Mir cement
logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮
discover

মাফিয়ার সঙ্গে সুবাহ নিজেই জড়িত : ইলিয়াস

মাফিয়ার সঙ্গে সুবাহ নিজেই জড়িত : ইলিয়াস
ছবি : সংগৃহীত

বিয়ে, প্রকাশ্যে কাদা-ছোড়াছুড়ি করে আলোচনায় এসেছেন সংগীতশিল্পী ইলিয়াস হোসাইন ও মডেল-অভিনেত্রী সুবাহ শাহ হুমায়রা। গত বছরের ১ ডিসেম্বর তারা ঘরোয়া আয়োজনে বিয়ে করেছিলেন। এর কয়েকদিন পর সেটা প্রকাশ্যে আনেন।

তবে পরক্ষণে তারা দু’জনেই হয়ে ওঠেন একে-অপরের প্রতিপক্ষ। ইলিয়াস অভিযোগ তোলেন, সুবাহ তাকে ফাঁদে ফেলে বিয়ে করেছেন। এমনকি বিয়ের পর তার গায়ে নাকি হাতও তুলেছেন। অন্যদিকে সুবাহর অভিযোগ, ইলিয়াস তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করেছেন। এসব তথ্য তারা দুজনই সংবাদ সম্মেলনে দিয়েছেন।

এসব অভিযোগ, পাল্টা অভিযোগের মধ্যেই সুবাহর বাসা থেকে চলে যান ইলিয়াস। থানায় গিয়ে জিডি করেন। অন্যদিকে থানায় গিয়ে ইলিয়াসের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন সুবাহ। ৩ জানুয়ারি মামলাটি দায়েরের পর আদালত আগামী ১৯ জানুয়ারি প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে মামলা চলমান অবস্থায় দুবাই উড়াল দিয়েছেন ইলিয়াস। সেখানে গিয়ে একাধিক পোস্ট দিতেও দেখা গেছে গায়ককে। সম্প্রতি এ প্রসঙ্গে অনলাইনের মাধ্যমে দুবাই থেকে কথা বলেন আরটিভি নিউজের সঙ্গে। লিখেছেন কুদরত উল্লাহ।

আরটিভি : সম্প্রতি দুবাই থেকে বেশ কিছু পোস্ট করেছেন আপনি। আসলেই কি আপনি দুবাইয়ে?

ইলিয়াস : জ্বি, আমি এখন দুবাই থেকে বলছি।

আরটিভি : কী কারণে আপনি হঠাৎ দুবাই গেলেন?

ইলিয়াস : ব্যক্তিগত কিছু কাজ আছে আমার। এজন্যই দুবাইয়ে এসেছি, এর বাইরে কিছু নয়।

আরটিভি : সুবাহ তো আপনার নামে মামলা করেছে, এ বিষয়ে আপনি কী বলবেন?

ইলিয়াস : মিথ্যা বেশি দিন টেকে না, তার করা মামলাটি পুরোপুরি মিথ্যা, সাজানো এবং ভিত্তিহীন, মামলার এজাহারটি পড়লে যে কেউ বুঝবে; এটি যে আমাকে মিথ্যা হয়রানি করার জন্যই করা। সুতরাং এই মিথ্যাও বেশি দিন টিকবে না। মাসখানেক পর দেশে ফিরলে আমিও অবশ্যই আইনি লড়াই করবো। a liar can never win. তার একমাত্র হাতিয়ার মিথ্যা কথা বলে কান্নার অভিনয় করা।

আরটিভি : আপনার বিরুদ্ধে যে সুবাহ’র এতো অভিযোগ এর শুরুটা কীভাবে হয়েছে?

ইলিয়াস : দেখুন এখন বিষয়টা পুরোপুরি স্পষ্ট। এটা তার ব্যবসা, মানুষকে ফাঁসানো। তার দ্বারা কারও সাথে সংসার সম্ভব না; কারণ সে বহু পুরুষে আসক্ত। বিশ্বাস নাহলে তার টেস্ট করা হোক। চ্যালেঞ্জ দিলাম ২০-৩০ জন পুরুষের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাবে। সে আলোচনায় থাকতে চায়, যেকোনো মূল্যে সেটার জন্য যত নিচে নামার দরকার সে নামবে তাতে তার ন্যূনতম লজ্জা কাজ করবে না। আগেই বললাম মিথ্যা কান্নার অভিনয়টাই তার মূল অস্ত্র। শ্রেষ্ঠ মিথ্যা কান্নার জন্য অ্যাওয়ার্ড থাকলে নিঃসন্দেহে সে পেত। তার বাসায় বহু পুরুষের আনাগোনা। যতই অভিনয় করুক মিথ্যার চেয়ে সত্যি অনেক শক্তিশালী।

আরটিভি : আপনি বিভিন্ন সময় গাড়ি নিয়ে তার বাসায় যেতেন, এমনকি আপনি রাজনৈতিক কারণেও তাকে ব্যবহার করেছেন বলে জানান সুবাহ। এ বিষয়ে কিছু বলবেন?

ইলিয়াস : হা হা হা পুরোপুরি ভিত্তিহীন কথাবার্তা। সে কে? যে তাকে রাজনৈতিক কারণে ব্যবহার করবো। এসব মেয়েদের কাজই হলো মানুষকে ফাঁসিয়ে ফায়দা নেওয়া, আর যখন সে ফায়দা না নিতে পারে তখন তার ক্ষতি করে। আমাকে সে বলেছিল ঠিক এরকম করেই নাসিরের কাছ থেকে বনশ্রীতে একটি ফ্ল্যাট বাগিয়ে নিয়েছিল, পরবর্তীতে সেটি বিক্রি করে দেয় যাতে নাসির আর না নিতে পারে। তাকে নিয়ে কথা বলতেও আমার রুচিতে বাধে। মন থেকে ঘৃণা আসছে এই ভেবে যে, এমন মেয়ে নামক ডাইনির সাজানো ফাঁদে আমি পা দিয়েছিলাম। তার যদি অতীত ঘেটে দেখা হয় তাতেই তো বোঝা যায় এটি তার ব্যবসা।

আরটিভি : আপনি মাফিয়ার সঙ্গে জড়িত বলে মন্তব্য করেছেন সুবাহ। আসলে ঘটনাটা কী?

ইলিয়াস : মাফিয়ার সঙ্গে আমি না সুবাহ নিজেই জড়িত। তার ফোনালাপ মনিটর করলেই বোঝা যাবে। আমারটিও মনিটরিং করা হোক অসুবিধা নেই। একজন মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তি যা বলবে তাই যদি ঠিক হয়ে যায় সবার কাছে তাহলে হাস্যকর। তার ব্যবসায় হলো ৫০-৬৫ বছর বয়সী ব্যবসায়ীদের সাথে দৈহিক সম্পর্ক করা তাদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা নেওয়া এবং তাদের ক্ষমতা ব্যবহার করা, আরেকটি কথা আমি প্রায়ই তাকে ফোনে বলতে শুনেছি যারাই বিদেশ থেকে দেশে ফিরুক তাদের কাছে দামি দামি গিফটও নেওয়া তার কাজ। মূল বিষয় যেটি সেটি হলো যার আত্মসম্মানবোধই নেই তার দ্বারা সব সম্ভব। আপনি নিজে বুঝুন সে ২৪ ঘণ্টা রেকর্ডিং অন রাখতো স্বামী-স্ত্রীর ব্যক্তিগত কথা বার্তায়ও।

তাহলে এখানেই তো বোঝা যাচ্ছে সে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আমাকে ফাঁসাচ্ছে। হয়তো কারও কাছ থেকে মোটা অঙ্কের অর্থ নিয়েছে আমার সম্মানহানির জন্য।

কেইউ/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS