• ঢাকা শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১
logo
ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ইরান একাই যথেষ্ট : চীন
ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলায় নিহত ১৭, শিশুসহ আহত ৬০
ইউক্রেনের উত্তরাঞ্চলে ঐতিহাসিক শহর চেরনিহিভে রুশ বাহিনীর ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় অন্তত ১৭ জন নিহত হয়েছেন। এ হামলায় শিশুসহ আরও অন্তত ৬০ জন আহত হয়েছেন।   বুধবার (১৭ এপ্রিল) এ হামলায় হতাহতের এই ঘটনা ঘটে। খবর বিবিসির। চেরনিহিভের মেয়র অলেক্সান্ডার লোমাকোন বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শহরের ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় একটি আট তলা ভবনে ক্ষেপণাস্ত্রটি আঘাত হানে। এ নিয়ে শহরের কেন্দ্রস্থলে তিনটি ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হেনেছে।   প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, অধিকৃত ক্রিমিয়ায় রাশিয়ার একটি সামরিক বিমানঘাঁটিতে ইউক্রেনের হামলার খবর প্রকাশের কয়েক ঘণ্টা পর এ হামলা চালানো হয়। সেই হামলার বিস্তারিত এখনও নিশ্চিত করা হয়নি, যদিও স্থানীয় সোশ্যাল মিডিয়া চ্যানেলগুলো উত্তর ক্রিমিয়ার ঝানকোয় এয়ারফিল্ডে আগুনের ভিডিও শেয়ার করেছে। চেরনিহিভের মেয়র বলেন, একটি ভবনে রাশিয়ান ক্ষেপণাস্ত্র সরাসরি আঘাত করেছে এবং বেশ কয়েকটি তলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।  কিয়েভের প্রেসিডেন্টের কার্যালয় জানিয়েছে, হামলায় আরও চারটি উচ্চ ভবন, একটি হাসপাতাল, কয়েক ডজন গাড়ি এবং একটি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের খোঁজে ধ্বংসস্তূপের মধ্যে জরুরি পরিষেবাগুলো অনুসন্ধান চালাচ্ছে এবং কর্মকর্তারা জনসাধারণকে রক্ত দিতে এগিয়ে আসার জন্য আবেদন করেছেন।
ইসরায়েলকে সহায়তা করায় উত্তাল জর্ডান
‘ইসরায়েলে হামলা চালিয়ে প্রত্যাশার চেয়ে বেশি সফল ইরান’
ইরানের এক রাতের হামলা ঠেকাতে যত খরচ ইসরায়েলের
ইরানের জব্দ করা ইসরায়েলি জাহাজে ১৭ ভারতীয় নাগরিক
ইসরায়েলি জাহাজ জব্দ করল ইরান
ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর নৌ কমান্ডোরা হরমুজ প্রণালীর কাছে ইসরায়েল সংশ্লিষ্ট এমএসসি এআরইএস কন্টেইনার জাহাজ জব্দ করেছে। শনিবার (১৩ এপ্রিল) এ খবর জানিয়েছে ইরানের তাসনিম নিউজ এজেন্সি। অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের প্রথম প্রকাশিত একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, কমান্ডোরা হেলিকপ্টারে করে গুরুত্বপূর্ণ জলপথের কাছে একটি জাহাজে অভিযান চালাচ্ছে। জাহাজটি ছিল পর্তুগিজ পতাকাবাহী এমএসসি মেষ, লন্ডন ভিত্তিক জোডিয়াক মেরিটাইমের সাথে যুক্ত একটি কন্টেইনার জাহাজ। জোডিয়াক মেরিটাইম ইসরায়েলি ধনকুবের আইয়াল ওফারের জোডিয়াক গ্রুপের অংশ। জোডিয়াক গ্রুপ এ বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছে এবং এমএসসিকে প্রশ্নগুলি উল্লেখ করেছে, যা তাত্ক্ষণিকভাবে সাড়া দেয়নি। এমএসসি মেষ সর্বশেষ শুক্রবার (১২ এপ্রিল) দুবাই থেকে হরমুজ প্রণালীর দিকে যাচ্ছিল। জাহাজটি তার ট্র্যাকিং ডেটা বন্ধ করে দিয়েছিল, যা এই অঞ্চল দিয়ে চলাচলকারী ইসরায়েল-অনুমোদিত জাহাজগুলির জন্য স্বাভাবিক বিষয়।   Video purportedly from the IRGC boarding of the Israeli-linked MSC ARIES container ship in the Strait of Hormuz. pic.twitter.com/UXOS2EuxKU — Emanuel (Mannie) Fabian (@manniefabian) April 13, 2024 ভিডিওতে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর যুক্তরাজ্যের মেরিটাইম ট্রেড অপারেশনস এই হামলার কথা জানিয়েছিল। আমিরাতের বন্দর নগরী ফুজাইরাহের কাছে ওমান উপসাগরে জাহাজটি ‌‘আঞ্চলিক কর্তৃপক্ষ জব্দ করেছে’ বলে জানিয়েছে তারা। ভিডিওতে দেখা যায়, কমান্ডোরা জাহাজের ডেকে বসে থাকা কন্টেইনারের স্তূপের ওপর নেমে পড়েন। জাহাজে থাকা এক ক্রু সদস্যকে বলতে শোনা যায়, 'বাইরে এসো না। ক্রু মেট তখন তার সহকর্মীদের জাহাজের সেতুতে যেতে বলে কারণ আরও কমান্ডো ডেকে নেমে আসে। একজন কমান্ডোকে সম্ভাব্য কভার ফায়ার সরবরাহের জন্য অন্যদের উপরে হাঁটু গেড়ে বসে থাকতে দেখা যায়। ভিডিওটির সত্যতা তাৎক্ষণিকভাবে এপি যাচাই না করলেও বিস্তারিত তথ্য মিলেছে এবং এতে জড়িত হেলিকপ্টারটি ইরানের আধাসামরিক বাহিনী রেভল্যুশনারি গার্ডের ব্যবহৃত হেলিকপ্টারটি ব্যবহার করেছে বলে মনে হচ্ছে, যারা অতীতে অন্যান্য জাহাজে অভিযান চালিয়েছে। গত ১ এপ্রিল সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানি দূতাবাস কম্পাউন্ডের একটি ভবনে হামলা চালানোর পর ইসরায়েল তেহরান থেকে হামলা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে। এতে দুই জেনারেলসহ ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড ফোর্সের বেশ কয়েকজন কমান্ডার নিহত হন। ইরান তাৎক্ষণিকভাবে কোনো জাহাজ আটকের কথা স্বীকার করেনি এবং রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমেও এ ঘটনা সম্পর্কে কোনো প্রতিবেদনও প্রকাশ করা হয়নি। তবে, ২০১৯ সাল থেকে ইরান বেশ কয়েকটি জাহাজ আটকে রেখেছে এবং তার দ্রুত অগ্রসরমান পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে পশ্চিমের সাথে চলমান উত্তেজনার মধ্যে জাহাজগুলিতে হামলা চালিয়েছে। ওমান উপসাগর হরমুজ প্রণালীর কাছে অবস্থিত, যা পারস্য উপসাগরের সংকীর্ণ মুখ, যার মধ্য দিয়ে সমস্ত তেলের এক পঞ্চমাংশ প্রবাহিত হয়। সংযুক্ত আরব আমিরাতের পূর্ব উপকূলে অবস্থিত ফুজাইরাহ এই অঞ্চলের একটি প্রধান বন্দর যেখানে জাহাজ নতুন তেলবাহী জাহাজ গ্রহণ করতে পারে, রসদ সংগ্রহ করতে পারে বা ক্রুদের বাণিজ্য করতে পারে। ২০১৯ সাল থেকে ফুজাইরাহ উপকূলের জলসীমায় একের পর এক বিস্ফোরণ ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। মার্কিন নৌবাহিনী ট্যাংকারের ক্ষতিগ্রস্ত জাহাজে লিমপেট মাইন হামলার জন্য ইরানকে দোষারোপ করেছে।
ইরানকে কড়া হুঁশিয়ারি ইসরায়েলের
ইরান যদি রকেট হামলা চালিয়ে যায় তাহলে ইরানকে পরিণামে ভুগতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে ইসরায়েল। শনিবার (১৩ এপ্রিল) আইডিএফের মুখপাত্র আর-এডিএম ড্যানিয়েল হাগারি এ সংক্রান্ত একটি বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে তিনি বলেন, ইরানের হামলার মোকাবিলা করতে তৈরি ইসরায়েল। হামাস, হিজবুল্লাহর মতো জঙ্গি গোষ্ঠীকে মদত দিচ্ছে ইরান। এতে তিনি দাবি করেন, ইরানের মদতেই ইসরায়েলের উপর হামলা চালাচ্ছে হামাস, হিজবুল্লাহ। ইরান সরকারিভাবে সন্ত্রাসবাদে মদত দেয়। ইরানের জন্যই পশ্চিম এশিয়ায় শান্তি ও স্থিতাবস্থা বিঘ্নিত হচ্ছে। এদিকে, ইসরাইলে ইরানের হামলার আশঙ্কার মধ্যেই তেল আবিবের একটি কনটেইনার জাহাজ জব্দ করেছে ইরানের বিপ্লবী গার্ড। এ ঘটনায় ইরানকে পরিণাম ভোগের হুঁশিয়ারি দিয়েছে ইসরাইল। 
ইসরায়েলে হামলায় প্রস্তুত ইরানের ড্রোন-ক্ষেপণাস্ত্র
ইসরায়েলের ওপর প্রতিশোধ নিতে শতাধিক ড্রোন এবং কয়েক ডজন ক্ষেপণাস্ত্র প্রস্তুত করেছে ইরান। শনিবার (১৩ এপ্রিল) হতে পারে এ আক্রমণ। শুক্রবার (১২ এপ্রিল) দুই মার্কিন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী গণমাধ্যম সিবিএস নিউজ। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, উত্তজেনা বৃদ্ধি এড়াতে ইরান ছোট আকারের হামলাকে বেছে নিতে পারে। অন্যদিকে, গত ১ এপ্রিল সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানের কনস্যুলেট ভবনে গত ১ এপ্রিলে করে ইসরায়েল। ওই হামলায় ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ডের দুই জেনারেলসহ বেশ কয়েকজন কমান্ডার নিহত হন।  এবার সেই হামলার প্রতিশোধ নিতে ইরান হামলা চালাবে। যুক্তরাষ্ট্রের দৈনিক ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুক্রবার (১২ এপ্রিল) থেকে পরবর্তী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে হতে পারে তেহরানের হামলা। বিষয়টির সঙ্গে জানা আছে এমন একজন ব্যক্তিকে উদ্ধৃত করে সংবাদ মাধ্যমটি। শুক্রবার  ফ্রান্সের বার্তা সংস্থা এএফপি হোয়াইট হাউসের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, ইসরায়েলের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেওয়ার ইরানের হুমকি ‘বাস্তব’।  যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের মুখপাত্র জন কিরবি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা এখনও ইরানের সম্ভাব্য হুমকিকে বাস্তব ও কার্যকর বলে মনে করি। যুক্তরাষ্ট্র তেহরানের হুমকির আলোকে ওই অঞ্চলে তার নিজস্ব শক্তি পরীক্ষা করে দেখছে এবং পরিস্থিতি খুব গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। এ অবস্থায় ইসরায়েলে কর্মরত নিজ দেশের নাগরিকদের ভ্রমণ সতর্কতা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন দূতাবাসের বরাত দিয়ে বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানায়, নিজ কর্মীদের বৃহত্তর জেরুজালেমের বাইরে ভ্রমণ না করার পরামর্শ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে, তেল আবিব ও বির শেভা এলাকা এ সতর্কতার আওতামুক্ত থাকবে। টাইমস অব ইসরায়েলের খবরে বলা হয়েছে, ইসরায়েল ‘যে কোনো পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুতি’ সম্পর্কে একটি ‘বিস্তৃত’ মূল্যায়ন করেছে। আইডিএফ যে কোনো হুমকির বিরুদ্ধে আক্রমণ ও প্রতিরক্ষায় ভালোভাবে প্রস্তুত। তারা যুদ্ধে আছি এবং প্রায় ছয় মাস ধরে উচ্চ সতর্কতায় আছে। উল্লেখ্য, গত ৭ অক্টোবর গাজার ইরেজ সীমান্ত দিয়ে ইসরায়েলের ভূখণ্ডে ঢুকে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ১ হাজার ২০০ জন মানুষকে হত্যা করে হামাস। পাশপাশি জিম্মি হিসেবে ধরে নিয়ে যায় ২৪২ জনকে। এরপর গাজায় হামলা শুরু করে ইসরায়েলি বাহিনী। দখলদারদের এমন হামলায় নিহতের সংখ্যা ৩৪ হাজার ছাড়িয়েছে। এরমধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যাই ২৪ হাজারের বেশি। বাস্তুচ্যুত হয়েছেন ২০ লাখ মানুষ। ২২৯টি মসজিদ সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস হয়ে গেছে।    
সামরিক সহযোগিতা বাড়াতে জাপান-যুক্তরাষ্ট্র বৈঠক
হোয়াইট হাউসে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদাকে স্বাগত জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন৷ এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে চীনা হুমকি মোকাবিলায় পারস্পরিক সহযোগিতা বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দেয়া হতে পারে এ সাক্ষাতে৷ মঙ্গলবার রাতে হোয়াইট হাউসে জাপানের সরকারপ্রধানকে স্বাগত জানান যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট৷ এর মধ্য দিয়েই আনুষ্ঠানিকভাবে নিজের যুক্তরাষ্ট্র সফর শুরু করলেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা৷ এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে চীন এবং উত্তর কোরিয়ার কাছ থেকে পাওয়া হুমকি মোকাবিলায় জাপানে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর পুনর্গঠন নিয়ে আলোচনা করবেন দেশ দুটির দুই শীর্ষ নেতা৷ ধারণা করা হচ্ছে, ১৯৬০ সালের পর সামরিক খাতে এবারই ওয়াশিংটন ও টোকিওর মধ্যে বড় ধরনের অগ্রগতি দেখা যাবে৷ হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেক সুলিভান জানিয়েছেন, এই দুই নেতা আমাদের সামরিক বাহিনীর সমন্বয় ও একীকরণের বিষয়ে নিরাপত্তা সহযোগিতা বাড়ানোর ঘোষণা দেবেন বলে আশা করছি৷ কিশিদার সফরে যা থাকছে স্ত্রী ইউকোকে নিয়েই যুক্তরাষ্ট্র সফরে এসেছেন কিশিদা৷ তাই হোয়াইট হাউসে তাদের স্বাগত জানানোর সময় প্রেসিডেন্ট বাইডেনের সঙ্গে দেখা গেছে ফার্স্ট লেডি জিলকেও৷ বুধবার রাষ্ট্রীয় নৈশভোজের আগে জিল বাইডেন গণমাধ্যমকে বলেন, আমাদের দেশগুলো এমন একটি বিশ্বের অংশীদার যেখানে আমরা ধ্বংসের বদলে সৃষ্টি, রক্তপাতের পরিবর্তে শান্তি এবং স্বৈরাচারের বদলে গণতন্ত্রকে বেছে নিই৷ বুধবার দেশ দুটির মধ্যে শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে৷ এরপর বৈঠকে বসবেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ও জাপানের প্রধানমন্ত্রী৷ বৈঠক শেষে রোজ গার্ডেনে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে আসবেন দুই নেতা৷ বৃহস্পতিবার জাপান, যুক্তরাষ্ট্র এবং ফিলিপাইনসের মধ্যে একটি শীর্ষ সম্মেলনের আয়োজন করবেন জো বাইডেন৷ সেখানে উপস্থিত থাকবেন ফিলিপাইনসের প্রেসিডেন্ট ফার্দিনান্দ মার্কোস৷ প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের পর দ্বিতীয় জাপানি নেতা হিসাবে মার্কিন কংগ্রেসে ভাষণ দেবেন কিশিদা৷ এরপর তিনি যোগ দেবেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের আমন্ত্রণে বিশেষ নৈশভোজে৷ গত বছরের আগস্টে সবশেষ যুক্তরাষ্ট্র সফর করেছেন কিশিদা৷ সেবার সঙ্গে ছিলেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইউন সুক ইওল৷ গত মাসে জাপানের নিপ্পন স্টিলের কাছে ইউএস স্টিল বিক্রির বিরোধিতা করেছিলেন বাইডেন৷ এ ঘটনায় কিশিদার সঙ্গে তার সম্পর্কের কিছুটা অবনতি হতে পারে বলে ধারণা করা হয়েছিল৷ যা এখন সম্পূর্ণ বদলে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
ধ্বংস, মৃত্যু আর ক্ষুধার মধ্যেই গাজাবাসীর ঈদ
ঈদ মানে উৎসব। আর ঈদ মানেই নতুন জামা, সকালের নামাজ, স্বজনদের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করা হলেও গাজাবাসীর দিনটি কাটবে স্বজন হারানোর বেদনা, বোমায় বিধ্বস্ত মসজিদের দুঃসহ স্মৃতির মধ্যে। ক্ষুধা, বাবা-মা, ভাই-বোনের মৃত্যুর শঙ্কা এই উপত্যকার মানুষের পিছু ছাড়ছে না। গাজাবাসীরা রাস্তায় নেমে তাকবির পাঠ করে মাহে রমজানের সমাপ্তি এবং ঈদুল ফিতরকে স্বাগত জানিয়েছেন। বাস্তুচ্যুতও স্বজন হারানো ফিলিস্তিনিদের অনেকে ঈদ ঘিরে টুকটাক কেনাকাটা করেছেন। ঈদের আগে হাজারো ফিলিস্তিনি গাজার কিছু অংশে বাজারগুলোতে ভিড় জমান। সাধারণত ঈদ বলতে পরিবারের সদস্যদের জমায়েত এবং এই উৎসব পালন করতে বিশেষ ধরনের খাবার তৈরি করাকে বোঝায়। কিন্তু এ দুটিরই অনুপস্থিতি ও চলমান যুদ্ধের কারণে শিশুদের শুধুমাত্র তাদের আগের স্মৃতি ধারণ করেই থাকতে হবে। পুরো গাজা ভূখণ্ড জুড়ে সতের লাখ বাস্তুচ্যুত লোক কঠোর পরিস্থিতিতে বাস করছে এবং খাদ্য ও পানির তীব্র সংকটে তারা ত্রাণ সহায়তার উপর নির্ভর করে। গাজা ভূখণ্ডে যত মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে, তাদের মধ্যে এক শতাংশ শিশু অনাথ হয়েছে অথবা তাদের দেখাশোনা করার জন্য প্রাপ্তবয়স্ক কেউ নেই বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের শিশু সংস্থা ইউনিসেফ। সংস্থাটি ধারণা, গাজা ভূখণ্ডে অন্তত ১৭ হাজার শিশু সঙ্গীহীন অবস্থায় রয়েছে অথবা যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে বাবা -মায়ের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে একা হয়ে পড়েছে।    ফিলিস্তিনি সংগীতশিল্পী মুসাব আল ঘামরি বলেন, ঈদের দিনটি আমরা হারাতে দিতে পারি না। বোমাবর্ষণ, ভয়, মৃত্যুর মধ্যেও ঈদের উদযাপনে শিশুদের আনন্দ দিতে চাই। এদিকে ফিলিস্তিনিদের সামর্থ্য ও অবিচলতার জন্য শুভেচ্ছা জানিয়ে টেলিগ্রামে বিবৃতি দিয়েছে হামাস। এতে সংগঠনটি বলেছে, পশ্চিম তীর, জেরুজালেম, অধিকৃত (ঐতিহাসিক) ফিলিস্তিনে এবং সারা বিশ্বের বাস্তুচ্যুতি শিবিরে থাকা জনগণ আমাদের সঙ্গে এবং গাজার জনগণের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করছে। এতে বলা হয়েছে, ঈদুল ফিতরের প্রাক্কালে আমরা আরব ও ইসলামিক দেশগুলোকে অভিনন্দন জানাই। আমরা আশা করি, ফিলিস্তিনিদের জন্য এবং ইসরায়েলি দখলদারত্বের অবসানের লক্ষ্যে প্রকৃত সমর্থন বাড়তে থাকবে। লায়ান ও তার ১৮ মাস বয়সী বোন সিয়ার। পরিবারের বাকি সদস্যরা গাজায় অক্টোবরের বোমা হামলা থেকে বাঁচতে শহরের আল আহলি হাসপাতালে আশ্রয় নিয়েছিলো। সে সময় তারা নিহত হয়। লায়ান সেই রাতে তার পরিবারের ৩৫ সদস্যকে হারায়। তাদের মধ্যে বাবা–মা ও নিজের পাঁচ ভাই বোন ও ছিলো। তাদের পরিবারে একমাত্র তারাই এখন বেঁচে রয়েছে।  এগার বছর বয়সী লায়ান বলে, এই ঈদ অন্য কোন ঈদের মতো নয় কারণ যুদ্ধ চলছে। আমরা আমাদের পরিবার হারিয়েছি। আমাদের পরিবার হাসপাতালে পৌঁছানোর মাত্র আধ ঘণ্টার মধ্যে দুইটা ক্ষেপণাস্ত্র আমাদের ওপর আঘাত করে। আমি জেগে উঠে দেখলাম, আমার পরিবারের সব সদস্যরা টুকরো টুকরো হয়ে গেছে। ফিলিস্তিনের কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান ব্যুরোর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাজায় ৪৩ হাজারের বেশি শিশু বাস করে যাদের একজন বা বাবা-মা উভয়ই নেই।    গাজাবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যান্থনি আলবানিজ বলেন, গাজায় দুর্ভোগের কারণে অনেক অস্ট্রেলীয় মুসলিমের ঈদ দুঃখে কাটবে। এটি অনেকের জন্য কষ্টদায়ক এবং আতঙ্কের সময়। আমি আশা করি, আপনারা পরিবার ও বন্ধুদের মধ্যে কিছু সান্ত্বনা এবং শক্তি এবং বিশ্বাসের অভিব্যক্তি খুঁজে পাবেন। এদিকে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের প্রেসিডেন্ট ডেনিস ফ্রান্সিস গাজায় অকল্পনীয় চ্যালেঞ্জের বিষয়টি স্বীকার করে ঈদবার্তায় সমবেদনা ও সংহতির আহ্বান জানান। গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে অতর্কিত হামলা চালায় ফিলিস্তিনির স্বাধীনতাকামি সংগঠন হামাস। এতে এক হাজার ১৩৯ জনের প্রাণহানি ঘটে। এ সময় ২৫০ জন ইসরায়েলিকে জিম্মি করে হামাস। হামলার জবাবে গাজায় নজরবিহীন হামলা চালাতে শুরু করে ইসরায়েলি বাহিনী। এ পর্যন্ত ৩৩ হাজার ৩৬০ ফিলিস্তিনির প্রাণ নিয়েছে তারা। আহত হয়েছেন অন্তত ৭৫ হাজার ৯৯৩ জন।  
কেন এত সোনা কিনছে চীন!
গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে চীনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক প্রচুর পরিমাণে স্বর্ণ কিনেছে৷ ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধ ও গাজার সংঘাতের পাশাপাশি চীনের এ পদক্ষেপের কারণে বিশ্বব্যাপী স্বর্ণের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে৷ ভূ-রাজনৈতিক অস্থিরতা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্যে সুদের হার কমানোর চেষ্টা ও চীনের স্বর্ণ জমা করার কারণে এ সপ্তাহে প্রথমবারের মতো মূল্যবান এ ধাতুটির দাম দুই হাজার ২১২ ইউরো ছাড়িয়েছে৷ বিনিয়োগকারীরা বৈশ্বিক অস্থিরতা ও মুদ্রাস্ফীতির সময় স্বর্ণকে একটি নিরাপদ বিনিয়োগ হিসাবে বিবেচনা করেন৷ তাই করোনা পরবর্তী সময়ে অতিরিক্ত মুদ্রাস্ফীতি, মধ্যপ্রাচ্য ও ইউক্রেনে চলমান সংঘাত স্বর্ণের সাম্প্রতিক মূল্য বৃদ্ধিতে সহায়তা করেছে৷ চীনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক, পিপলস ব্যাংক অফ চায়নার (পিবিসি) এই পদক্ষেপে উন্নয়নশীল অন্যান্য দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোও প্রভাবিত হয়েছে৷ তারাও স্বর্ণের রিজার্ভ বাড়াতে আগ্রহী হয়ে উঠছে৷ ওয়ার্ল্ড গোল্ড কাউন্সিলের মতে, পিবিসি সবশেষ ১৬ মাস ধরে তার স্বর্ণের রিজার্ভ বাড়িয়েছে৷ ২০২৩ সালে অন্যান্য দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তুলনায় পিবিসি বেশি স্বর্ণ কিনেছে৷ সংস্থাটির তথ্য অনুযায়ী, ২০২৩ সালে চীন ২২৫ মেট্রিক টন স্বর্ণ কিনেছে৷ যা বিশ্বের অন্য সব দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কেনা এক হাজার ৩৭ টনের প্রায় এক চতুর্থাংশ৷ এ মুহূর্তে চীনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ভল্টে প্রায় দুই হাজার ২৫৭ টন স্বর্ণ মজুদ আছে৷ পিবিসির পাশাপাশি, চীনের সাধারণ নাগরিকেরাও স্বর্ণের মুদ্রা, বার ও গহনা কিনছেন৷ ওয়ার্ল্ড গোল্ড কাউন্সিলের প্রধান মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজিস্ট জন রিড গত মাসে ব্লুমবার্গ টিভিকে বলেন, বছরের শুরু থেকেই আমরা চীনকে বিপুল পরিমাণ স্বর্ণ কিনতে দেখেছি৷ চীনের অভ্যন্তরীণ সাংহাই গোল্ড এক্সচেঞ্জে রেকর্ড পরিমাণ বেচাকেনা দেখেছি৷ বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে বাণিজ্যের জন্য চীন মার্কিন ডলারের উপর ব্যাপকভাবে নির্ভরশীল৷ বিশ্বের সংরক্ষিত মুদ্রা হিসাবে, বেশিরভাগ পণ্যের দাম ডলারে হয় ও বিশ্বের অর্ধেকেরও বেশি বাণিজ্য মার্কিন ডলার ব্যবহার করে পরিচালিত হয়৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক আধিপত্যকে চ্যালেঞ্জ করার জন্য গত ৩০ বছরে চীন বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা সংগ্রহ করেছে, যার বেশিরভাগই ডলার৷ একই পরিস্থিতি ব্রিকস (ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন এবং দক্ষিণ আফ্রিকা) গোষ্ঠীর অন্যান্য দেশগুলির সঙ্গেও সামঞ্জস্যপূর্ণ৷ এ দেশগুলোর অর্থনীতি ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্ব অর্থনীতিতে আধিপত্য বিস্তার করতে প্রস্তুত হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ ব্রিকস ভবিষ্যতে একটি অভিন্ন মুদ্রা চালু করার কথাও ভাবছে৷ যা বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ মুদ্রা হিসাবে পরিচিত মার্কিন ডলারকে চ্যালেঞ্জ করতে পারে৷ ওয়াশিংটন তার বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ও ভূ-রাজনৈতিক অবস্থান বজায় রাখতে ডলারকে কিভাবে অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করে তা নিয়ে চীনসহ ব্রিকস এর সদস্য দেশগুলো উদ্বিগ্ন৷ ডলারে বিনিময়ের কারণে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অনেক কম খরচে ঋণ নিতে পারে৷ উদাহরণস্বরূপ, রাশিয়া, ইরান ও উত্তর কোরিয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার সময় ওয়াশিংটন এই মুদ্রাকে কূটনীতির হাতিয়ার হিসাবেও ব্যবহার করতে পারে৷ ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়ার ইউক্রেন আক্রমণের পর, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বৈদেশিক রিজার্ভ জব্দ করাসহ মস্কোর উপর বেশ কয়েক দফা অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে৷ মার্কিন চাপের মুখে, বেশিরভাগ রাশিয়ান ব্যাংককে সুইফট পেমেন্ট সিস্টেম থেকে বের করে দেওয়া হয়৷ সুইফট পেমেন্ট সিস্টেম আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে সহজেই লেনদেন করা যায়৷ এছাড়াও ভবিষ্যতে চীন যদি তার সামরিক শক্তি আরও কমিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেয় বা ওয়াশিংটনের সাথে বাণিজ্য যুদ্ধে জড়ায় , তাহলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একইরকম নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হতে পারে বলে চিন্তিত চীনের রাজনৈতিক নেত্রীবৃন্দ৷ চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেছেন, তার দেশ প্রয়োজনে বলপূর্বক তাইওয়ানকে পুনরায় দখল করতে পারে৷ গণতান্ত্রিকভাবে পরিচালিত এই দ্বীপ রাষ্ট্রটিকে বেইজিং তার অংশ হিসেবে বিবেচনা করে৷ ওয়ার্ল্ড গোল্ড কাউন্সিলের বিশ্লেষকেরা ধারণা করছেন, চীনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের স্বর্ণ কেনার এই ধারা আরও কয়েক বছর ধরে চলমান থাকবে৷ এ প্রক্রিয়াটিকে ডলারের বিকল্প তৈরির একটি সংকেত হিসেবে দেখছেন তিনি৷
ঈদের তারিখ ঘোষণা করল মালয়েশিয়া
এশিয়ার দেশ মালয়েশিয়ায় পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে। দেশটিতে বুধবার (১০ এপ্রিল) পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) রাত ৮টায় কিপার অব দ্য গ্রেট সিল অব দ্য কিংস, তান শ্রী সৈয়দ দানিয়াল সৈয়দ আহমদের ঈদ উদযাপন সম্পর্কিত এ ঘোষণা দেশটির রেডিও ও টেলিভিশনেও সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।  সৈয়দ দানিয়াল সৈয়দ আহমদে বলেন, সারাদেশে ২৯টি স্থানে চাঁদ দেখার ফলাফলের ভিত্তিতে আনুষ্ঠানিকভাবে ১০ এপ্রিল পবিত্র ঈদুল ফিতরের (হারি রায়া আদিলফিত্রী) তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা বারনামা সূত্রে জানা যায়, ইয়াং ডি পারতুয়ান আগাংয়ের (রাজা) এবং প্রধানমন্ত্রী চাঁদ দেখা কমিটির সাথে একমত পোষণ করেছেন। তাই মালয়েশিয়ায় বুধবার পবিত্র উদুল ফিতর পালন করা হবে। এদিকে, বাংলাদেশে পবিত্র ঈদুল ফিতরের চাঁদ দেখতে বৈঠকে বসছে ‘জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি’। মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে এ বৈঠক শুর হয়। বাংলাদেশের আকাশে কোথাও চাঁদ দেখা গেলে তা ০২-২২৩৩৮১৭২৫, ০২-৪১০৫০৯১২, ০২-৪১০৫০৯১৬ ও ০২-৪১০৫০৯১৭ টেলিফোন নম্বরে ফোন করে এবং ০২-২২৩৩৮৩৩৯৭ ও ০২-৯৫৫৫৯৫১ নম্বরে ফ্যাক্স করে বা সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা প্রশাসক (ডিসি) বা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) জানানোর অনুরোধ জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।