logo
  • ঢাকা বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

পুরুষ হয়রানি-পর্ব ২

ধর্ষণচেষ্টা মামলার নেপথ্যে মোটা অংকের বাণিজ্য

|  ১১ নভেম্বর ২০২০, ২২:৩৫ | আপডেট : ১২ নভেম্বর ২০২০, ০৮:৩৬
ধর্ষণচেষ্টা মামলার নেপথ্যে মোটা অংকের বাণিজ্য
সম্প্রতি এক আশ্চর্য রকম ঘটনা ঘটে রাজধানীর রমনা থানার সামনেই। পুলিশের সঙ্গে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে সড়কে শুয়ে পড়েন এক নারী। কিছুক্ষণ পর গড়াগড়ি করতে থাকেন তিনি। আবার কিছুক্ষণ শুয়ে অচেতন হওয়ার ভানও করেন। এরপর আবার উঠে হাঁটাহাঁটি করেন। আবার কিছু সময় পর বসে হাউমাউ করে কান্নাকাটি করেন। দাবি তার একটাই- ধর্ষণচেষ্টা বা শ্লীলতাহানি মামলার বিপরীতে তাকে অভিযুক্ত যুবকের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা আদায় করে দিতে হবে খোদ পুলিশকেই!

গত ১ নভেম্বর রাতে রাজধানীর রমনা মডেল থানা ফটকের বাইরে এমন অস্বাভাবিক দৃশ্যের দেখা মিলে। ওইদিন সড়কে সেই নারীর এমন অস্বাভাবিক আচরণে ভিড় জমে যায় আশপাশে। সঙ্গে সঙ্গে তাকে নিরাপত্তা দিতে ঘিরে ফেললেন ৪ নারী পুলিশ সদস্য।

রমনা থানায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নিজেকে মডেল ও অভিনেত্রী পরিচয় দেয়া ওই নারী সিদ্ধেশ্বরী এলাকার মৌচাক মার্কেটের পাশে থাকা এক যুবকের বিরুদ্ধে ‘ধর্ষণ চেষ্টা চালিয়ে শ্লীলতাহানির’ মামলা দায়ের করেন। মামলাটি ৯ (৪) ধারায় দায়ের করা হয়।

মামলার অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, ওই যুবক নানা প্রলোভন দেখিয়ে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ!
ওই নারীর এমন অভিযোগের ভিত্তিতে ছেলেটিকে গ্রেপ্তার করে দুপুরে রমনা থানায় আনার পর উপস্থিত হন সেই নারী। এর পরপরই বিভিন্ন রকমের নাটকীয় ঘটনার জন্ম দিয়ে যাচ্ছিলেন ওই নারী। অভিযুক্ত যুবকের কাছ থেকে টাকা আদায় করে দিতে পুলিশের কাছে নিজ চাহিদার কথা জানান তিনি। তবে পুলিশ ওই নারীকে সাফ জানিয়ে দেয়, মামলা হয়েছে, আসামিও ধরা পড়েছে। পরবর্তী কার্যক্রম আদালতেই হবে।

প্রথম দিকে কথার মাধ্যমে পুলিশকে বাগে আনতে চেষ্টা চালান।  শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়ে পুলিশকে গালিগালাজ করা, সড়কে শুয়ে পড়া, কান্নাকাটি করা, অচেতন হওয়া ভান ধরাসহ বিভিন্ন অস্বাভাবিক আচরণ ঘটিয়ে চলছিলেন তিনি। 

ওই নারীর দাবি, মামলায় অভিযুক্ত যুবকটিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে চালান দেয়া যাবে না। বরং যেভাবেই হোক মোটা অংকের টাকা আদায় করে যুবকটিকে যেন থানা থেকেই ছেড়ে দেয়া হয়। আর এই কাজটি করতে হবে পুলিশকেই!

এক পর্যায়ে পুলিশ তার এমন অনৈতিক আবদারে সাড়া না দেয়ায় অকথ্য ভাষায় গালমন্দের পাশাপাশি পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। ওই নারীর নানামুখী নাটকীয়তায় বেকায়দায় পড়ে যায় পুলিশ। পরে নিজ জিম্মায় আসামিকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান সেই নারী। 

এ ঘটনার বিষয়ে রমনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুল ইসলাম বলেন, এক নারীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে আমরা মামলাটি নিয়েছিলাম। কারণ বিধান রয়েছে- ধর্ষণ, শ্লীলতাহানি বা নারী নির্যাতন সংক্রান্ত মামলায় গড়িমসি করা যাবে না। যে কারণে পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে আইনের গুরুত্ব বুঝে আমরা মামলাটি দ্রুত রুজু করে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসি।

এরপরই অভিযুক্তকে থানায় আনার পর ওই নারী এসে অস্বাভাবিক আবদার করে বসেন, তারই দায়ের করা মামলায় অভিযুক্তকে ছেড়ে দিতে হবে! অথচ তিনিই মামলা দায়ের করেছিলেন। তবে মোটা অংকের টাকা আদায় করে অভিযুক্তকে ছেড়ে দিতে হবে, অন্যথায় নয়। শেষ পর্যন্ত দিন গড়িয়ে রাত ১টার দিকে নিজ জিম্মায় ওই আসামিকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান সেই নারী নিজেই।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, নানা প্রলোভনে ওই তরুণীকে ২০১২ সাল থেকে শ্লীলতাহানি করে আসছিলেন ওই যুবক। এ বছরও একবার শ্লীলতাহানি করেছেন বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়।
তবে এই দীর্ঘ ৮ বছর কেন তিনি শ্লীলতাহানির মামলা করেননি? এ বিষয়ে পুলিশকে কোনও সদুত্তর দিতে পারেননি ওই নারী।

১১ নভেম্বর (বুধবার) মামলাটির বিষয়ে সর্বশেষ খবর নিয়ে জানা গেছে, ওই যুবক এখনও সেই নারীর জিম্মায় রয়েছেন। এই ঘটনার বিষয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করছে বিভিন্ন মহল। মোটা অংকের টাকা আদায়ের জন্য যে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে, সেই মামলার অভিযোগ কতোটা সত্য, তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। এ ঘটনার গভীরের তত্ত্ব খুঁজে বেড়াচ্ছে পুলিশ। ওই নারীর জিম্মায় কতোটা নিরাপদ রয়েছেন অভিযুক্ত তরুণ, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান আরটিভি নিউজকে বলেন, কিছু অসাধু লোভী শ্রেণির নারী অহেতুক হয়রানি করতে বা মোটা অংকের টাকা আদায়ের জন্য নারী নির্যাতন দমন আইনের মতো স্পর্শকাতর ধারাগুলোর অপব্যবহার করে চলছেন। যখন একের পর এক মিথ্যা মামলা দায়ের হচ্ছে, তখন প্রকৃত ধর্ষণ বা শ্লীলতাহানির ঘটনা ধামাচাপা পড়ে যাচ্ছে। যার ফলে প্রকৃত ভুক্তভোগীদের বিচার পেতে দীর্ঘ সময় লেগে যাচ্ছে। এক পর্যায়ে ধর্ষণের প্রকৃত ভিকটিমরা হতাশ হয়ে যান। তাই এই বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়ে সংশ্লিষ্টদের ভাবতে হবে বলে আমি মনে করি।

কেএফ/এমকে/এসএস

RTVPLUS
bangal
corona
দেশ আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ৪৫১৯৯০ ৩৬৬৮৭৭ ৬৪৪৮
বিশ্ব ৬০৩২৫২৬৯ ৪১৭২৯৫৩৩ ১৪১৮৯৯২
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • বিশেষ প্রতিবেদন এর সর্বশেষ
  • বিশেষ প্রতিবেদন এর পাঠক প্রিয়