• ঢাকা বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১
logo
সড়কে প্রতিদিনের অপমৃত্যু যেন স্বাভাবিক ঘটনা : জি এম কাদের
পাঁচ বছর আওয়ামী লীগকে ঘুমাতে দেব না : চুন্নু
জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন, সরকারকে জনগণের কাছে জবাবদিহিতা করতে হয়, সেই কাজটা সংসদের মাধ্যমে আমি করছি। আপনারা আমার ওপর আস্থা রাখেন, পাঁচটা বছর আওয়ামী লীগকে ঘুমাতে দেব না। শনিবার (১৩ এপ্রিল) বিকেলে পাটজাত পণ্য উৎপাদন ও রপ্তানিকারক কিশোরগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সদস্য শফিউল আলম জনির দেওয়া উপজেলাবাসীর জন্য ফ্রি  অ্যাম্বুলেন্স হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় পার্টির মহাসচিব বলেন, হতে পারি আমরা সংখ্যায় কম। সংসদে বিরোধীদলের সদস্য সংখ্যা ৫০ বা ৬০ জন হলে কি হবে, যদি তারা কথা বলতে না পারে। বঙ্গবন্ধুর সময় বাবু সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মতো একজনই সংসদ কাঁপিয়ে রাখত। তাই বিরোধীদলের সংসদ সদস্যের সংখ্যাটা বড় বিষয় নয়, কথা বলাটা বড়। কথা বলতে পারলে দুই-চার-পাঁচজনই যথেষ্ট। তিনি বলেন, বিদ্যুতের নামে ৯০ হাজার কোটি টাকা জরিমানা দিয়েছে, কেন দিল, কেন বিদ্যুৎ নাই- এজন্য প্রধানমন্ত্রীকে জবাব দিতে বাধ্য করেছি। তিনি আমার প্রশ্নের ব্যাখ্যা দিতে বাধ্য হয়েছেন। করিমগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মতিন বাবলুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন করিমগঞ্জ পৌরসভার মেয়র হাজী মুসলেহ উদ্দিন, ইঞ্জিনিয়ার হেলাল উদ্দিন, সমাজসেবক রফিকুর রহমান রফিক, আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্য আমিরুল ইসলাম খান বাবলু, করিমগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র হাজী আব্দুল কাইয়ূম, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. রিয়াদ শাহেদ রনি প্রমুখ।  
কেএনএফের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জিএম কাদেরের
জাপার অন্তঃকোন্দলের জন্য সরকারকে দায়ী করলেন জিএম কাদের
জিএম কাদেরকে লিগ্যাল নোটিশ
যে কারণে নির্বাচনে জাতীয় পার্টির ভরাডুবি, জানালেন রওশন
এরশাদের ৯৫তম জন্মদিন আজ
প্রয়াত সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ৯৫তম জন্মদিন আজ। ১৯৩০ সালের ২০ মার্চ সাবেক সফল রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা  চেয়ারম্যান, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ কুড়িগ্রাম শহরের ‘লাল দালান’ বাড়ি’খ্যাত নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। দিনটি উপলক্ষ্যে নানা কর্মসূচি পালন করবে দলটি। সকাল ৮টায় কাকরাইলের পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে স্থাপিত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, দিনব্যাপী কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত এবং বাদ আছর দোয়া ও মিলাদ মাহফিল। এছাড়া এদিন দুপুর ২টায় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে আলোচনা সভা এবং দোয়া মাহফিল হবে। এতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা জিএম কাদের এমপি, পার্টির মহাসচিব ও জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মো. মুজিবুল হক চুন্নু এমপিসহ দলের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত থাকবেন। এছাড়াও জেলা, মহানগর, উপজেলা, পৌরসভাসহ প্রত্যেক ইউনিটে যথাযোগ্য মর্যাদায় নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালিত হবে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জন্মদিন।  
দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ঈদের পর আন্দোলনে যাবে জাপা
দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকারকে বাধ্য করতে প্রয়োজনে ঈদের পর আন্দোলন করার কথা জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু। তাতে সায় দিয়ে দলটির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের বলেছেন, এগুলো (দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ) করার জন্য আমাদের দায়িত্ব সরকারকে বাধ্য করা। জনগণের পাশে দাঁড়াতে না পারলে, জনগণের কোনো সমর্থন পাওয়া যাবে না। রোববার (১৭ মার্চ) সন্ধ্যায় মিরপুর ১২ নম্বরে জাতীয় পার্টি ঢাকা উত্তরের আয়োজনে ইফতার ও দোয়া মাহফিলে এসব কথা বলেন জাপা নেতারা। চুন্নু বলেন, সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীরা সরকারের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে জিনিসপত্রের দাম আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, সাধারণ মানুষ রমজানে যাতে দিনানিপাত করতে পারে সেই ব্যবস্থা করে দেন। তিনি বলেন, আপনাদের প্রতারণামূলক কথা মানুষ আর বিশ্বাস করে না। সরকার যদি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে না আনতে পারে, তাহলে চেয়ারম্যানকে বলবো ঈদের পরে মানুষের পক্ষে আন্দোলন করা প্রয়োজন। মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে এসবের বিরুদ্ধে বিরুদ্ধাচরণ করে সরকারকে বাধ্য করা উচিত, যাতে সরকার জিনিসপত্রের দাম কমায়। জাপা চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেন, সরকারের অনেক ধরনের আশ্বাস আমরা শুনেছি। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করা নিয়ে অনেক বড় বড় কথা শুনেছি। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে নেই, সাধারণ মানুষের নামে দলীয় কিছু নেতাকর্মীকে সুযোগসুবিধা দেওয়া হচ্ছে। গুটিকয়েক মানুষকে সুযোগসুবিধা দেওয়া হচ্ছে। সামাজিক ন্যায়বিচার বঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। জনগণের ভালো দেখা আমাদের দায়িত্ব। তিনি বলেন, আমাদের দায়িত্ব সরকারকে বাধ্য করা এগুলো করার জন্য। প্রস্তুতি নিতে হবে, জনগণের পাশে দাঁড়াতে না পারলে জনগণের কোনো সমর্থন পাওয়া যাবে না। সংগঠন করতে হলে জনসমর্থন দরকার। জনসমর্থনের জন্য সেই রাজনীতি দরকার যেটা জনগণ চায়। সেই রাজনীতি করার প্রস্তুতি নিতে হবে। জিএম কাদের আরও বলেন, সরকারের কাজকর্ম ও খরচাখরচ দেখে মনে হয় না দেশের মানুষ কষ্টে আছে। ধুমধাম চলছে সবখানে। সরকারি কর্মকাণ্ডে চাকচিক্য চলছে। সাধারণ মানুষকে কষ্ট দিয়ে, সাধারণ মানুষের টাকায় এগুলো করা হচ্ছে। আমরা এর প্রতিবাদ জানাই।  
ক্ষুধা-দরিদ্রতায় অগণিত মানুষ দিশেহারা : জিএম কাদের
জাতীয় পার্টির (জাপা) একাংশের চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, বিশ্ব আজ এক ভয়াবহ সংকট অতিক্রম করছে। ক্ষুধা, দরিদ্রতা ও বৈষম্যে অগণিত মানুষ দিশেহারা। হিংসা, বিদ্বেষ, অসহযোগিতা ও অমানবিকতায় বিশ্ব পরিপূর্ণ। জরুরি ভিত্তিতে এসব সংকটের সমাধান প্রয়োজন। শুক্রবার (১৫ মার্চ) বিকেলে শেরাটন হোটেলে কূটনীতিকদের সম্মানে আয়োজিত ইফতার মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন। জিএম কাদের বলেন, গাজায় মর্মস্পর্শী দুঃখজনক ঘটনা ঘটে চলেছে। অসংখ্য নিরপরাধ মানুষ, নারী, শিশু হতাহতের শিকার হচ্ছেন। তাদের অবর্ণনীয় দুঃখ-দুর্দশা ও অসহায়-অনিশ্চিত জীবনের হৃদয়বিদারক ঘটনার ছবি ও বর্ণনা প্রতিদিন প্রকাশিত হচ্ছে। তিনি বলেন, জেনেভা ঘোষণা অনুযায়ী, সশস্ত্র সংঘাত এবং সহিংসতার কারণে প্রতি বছর ৫ লাখ ২৬ হাজারের বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে। এ ছাড়া লাখ লাখ মানুষ বছরের পর বছর নিজ ঘরবাড়ি ছেড়ে দেশান্তরিত হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। জাপা চেয়ারম্যান বলেন, মিয়ানমারে জাতিগত সহিংসতার ফলে ২০১৭ সালে বাংলাদেশের মতো জনবহুল দেশে ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা আশ্রয় নেয়। তাদের জীবন অসম্মানজনক ও ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত। ইফতার মাহফিলে আমেরিকান দূতাবাসের চার্জ দে অ্যাফেয়ার্স হেলেন লাফাভ, কানাডার হাইকমিশনার লিলি নিকোলস, সিঙ্গাপুরের কনস্যুল শিলা পিল্লাই, যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের ডেপুটি কাউন্সিলর (পলিটিক্স অ্যান্ড ইকোনমি) আরতুরো হাইন্স, ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) ডেপুটি রাষ্ট্রদূত বার্নড স্পেনিয়ার, দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত পার্ক ইয়ং-সিক, ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের চিফ অব পার্টি ডানা এল. ওল্ডস, ডেপুটি চিফ অব পার্টি লেসলি রিচার্ডস, অস্ট্রেলিয়ার ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার নারদিয়া সিম্পসন, ব্রিটিশ হাইকমিশনার সারাহ কুক, জার্মান রাষ্ট্রদূত আখিম ট্রোসটার, সুইজারল্যান্ড দূতাবাসের রাজনৈতিক কাউন্সেলর ইরোজ রাব্বানী, নেপালের রাষ্ট্রদূত ঘনশ্যাম ভাণ্ডারী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
সেন্টুর পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেননি জাপা চেয়ারম্যান
অসুস্থতার কারণ উল্লেখ করে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান পদ থেকে শফিকুল ইসলাম সেন্টুর পদত্যাগপত্র আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করেননি পার্টির চেয়ারম্যান বেগম রওশন এরশাদ।   মঙ্গলবার (১২ মার্চ) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বার্তায় এই তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, সোমবার রাতে রাজধানীর গুলশানে জাপা চেয়ারম্যানের বাসভবনে পার্টির শীর্ষ নেতাদের এক জরুরি বৈঠকে সেন্টুর পদত্যাগপত্রটি গ্রহণ না করে তাকে দলীয় কর্মকাণ্ডে মনোনিবেশের আহ্বান জানানো হয়।   বৈঠক শেষে শফিকুল ইসলাম সেন্টুকে দেওয়া এক পত্রে পার্টির নবনির্বাচিত মহাসচিব কাজী মামুনূর রশিদ বলেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের সঙ্গে আলোচনাক্রমে জরুরি ভিত্তিতে শীর্ষ নেতাদের বৈঠকের পরামর্শ ও সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আপনার (শফিকুল ইসলাম সেন্টু) দেওয়া পদত্যাগপত্রটি গৃহীত হয়নি। আপনাকে কো-চেয়ারম্যান পদে বহাল থেকে পার্টির সকল কর্মসূচিতে অংশগ্রহণের অনুরোধ করা যাচ্ছে।   মহাসচিবের চিঠিতে আরও বলা হয়, পার্টির প্রতি আপনার নিবেদিত ত্যাগ চেয়ারম্যানসহ দলের শীর্ষ নেতারা কৃতজ্ঞতার সঙ্গে সব সময় স্মরণে রাখবেন। আপনার (শফিকুল ইসলাম সেন্টু) ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করে নেতাকর্মীদের আস্থা, বিশ্বাস ও সম্মানের মূল্যায়ন করবেন।   এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় অসুস্থতার কারণ উল্লেখ করে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করেন শফিকুল ইসলাম সেন্টু।
৪৮ ঘণ্টা না যেতেই রওশনের পার্টি থেকে পদত্যাগ করলেন সেন্টু
কাউন্সিলের ৪৮ ঘণ্টা না পেরুতেই রওশন এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি থেকে পদত্যাগ করেছেন দলটির কো-চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম সেন্টু।  সোমবার (১১ মার্চ) বিকেলে রওশন এরশাদ বরাবর নিজ স্বাক্ষরিত এক পদত্যাগপত্র জমা দেন সেন্টু। এতে পারিবারিক ও স্বাস্থ্যগত কারণে পদত্যাগ করেছে বলে উল্লেখ করেন তিনি। এর আগে, বিভিন্ন অনিয়ম নিয়ে জি এম কাদেরের বিরুদ্ধে গণমাধ্যমে কথা বললে দলীয় পদ হারান সেন্টু। সেন্টুকে অব্যাহতি দেওয়ার প্রতিবাদে মহানগর উত্তরের ৬ শতাধিক নেতাকর্মীও পার্টি থেকে পদত্যাগ করেন।   শফিকুল ইসলাম সেন্টু জি এম কাদেরের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তর কমিটির সভাপতি ছিলেন। বহিষ্কৃত সেন্টু যোগ দেন রওশন এরশাদের বলয়ে। বলতে গেলে তার জনবল দেখেই তড়িঘড়ি করে জি এম কাদের ও মুজিবুল হক চুন্নুকে অব‌্যাহতি দিয়ে রওশন এরশাদকে দলের চেয়ারম‌্যান ঘোষণা করা হয়। শনিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে জাতীয় কাউন্সিলে সাবেক বিরোধী দলীয় নেতা ও দলের প্রধান পৃষ্ঠপোষক বেগম রওশন এরশাদকে জাতীয় পার্টির নতুন চেয়ারম‌্যান, কাজী ফিরোজ রশীদকে নির্বাহী চেয়ারম‌্যান এবং কাজী মামুনুর রশীদকে মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়।
নেতৃত্ব পরিবর্তনে ইসিতে চিঠি দিয়ে সাড়া পেল না রওশনপন্থীরা
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও মহাসচিব পরিবর্তনে নির্বাচন কমিশনে চিঠি দিয়েছে রওশন এরশাদপন্থীরা। তবে এতে সাড়া দেয়নি ইসি। শনিবার (৯ মার্চ) ইসির উপসচিব মো. মাহবুবুল আলম শাহ স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানা গেছে। এতে বলা হয়, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও মহাসচিবকে তাদের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার বিষয়টি দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী না-হওয়ায় রওশনপন্থীদের আবেদন ইসিতে নামঞ্জুর হয়েছে। এর আগে, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও মহাসচিব পরিবর্তনে গত ৪ মার্চ প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) বরাবর চিঠি দেয় রওশন এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির মহাসচিব কাজী মামুনুর রশীদ। চিঠিতে বলা হয়, জাতীয় পার্টির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এবং একাদশ জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদের গুলশানের বাসায় দলটির সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের জরুরি বর্ধিত সভায় সর্বসম্মতিক্রমে পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এবং মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নুকে তাদের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে সভায় সবার দাবির প্রেক্ষিতে জাতীয় পার্টির গঠনতান্ত্রিক ক্ষমতাবলে রওশন এরশাদ পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বগ্রহণ করেছেন এবং কাজী মামুনুর রশীদকে অন্তর্বর্তী (পরবর্তী সম্মেলন না হওয়া পর্যন্ত) মহাসচিব হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এদিকে শনিবার ঢাকার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে জাতীয় পার্টির দশম জাতীয় কাউন্সিল করেন রওশন এরশাদপন্থীরা। কাউন্সিলে রওশন এরশাদকে দলের চেয়ারম্যান হিসেবে আগামী ৩ বছরের জন্য নির্বাচিত করা হয়। কাউন্সিলে আগামী তিন বছরের জন্য জাতীয় পার্টির মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেন কাজী ফিরোজ রশীদ। সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা নির্বাচিত। এ ছাড়া পাঁচজন কো-চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে। কো-চেয়ারম্যানরা হলেন- শাহিদুর রহমান টেপা, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, সাদ এরশাদ, গোলাম সারওয়ার মিলন, সুনীল শুভ রায়। সুনীল শুভ রায় জাতীয় পার্টির মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করবেন। জাতীয় পার্টির দুই শীর্ষ নেতা রওশন এরশাদ ও জিএম কাদেরের দ্বন্দ্ব অনেক পুরোনো। তবে ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে মনোনয়নবঞ্চিত হওয়ায় শীর্ষ নেতৃত্বের ওপর ক্ষুব্ধ হন রওশনপন্থীরা। অন্যদিকে, ছেলে সাদ এরশাদকে রংপুরে মনোনয়ন না দেওয়ায় রওশন এরশাদ নির্বাচন থেকে বিরত থাকেন। এর জেরে নতুন করে জাপায় দ্বন্দ্ব শুরু হয়। এখন শেষে পর্যন্ত দলটি দুই ভাগ হয়ে গেল।
আমরাই মূল জাতীয় পার্টি : চুন্নু
জি এম কাদেরের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন, আরেকটি ব্রাকেটবন্দী দল হতে পারে। কিন্তু আমরাই মূল জাতীয় পার্টি। শনিবার (৯ মার্চ) রওশন এরশাদপন্থীদের কাউন্সিল প্রসঙ্গে গণমাধ্যমকে তিনি এ কথা বলেন। মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, রওশন এরশাদপন্থীদের পৃথক কাউন্সিল করা দলের গঠনতন্ত্রবিরোধী। তবে আমরা তাদের কার্যক্রমকে গুরুত্ব দিচ্ছি না। জি এম কাদেরের নেতৃত্বে জাতীয় পার্টি ঐক্যবদ্ধ রয়েছে এবং থাকবে। এদিন ঢাকার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে জাতীয় পার্টির দশম জাতীয় কাউন্সিল করেন রওশন এরশাদপন্থীরা। কাউন্সিলে রওশন এরশাদকে দলের চেয়ারম্যান হিসেবে আগামী ৩ বছরের জন্য নির্বাচিত করা হয়। কাউন্সিলে আগামী তিন বছরের জন্য জাতীয় পার্টির মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেন কাজী ফিরোজ রশীদ। সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা নির্বাচিত। এ ছাড়া পাঁচজন কো-চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে। কো-চেয়ারম্যানরা হলেন- শাহিদুর রহমান টেপা, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, সাদ এরশাদ, গোলাম সারওয়ার মিলন, সুনীল শুভ রায়। সুনীল শুভ রায় জাতীয় পার্টির মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করবেন। জাতীয় পার্টির দুই শীর্ষ নেতা রওশন এরশাদ ও জিএম কাদেরের দ্বন্দ্ব অনেক পুরোনো। তবে ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে মনোনয়নবঞ্চিত হওয়ায় শীর্ষ নেতৃত্বের ওপর ক্ষুব্ধ হন রওশনপন্থীরা। অন্যদিকে, ছেলে সাদ এরশাদকে রংপুরে মনোনয়ন না দেওয়ায় রওশন এরশাদ নির্বাচন থেকে বিরত থাকেন। এর জেরে নতুন করে জাপায় দ্বন্দ্ব শুরু হয়। এখন শেষে পর্যন্ত দলটি দুই ভাগ হয়ে গেল।