• ঢাকা বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১
logo
চালকবিহীন মেট্রোরেল চালু হলো কলকাতায়
ভারতে মাওবাদী নেতাসহ নিহত ২৯
ভারতের ছত্তিশগড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে মাওবাদীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ওই গোষ্ঠীর শীর্ষ নেতা শঙ্কর রাওসহ ২৯ মাওবাদী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত তিন নিরাপত্তারক্ষী। নিহত মাওবাদীদের শীর্ষ নেতার মাথার দাম ছিল ৩২ লাখ টাকা। ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি খবরে বলে, মঙ্গলবার বিকালে কাঙ্কের জেলায় ছত্তিশগড় পুলিশের ডিস্ট্রিক্ট রিজার্ভ গার্ড (ডিআরজি) এবং সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) এর যৌথবাহিনী অভিযান চালায়। বিএসএফের মুখপাত্র জানিয়েছেন, বিশেষ সূত্রে খবর পেয়ে ছত্তিশগড়ের ছোটেবেটিয়া থানার কালপার জঙ্গলে যৌথ অভিযান চালায় ডিআরজি ও বিএসএফ। এসময় ঘটনাস্থল থেকে সাতটি একে-৪৭, তিনটি লাইট মেশিন গানসহ বিপুল অস্ত্র উদ্ধার হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। আগামী ১৯ এপ্রিলে ভারতে লোকসভা ভোট অনুষ্ঠানের প্রস্তুতিতে ৬০ হাজারের বেশি নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন করা হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে ছত্তিশগড়ে হয়েছে এ সংঘর্ষ। গত মাসেও ছত্তিশগড়ে নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে সংঘর্ষে এক মাওবাদী নিহত হন। সেসময় নিহত হন এক নিরাপত্তারক্ষীও। ঘটনাস্থল থেকে তখন বিস্ফোরকসহ বন্দুক উদ্ধার করে পুলিশ। এছাড়া ফেব্রুয়ারিতেও কাঙ্কেরে আরেকটি এনকাউন্টারে তিন মাওবাদী নিহত হন। ২০০৮ সালে ছত্তিশগড়ে মাওবাদীদের দমনের জন্য গঠন করা হয়েছিল ডিআরজি।
ফ্লাইওভার থেকে ৫০ যাত্রী নিয়ে পড়ে গেল বাস, নিহত ৫ 
ইসরায়েলে ইরানের হামলা নিয়ে যা বলল ভারত
ইরান-ইসরায়েল সংঘাতের মুখে সতর্ক ভারত
বাংলাদেশ ও আমিরাতে ভারতের পেঁয়াজ কূটনীতি
ভারতের ৩ অঞ্চলে দেখা গেছে চাঁদ
ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর, লাদাখ এবং কেরালায় পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে সেসব অঞ্চলে আগামীকাল বুধবার ঈদুল ফিতর পালিত হবে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে। হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর, লাদাখ ও কেরালায় শাওয়ালের চাঁদ দেখা গেছে। তবে দেশটির রাজধানী দিল্লিসহ বেশিরভাগ অঞ্চলে চাঁদ দেখা যায়নি। যেসব অঞ্চলে চাঁদ দেখা গেছে সেসব অঞ্চলে আগামীকাল বুধবার পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। যেসব জায়গায় চাঁদ দেখা যায়নি সেখানে ঈদ পালিত হবে বৃহস্পতিবার। ভারতের রাজধানী দিল্লির জামে মসজিদের ইমামরা এবং ফতেহপুর মসজিদ কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দেয়, যেহেতু চাঁদ দেখা যায়নি ফলে বৃহস্পতিবার ঈদ পালিত হবে। এদিকে পাকিস্তানেও দেখা গেছে শাওয়ালের চাঁদ। ফলে আগামীকাল বুধবার দেশটিতে ঈদ উদযাপন করা হবে। পাকিস্তানে এবং ভারতের কিছু অঞ্চলে চাঁদ দেখা গেলেও বাংলাদেশে দেখা যায়নি। তাই বাংলাদেশের মুসলিমরা এবার ৩০টি রোজা পালন করবেন। আর ঈদ পালন করবেন আগামী বৃহস্পতিবার। সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস
ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে প্রস্তুতি নিচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ
ডেঙ্গু মশা নিয়ন্ত্রণে আগেভাগেই প্রস্তুতি নিচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ স্বাস্থ্য বিভাগ। এনিয়ে সোমবার বৈঠক করেন দেশটির স্বাস্থ্যসচিব। সেখানে স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মকর্তারা, সব জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা, সেচ, পঞ্চায়েত এবং পৌর ও নগরোন্নয়ন দপ্তরের কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। ‍সূত্র- আনন্দবাজার। বৈঠকে স্বাস্থ্যসচিব নারায়ণস্বরূপ নিগম নির্দেশ দেন, প্রতিটি জেলার হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ডেঙ্গু পরীক্ষা এবং চিকিৎসার পরিকাঠামো প্রস্তুত রয়েছে কি না, তা দেখেতে। মশাবাহিত ওই রোগ প্রতিরোধে যেসব প্রশিক্ষণ রয়েছে, সেগুলো দ্রুত শুরু করতে। পাশাপাশি, সেচ দপ্তরকে রাজ্যের প্রতিটি খালের দিকে নজর রাখতে। যাতে কোথাও পানির প্রবাহ থমকে না যায়। মশা রোধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে পঞ্চায়েত এবং পৌর ও নগরোন্নয়ন দপ্তরকে। গত জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে ১ লাখ ২৩ হাজার ৭৪০ জনের ডেঙ্গু পরীক্ষা হয়েছে। তাতে ৮১৩ জনের পজিটিভ এসেছে। গত বছর এই সময়ে (১৪ সপ্তাহ) আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১০১৭। পরীক্ষা হয় ১ লাখ ৩০ হাজার ৩৯৯ জনের। আক্রান্তের সংখ্যা দেখে আপাতত স্বস্তি মিললেও এখনই নিশ্চিন্ত হওয়ার মতো পরিস্থিতি আসেনি জানিয়ে স্বাস্থ্যকর্তারা বলেন, এখনই বলা যাচ্ছে না, এ বারে ডেঙ্গুর প্রকোপ কম কি না। জুলাই, আগস্ট, সেপ্টেম্বর- এই তিন মাস খুব গুরুত্বপূর্ণ। যদি বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি বেশি হয়, তা হলে সমস্যা বাড়বে বলে ধারণা করছে তারা। গত বছর পশ্চিমবঙ্গে ১ লাখ ১ হাজার ৭৪ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হন। যা গত ১২ বছরের মধ্যে সর্বাধিক। ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটেও ডেঙ্গুর ওপরে জোর দিয়েছে রাজ্য সরকার।
বাংলাদেশে পণ্য বর্জনের ডাক নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানাল ভারত
‘ভারতীয় পণ্য বর্জনের ডাক’ দিয়ে দেশে গত প্রায় তিন মাস ধরে যে প্রচারণা চলছে, তা নিয়ে নিজেদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ভারত সরকার।  বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) ভারতের রাজধানী দিল্লিতে সাপ্তাহিক ব্রিফিংয়ে এ ব্যাপারে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করেন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রণধীর জয়সওয়াল। তিনি জানান, বাংলাদেশে ভারতীয় পণ্য বর্জনের ডাক দুই দেশের সম্পর্কের গভীরতা নষ্ট করতে পারবে না। দুই দেশের সম্পর্কের ব্যাপ্তি সর্বগামী, এই সম্পর্ক এমনই থাকবে। ব্রিফিংয়ে এক সাংবাদিক তাকে প্রশ্ন করেন, ‘বাংলাদেশে গত বেশ কিছুদিন ধরে তথাকথিত ‘ইন্ডিয়া আউট’ নামে একটি ক্যাম্পেইন চলছে, যাতে মূলত ভারতের পণ্য বয়কট করার ডাক দেওয়া হচ্ছে। সে দেশের উল্লেখযোগ্য কয়েকজন বিরোধীদলীয় নেতাও সেটাতে তাদের সমর্থন জানিয়েছেন। এই আন্দোলন নিয়ে কি আপনি কোনো মন্তব্য করতে চাইবেন? আর দ্বিতীয়ত, এর ফলে বাংলাদেশে ভারতের রপ্তানির পরিমাণে কি কোনো প্রভাব পড়ছে?’ জবাবে রণধীর জয়সওয়াল বলেন, ‘দেখুন, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার সম্পর্ক আসলে খুব শক্তিশালী ও গভীর। আমাদের দুই দেশের মধ্যে আসলে একটি কম্প্রিহেনসিভ পার্টনারশিপ আছে, যা বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিস্তৃত। অর্থনীতি থেকে শুরু করে বাণিজ্য, বিনিয়োগ থেকে শুরু করে উন্নয়ন সহযোগিতা, কানেক্টিভিটি থেকে শুরু করে পিপল-টু-পিপল কনট্যাক্ট–মানবজীবনের যেকোনো ক্ষেত্রে আপনি যেকোনো একটা বিষয়ের নাম নিন, দেখবেন সেটা কিন্তু ভারত-বাংলাদেশের সামগ্রিক সম্পর্কের অংশ। আমাদের দুই দেশের অংশীদারিত্ব ঠিক এতটাই প্রাণবন্ত। আর এই ধারা আগামী দিনেও অব্যাহত থাকবে।’  
ভারতে পুলিশের অভিযানে ১৩ মাওবাদী বিদ্রোহী নিহত
লোকসভা নির্বাচন শুরু হতে বাকি মাত্র কয়েক সপ্তাহ৷ এমন সময়ে ছত্তিশগঢ়ে পুলিশের এক অভিযানে মারা গেছে ১৩জন মাওবাদী বিদ্রোহী৷ ভারতে নির্বাচনের প্রচার এখন তুঙ্গে৷ তার মধ্যেই ছত্তিশগঢ়ে মাওবাদী বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে পুলিশ৷ ১৪ ঘণ্টা ধরে চলে অভিযান৷ এই অভিযানে ১৩ জন নিহত হওয়ায় চলতি বছর পুলিশের অভিযানে মোট ৫০জন মাওবাদী নিহত হলো৷ পুলিশের দাবি, ছত্তিশগঢ়ের বিজাপুর জেলায় মঙ্গলবার নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে বিদ্রোহী গোষ্ঠীর সংঘর্ষ হয়৷ বার্তা সংস্থা এএফপিকে স্থানীয় পুলিশ প্রধান পি সুন্দারা বলেন, নিহত মাওবাদীদের পরিচয় এখনও জানা যায়নি৷ নিহতদের মধ্যে তিনজন নারীও ছিলেন৷ এই অভিযানের পর পুলিশ বেশ কিছু রাইফেল, মেশিন গান, গ্রেনেড লঞ্চার ও গোলাগুলি বাজেয়াপ্ত করে৷ মাওবাদী বিদ্রোহী বা নকশালপন্থিরা দাবি করেন যে, তারা ভারতের প্রান্তিক গরিব মানুষের অধিকারের জন্য লড়েন৷ এই গোষ্ঠীর উত্থান পশ্চিমবঙ্গের নকশালবাড়ি গ্রাম থেকে৷ ১৯৬৭ সালে সেখানেই শুরু হয়েছিল মাওবাদীদের সরকারবিরোধী আন্দোলন৷ সেই থেকে বিভিন্ন বিদ্রোহী গোষ্ঠী নানা ধরনের গেরিলা হামলা চালিয়ে আসছে বলেই ভারত সরকার তাদের নিরাপত্তার ঝুঁকি হিসাবে চিহ্নিত করে৷ ভারত সরকারের মতে, এমন বিদ্রোহীরা ২০২৩ সালে দেশের ৪৫টি জেলায় সক্রিয় ছিল৷ ২০১০ সালে মাওবাদী বিদ্রোহীদের সক্রিয়তা লক্ষণীয় ছিল ৯৬টি জেলায়৷ নির্বাচনকে সামনে রেখে ভারতের পূর্ব, দক্ষিণ ও মধ্য অঞ্চলের মাওবাদী-অধ্যুষিত রেড করিডোর-এ হাজার হাজার সামরিক বাহিনী সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে৷ ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের বিভিন্ন অংশে সব মিলিয়ে সাতটি দফায় ভোট গ্রহণ চলবে ১৯ এপ্রিল থেকে ১ জুন পর্যন্ত৷ 
যোগগুরু রামদেবকে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের কড়া হুঁশিয়ারি
নিজের প্রতিষ্ঠিত আয়ুর্বেদিক পণ্যের সংস্থা পতঞ্জলির বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপন নিয়ে কড়া হুঁশিয়ারি শুনেছেন ভারতীয় যোগগুরু বাবা রামদেব। মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) সেলিব্রিটি এ যোগগুরুকে কঠিন পদক্ষেপের জন্য তৈরি থাকতে বলেন দেশটির সুপ্রিম কোর্ট।  এদিন রামদেবের সঙ্গে আদালতে হাজিরা দেন তার সহযোগী আচার্য বালকৃষ্ণও। এর আগে ভুল বিজ্ঞাপন সংক্রান্ত মামলায় আদালত অবমাননার নোটিশ পাঠানো হয়েছিল রামদেব এবং আচার্য বালকৃষ্ণকে। কিন্তু কোনও জবাব না আসায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। ২ এপ্রিল তাদের দুজনকে হাজিরা দিতেই হবে জানিয়ে কড়া নির্দেশ দেন আদালত। সেই নির্দেশ মেনেই আজ মঙ্গলবার  সুপ্রিম কোর্টে হাজিরা দেন তারা। প্রসঙ্গত, ভুল বিজ্ঞাপন সংক্রান্ত উক্ত মামলায় পতঞ্জলির বিরুদ্ধে ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের অভিযোগ ছিল, অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসা এবং চিকিৎসকদের অপমান করেছে রামদেবের সংস্থা। এছাড়া কোভিড ১৯-এর ভ্যাকসিন নিয়েও এই সংস্থা ভুল প্রচার করেছে বলে অভিযোগ করা হয়।  ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের দাবি, পতঞ্জলির করা দাবিগুলো আদৌ সত্য বলে প্রমাণিত নয় এবং তা ১৯৫৪ সালের ড্রাগস অ্যান্ড আদার ম্যাজিক রেমেডি আইন এবং ২০১৯ সালের উপভোক্তা সুরক্ষা আইনের মতো আইনগুলোকে সরাসরি লঙ্ঘন করে। সঠিক সময়ে ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় পুরো বিষয়টি নিয়ে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারেরও সমালোচনা করেন সুপ্রিম কোর্ট।   
ভারতে মিলল অদ্ভুত গাছ!
ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের আলুরি সীতারামা রাজু জেলার পাপিকোন্ডা ন্যাশনাল পার্কে বন কর্মকর্তারা ইন্ডিয়ান লরেন্স নামের একটি গাছের ছাল কেটে ফেলেন, তখন সেখান থেকে ফিনকি দিয়ে পানি বের হতে থাকে। এই গাছটিকে ইন্ডিয়ান লরেল ট্রি বলা হয়, যেটি গ্রীষ্মকালে নিজের ভিতরে পানি জমা করে রাখে। বৌদ্ধ ধর্মের লোকেরা গাছটিকে ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে দেখে। বিশেষ করে গোদাবরী অঞ্চলের পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারী উপজাতি গোষ্ঠী কোন্ডা রেড্ডি সম্প্রদায় এই গাছ সম্পর্কে তথ্য দিয়েছিল। তারা শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে এর বাকল কেটে তৃষ্ণা মেটাচ্ছে।  শনিবার (৩০ মার্চ) একটি ভিডিও সামনে এসেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে ছাল কাটার সঙ্গে সঙ্গে তা থেকে পানি বেরোতে শুরু করেছে। ওই সময় বিভাগীয় বন কর্মকর্তা জি জি নরেন্দ্রন বন বিভাগের দলের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন।  বিভাগীয় বন কর্মকর্তা নরেন্দ্রন বলেন, ‘যখন আমরা জাতীয় উদ্যানে ভারতীয় লরেল গাছের ছাল কেটে ফেলি, তখন সেখান থেকে পানি বেরিয়ে আসে। কোন্ডা রেড্ডি উপজাতি গাছটি সম্পর্কে তাদের আদিবাসী জ্ঞান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে শেয়ার করেছিল। গ্রীষ্মকালে, ভারতীয় লরেল গাছে পানি জমে যা তীব্র গন্ধযুক্ত এবং টক স্বাদযুক্ত। ভারতীয় বনের গাছগুলোতে একটি আশ্চর্যজনক অভিযোজন দেখা গেছে।’ উল্লেখ্য, ভারতীয় লরেলের কাঠ সিলভার ওক নামেও পরিচিত। এর উচ্চ বাণিজ্যিক মূল্য রয়েছে। যে কারণে বন কর্মকর্তারা এসব গাছের প্রজাতি সংরক্ষণের ব্যবস্থা হিসেবে গাছগুলোর সঠিক অবস্থান প্রকাশ করেননি। সহজ ভাষায় একে কুমিরের ছাল গাছও বলা হয়। এই গাছের উচ্চতা প্রায় ৩০ ফুট লম্বা হতে পারে এবং এটি বেশির ভাগ শুষ্ক ও আর্দ্র বনাঞ্চলে পাওয়া যায়। এই গাছের সবচেয়ে বিশেষ বিষয় হলো এর কাণ্ড পানিতে ভরা, যেখানে অন্যান্য গাছের তুলনায় এর কাণ্ড ফায়ার প্রুফ। এই গাছের অনন্য বৈশিষ্ট্যের কারণে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের লোকেরা একে বোধিবৃক্ষ নামেও ডাকে। তারা বিশ্বাস করে যে, এই গাছের নিচে তপস্যা করার সময় বোধিসত্ত্ব জ্ঞান লাভ করেছিলেন। 
কেজরিওয়ালকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত কারাগারে রাখার নির্দেশ
ভারতে আবগারি নীতি কেলেঙ্কারির মামলায় গ্রেপ্তার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত কারাগারে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। সোমবার (১ এপ্রিল) কেজরিওয়ালের উপস্থিতিতে শুনানি শেষে এ রায় দেন দিল্লির রোজ এভিনিউ আদালত।  এর আগে আবগারি দুর্নীতি মামলায় গত ২১ মার্চ ভারতের অর্থনৈতিক গোয়েন্দা সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টোরেটের (ইডি) হাতে গ্রেপ্তার হন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী। তার আগে অবশ্য তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৯ বার তলব করেছিল ইডি। কিন্তু কোনোবারই সাড়া দেননি তিনি। অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে অভিযোগ, ২০২১ সালে দক্ষিণ ভারতের একটি মদ প্রস্তুতকারী কোম্পানির সঙ্গে গোপন চুক্তি করেছিলেন কেজরিওয়ালের নেতৃত্বাধীন আম আদমি পার্টি সরকারের উপমুখ্যমন্ত্রী মনীষ সিসোদিয়া এবং দলটির কেন্দ্রীয় নেতা সঞ্জয় সিং। চুক্তির শর্ত অনুযায়ী, দিল্লিতে ওই কোম্পানির ব্যবসার সুবিধার জন্য সরকারি মদবিক্রয় নীতিতে পরিবর্তন আনবে দিল্লির রাজ্য সরকার এবং তার বিনিময়ে ১০০ কোটি রুপি ঘুষ দেবে ওই কোম্পানি। এ অভিযোগে গত বছর মনীষ সিসোদিয়া এবং সঞ্জয় সিংকে গ্রেপ্তার করে ইডি। পরে জিজ্ঞাসাবাদকালে তাদের বয়ানে উঠে আসে মুখ্যমন্ত্রী  কেজরিওয়ালের নাম। আম আদমি পার্টির (এএপি) অভিযোগ, কেজরিওয়ালকে যে মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে, সেটি সাজানো এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। তবে ইডির অভিযোগ, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী তদন্তে সহযোগিতা করছেন না এবং জিজ্ঞাসাবাদের সময় অধিকাংশ প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে যাচ্ছেন তিনি।  এদিকে সোমবার রায়ের পর আদালত থেকে বের হওয়ার সময় সাংবাদিকদের সামনে নিজের এ অবস্থার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে সরাসরি দায়ী করেছেন কেজরিওয়াল। তিনি বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যা করছেন, তা দেশের জন্য মঙ্গল বয়ে আনবে না।’ প্রসঙ্গত, ভারতের ইতিহাসে অরবিন্দ কেজরিওয়ালই প্রথম মুখ্যমন্ত্রী, যাকে পদে থাকা অবস্থায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আম আদমি পার্টি জানিয়েছে, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী পদে কেজরিওয়ালই থাকবেন এবং কারাগার থেকে তিনি সরকার পরিচালনা করবেন।