Mir cement
logo
  • ঢাকা সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

অনলাইনে ব্যবসা বাড়ছে সঙ্গে প্রতারণাও (ভিডিও)

দেশে ই-কমার্সের ব্যাপ্তি বড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে প্রতারণাও। গবেষণা বলছে, করোনাকালে অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারণার শিকার হয়েছেন সাড়ে ১১ শতাংশ মানুষ। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর জানিয়েছে, তাদের কাছে আসা অভিযোগের বেশিরভাগই অনলাইন প্রতারণার শিকার।

দমকা বাতাসের মতো বাজারে এসে গ্রাহকের কাছ থেকে অর্থ তুলে ঝড়ের গতিতে মিলিয়ে যাওয়ার মতো কাণ্ড ঘটিয়েছে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ধামাকা। প্রায় অর্ধেকেরও কম দামে পণ্য দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে গ্রাহকের কাছ থেকে সাড়ে তিনশো কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার পাশাপাশি পাঁচারের অভিযোগ উঠেছে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে।

গ্রাহককে পণ্য না দিয়ে রাজধানীর মহাখালির অফিস বন্ধ রেখেছে বেসামাল ধামাকা।

ভুক্তভোগীরা জানান, ধামাকা একটা অফার দিয়ে ছিল ৫০% ছাড়ের। কম দামে পাচ্ছি একারণে আমি তাদের কাছে অর্ডার করেছিলাম। আমি অভিযোগ কার কাছে দিবো সেটাও বুঝতেছি না।

লোকচক্ষুর অন্তরালে থেকে ফেসবুক লাইভে এসে বারবার প্রতিশ্রুতি দিয়ে যাচ্ছেন ধামাকার ব্যবস্থাপনা পরিচালক জসিম উদ্দিন চিশতি। ভুক্তভোগীদের দাবি এটিও নতুন প্রতারণার ফন্দি।

গবেষণা সংস্থা সিসিএ ফাউন্ডেশনের তথ্য বলছে, কোভিড অতিমারীর মধ্যে অনলাইনে পণ্য অর্ডার দিয়ে প্রতারণার শিকার হয়েছেন সাড়ে ১১ শতাংশ মানুষ। যা আগের বছরের তুলনায় চার শতাংশ বেশি।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহা বলেন, আজ যে ভদ্রলোক অভিযোগ করলো আগামী কাল তাকে নিষ্পত্তি দিতে পারবো না। দিতে পারবো না এই কারণে তার আগেও হয়তো একহাজার অভিযোগ অপেক্ষায় আছে। আমার তো সিরিয়ালী আসতে হবে। কারণ আমারও তো একটা সক্ষমতার বিষয় আছে। তবে তার পরেও আমরা চেষ্টা করি দ্রুততার সাথে সমাধানের। যাতে করে ভোক্তা আবেদনে সারা পায়।

বেসিসের সভাপতি আলমাস কবির বলেন, যেসব প্রতিষ্ঠান গ্রাহককে পণ্য দিতে পারছে না সেখানে প্রশাসক বসানো জরুরি।

ই-কমার্স ব্যবসার নামে অর্থ নয়-ছয় করলে ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাফিজুর রহমান বলেন, অনলাইন প্লাটফর্মকে প্রতারণামুক্ত করতে আইন প্রণয়ন করা হচ্ছে।

এসজে/এসএস

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS