logo
  • ঢাকা বুধবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২১, ১৩ মাঘ ১৪২৭

আরটিভি নিউজ

  ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯:০৬
আপডেট : ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯:২৫

সাফল্য পেতে আরও অর্থ চান সালাউদ্দিন

bangladesh football federation, kazi salahuddin, ‍jamal bhuyan, rtv online,  rtv online
কাজী মো. সালাউদ্দিন
কাতারের বিপক্ষে বড় ব্যবধানে হারতে হয়েছে বাংলাদেশকে। দোহায় সফরকারীদের হজম করতে হয়েছে পাঁচটি গোল। বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের একমাত্র ম্যাচটি খেলে শনিবার রাত দুইটায় দেশে ফিরছে জামাল ভূঁইয়ার দল। তার আগে বিকেলে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) সভাপতি কাজী মো. সালাউদ্দিন।

করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত হওয়ার পর প্রথমবারের মতো অফিস করেছেন দেশের ফুটবলের সর্বোচ্চ কর্তা। তার দাবি অর্থায়ন বেশি হলে জাতীয় দল আরও ভালো পারফর্ম করতে পারবে। 

কাতার-বাংলাদেশের মূল ব্যবধান তুলে ধরে সালাউদ্দিন বিনিয়োগেও উপর জোর দেন।

‘সবাই জানি কাতার এশিয়ার এক নম্বর দল। আরব আমিরাত, সৌদি আরব, জর্ডান ও জাপানকে হারিয়ে এশিয়ান কাপে চ্যাম্পিয়ন হয়। আমি তখন মাঠে ছিলাম। খেলা শেষ বাসে যখন ফিরছিলাম তখন আমার সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান ফুটবলের প্রেসিডেন্ট ছিলেন। তাদের বললাম এ কী হলো! তারা বলেছে, এটা কাতার দল না। দলটি বিদেশিদের নিয়ে তৈরি হয়েছে। তারা ফুটবলে নিজেদের সবটুকু ধ্যান দিয়েছে। গেল আড়াই বছরে ১.৭ মিলিয়ন ডলার (বাংলাদেশি টাকায় ১৪ কোটি ৪১ লাখ ৪৫ হাজারের বেশি) খরচ করেছে।’

করোনা পরবর্তী ফুটবলে নেপালের বিরুদ্ধে মাঠে নামে বাংলাদেশ। এরপর তাড়াহুড়া করে কাতার সফর করতে হয়েছিল জেমি ডে’র শিষ্যদের। অন্যদিকে তুরস্কের মাঠে ঘানা ও অস্ট্রিয়া সফর করে দক্ষিণ কোরিয়া, কোস্টারিকার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ খেলে আসে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি।

কাজী সালাউদ্দিন বলেন, ‘সম্প্রতি তারা দক্ষিণ কোরিয়া, কোস্টারিকা ও ঘানার বিপক্ষে খেলেছে। আমরা এত আপদ-বিপদের মধ্যেও ফুটবল ফিরিয়েছে। গোলটা কম হলে ভালো হতো। আমরা শুরু করেছি। আমাদের আরও তিনটি ম্যাচ রয়েছে ভারত, আফগানিস্তান ও ওমানের বিপক্ষে। সকালে ন্যাশনাল টিমস কমিটির চেয়ারম্যানের (কাজী নাবিল আহমেদ) সঙ্গে আলাপ করেছি। কেমন পরিকল্পনা হবে। আমরা ক্লাবগুলোর কাছে সহযোগিতা চাবো। যাতে ১০ দিনের বদলে এক মাস অনুশীলন করতে পারি।’ 

আগামী বছর আবারও ‘ই’ গ্রুপে ২০২২ বিশ্বকাপ ও ২০২৩ এশিয়ান কাপের বাছাই খেলতে হবে। তার আগে শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বীর বিপক্ষে দলকে মাঠে নামাতে চান ফেডারেশন প্রধান।

‘আমার ইচ্ছা থাইল্যান্ড-মালয়েশিয়ার মতো সুপেরিয়র দলের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলা। যাতে ভারত-আফগানিস্তানের বিপক্ষে খেলতে নামলে কাতারের মতো প্রস্তুত হয়ে নামতে পারি। আমি ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের কাছে যাবো। সরকারতো তাদের হাজার হাজার কোটি টাকা দেয়। তবে আমি ১২ বছরে প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ করে গেল বছর ২০ কোটি টাকা বরাদ্দ পেয়েছি। আমাদেরও প্রতি বছর ৪০-৬০ কোটি টাকা দরকার। যদি ফুটবলকে একটা জায়গায় দেখতে চান। আমরা ৪০ হাজার কোটি টাকা চাইবো না। এই টাকাটা দরকার হবে যদি জাতীয় দলকে তৈরি করতে চান। এটার প্রথমধাপ হচ্ছে প্রস্তুতির তিনটা ম্যাচ খেলতে ছয় কোটি টাকার মতো লাগবে। আমরা এই টাকা পেলে ছেলেরা মুখ উজ্জ্বল করতে পারবে। ১৫-২০ দিনে তারা যা খেলেছে ভালোই খেলেছে। আমি-আপনি কেউই খুশি না। তবে সবার সমর্থন পেলে আমার বিশ্বাস এই দলটাই ভালো করবে।’ 

ওয়াই/পি

RTV Drama
RTVPLUS