকিল নামের যে দুইজনকে তুমি ভগবান মানো, সেই নামের দুটি কুকুর পুষেছি বাড়িতে। বাকি বেশি কথা বলার মানুষ আমি নই। জয় শ্রী রাম।’  এদিকে সালমানের বাড়িতে হামলার পর গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টের বাইরে ক্রাইম ব্রাঞ্চের ১০টি দল মোতায়েন করে মুম্বাই পুলিশ। এর আগেও গত বছরের মার্চ মাসে সালমান খানকে হুমকি দিয়ে প্রাণে মেরে ফেলার একটি ইমেইল আসে। অভিনেতার পরিণতিও সিধু মুসেওয়ালার মতোই হবে, এমন বার্তাই লেখা ছিল সেই মেইলে। পরবর্তীতে মুম্বাই পুলিশ লরেন্স বিষ্ণোই ও গোল্ডি ব্রারের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২০-বি (অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র), ৫০৬-২ (অপরাধমূলক ভীতি প্রদর্শন) এবং ৩৪ (সাধারণ উদ্দেশ্য) ধারায় এফআইআর দায়ের করে।  
নতুন প্রেমের গুঞ্জনে মুখ খুললেন শ্রাবন্তী
পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। অভিনয়ের চেয়ে ব্যক্তিগত জীবন নিয়েই বেশি আলোচনায় থাকেন এই নায়িকা। একাধিক প্রেম, বিয়ে, বিচ্ছেদ নিয়ে সমালোচনা যেন পিছুই ছাড়ে না তার।  কিছু দিন পর পরই প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছেন বলে গুঞ্জন ওঠে শ্রাবন্তীর বিরুদ্ধে। এবারও তার ব্যতিক্রম নয়। বেশ কিছু দিন ধরেই অভিনেতা জিতু কমলের সঙ্গে অভিনেত্রীর প্রেমের গুঞ্জন উঠেছে। অবশেষে বিষয়টি নিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমে মুখ খুলেছেন শ্রাবন্তী।    শ্রাবন্তী বলেন, আমি নিজেই অবাক হয়ে যাচ্ছি জিতু কমলের নামটা শুনে। আরও অনেকের নাম জুড়ে দেওয়া হয় আমার সঙ্গে। মানুষ অনেক কিছুই ভাবে। কিন্তু আমি তো জানি সত্যিটা কী! প্রেম, ভালোবাসা, এ সবই অভিনয়কে ঘিরে। অন্যকিছু নয়। বর্তমানে আমি সিঙ্গেল।   সিনেমার জন্য নির্মাতার সঙ্গে ‘সুসম্পর্ক’ রাখতে হয় কি না? জানতে চাইলে জবাবে অভিনেত্রী বলেন, শুধু ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি নয়। সব ইন্ডাস্ট্রিতেই এটা আছে। যেকোনো করপোরেট সেক্টরেই এটা দেখা যায়। তবে আমার সঙ্গে এই ধরনের ঘটনা ঘটেনি। ৯ বছর বয়স থেকে অভিনয় করছি। সকলের সঙ্গেই আমার মোটামুটি সম্পর্ক ভালো।  তবে যে ‘সুসম্পর্ক’র কথা বলা হচ্ছে— আমি সেই পন্থা কখনও নিইনি। এই বিষয়ে বাকিদের ব্যাপারে জানি না। যারা করেন, সেটা তাদের ব্যক্তিগত বিষয়। তারা হয়তো নিজেরা সেই জায়গাটা নিয়ে ভেবেছেন। আমি এই নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাই না। দর্শকের সমালোচনা সামলানোর বিষয়ে শ্রাবন্তী বলেন, সত্যি কথা বলতে, দর্শকদের সমালোচনা খারাপ লাগে। মধ্যবিত্ত পরিবারে বড় হয়েছি। যথেষ্ট লড়াই করেই আজকের জায়গায় এসেছি। মানুষ আমার স্ট্রাগলের কথা না ভেবেই সমালোচনা করতে শুরু করে। সবাই তো আমার বাড়ি এসে দেখতে যাচ্ছে না, জীবনে আমাকে কতটা ভুগতে হয়েছে।    
শিল্পী সমিতির নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে নিপুণের মন্তব্য
দরজায় কড়া নাড়ছে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন। আগামী ১৯ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এই নির্বাচন। চলতি বছরও দুটি প্যানেলের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে নির্বাচনে। ইতোমধ্যে জমে উঠেছে নির্বাচনের প্রচারণা।  সোমবার (১৫ এপ্রিল) নির্বাচনি প্রচারণার অংশ হিসেবে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তার। এসময় তিনি জানান, বর্তমানে নির্বাচনের পরিবেশ খুবই ভালো আছে।  নিপুণ বলেন, আজ থেকে নির্বাচনের প্রচারণায় নেমেছি। এফডিসিতে মানুষের আনাগোনা দেখে বলা যায়, উৎসব মুখোর পরিবেশেই প্রচারণায় নেমেছি। নির্বাচনের পরিবেশ খুব ভালো। দুই প্যানেলেই সবাই আসছে। সবার সঙ্গে সবাই যোগাযোগ করছে। সবমিলিয়ে বলা যায়, বর্তমানের নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে আমি সন্তুষ্ট।        জানা গেছে, চলতি বছর ভ্রাম্যমাণ আদালত থাকবে শিল্পী সমিতির নির্বাচনে। এ প্রসঙ্গে নিপুণ বলেন, এটা আমার কাছে ভালো মনে হয়েছে। আমাদের নির্বাচন নিয়ে তো ব্যাপকভাবে আলোচনা হয়। আমার তরফ থেকে এটা নিয়ে কোনো সমস্যা নেই।  ইশতেহারের বিষয়ে চিত্রনায়িকা বলেন, আমি এই মুহূর্তে ইশতেহার নিয়ে কিছু বলতে চাচ্ছি না। আমরা শিগগিরই ইশতেহার দেব, তখন বিস্তারিত জানাব।   নিপুণ আরও বলেন, বিগত নির্বাচনে আমার কিছু বিষয় নিয়ে অভিযোগ ছিল। সে সময়ে আমাকে অনেক সহায়তা করেছেন মিডিয়া কর্মীরা। আমি সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করি। এখন পর্যন্ত যা দেখছি, আমার মনে হচ্ছে— আগামী ১৯ এপ্রিল একটা সুষ্ঠু নির্বাচন পেতে যাচ্ছি আমরা।    
যেখানে সালমানের বাড়িতে হামলার ছক আঁকে দুর্বৃত্তরা
বলিউড সুপারস্টার সালমান খানের বাড়ির বাইরে চার রাউন্ড গুলি ছুড়ে পালিয়ে যান অজ্ঞাতনামা দুই দুর্বৃত্ত। রোববার (১৪ এপ্রিল) ভোর ৫টার দিকে মুম্বাইয়ের বান্দ্রা এলাকায় গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টের সামনে এই ঘটনা ঘটে।  শুধু তাই নয়, ইতোমধ্যে হুমকির চিঠি দিয়ে ঘটনার দায় স্বীকার করার পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রীতিমতো সালমানকে হুমকিও দিয়েছে বিষ্ণোই গ্যাং। মূলত এরপরেই নড়েচড়ে বসে মুম্বাই পুলিশ।  প্রাথমিক তদন্তে মুম্বাই পুলিশ জানায়, সালমানের বান্দ্রার বাসভবনে হামলার পরিকল্পনা করেছিল গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোইয়ের ডান হাত। যারা অভিনেতার বাড়ির বাইরে গুলি চালিয়েছিল, তারা দুজনেই লরেন্স বিষ্ণোই গ্যাংয়ের সঙ্গে যুক্ত।    সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, দুই বন্দুকধারীর মধ্যে একজন অভিনেতার বাড়ি লক্ষ্য করে গুলি চালায়। সন্দেহভাজন দুই ব্যক্তিই বাইকে থাকাকালীন ব্যাকপ্যাক নিয়ে ছিলেন এবং পরিচিতি গোপনের জন্য টুপি পরা ছিল।  ভারতীয় গণমাধ্যমগুলোর দাবি, লরেন্স বিষ্ণোইয়ের ভাই আনমোল বিষ্ণোই এই কাজের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত গ্যাংস্টার রোহিত গোদারার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। পুলিশ জানায়, গোদারাকে তার বিশাল নেটওয়ার্ক থেকে পেশাদার শুটার নিয়োগের  দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল সালমানের বাড়ির সামনে এলোপাতাড়ি গুলি চালানোর জন্য।  এর আগে, গত বছরের মার্চ মাসে সালমান খানকে হুমকি দিয়ে প্রাণে মেরে ফেলার একটি ইমেইল আসে। অভিনেতার পরিণতিও সিধু মুসেওয়ালার মতোই হবে, এমন বার্তাই লেখা ছিল সেই মেইলে। পরবর্তীতে মুম্বাই পুলিশ লরেন্স বিষ্ণোই ও গোল্ডি ব্রারের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২০-বি (অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র), ৫০৬-২ (অপরাধমূলক ভীতি প্রদর্শন) এবং ৩৪ (সাধারণ উদ্দেশ্য) ধারায় এফআইআর দায়ের করে। সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস