logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ২০ ফাল্গুন ১৪২৭

রাজধানীতে মদের হোম সার্ভিস! (ভিডিও)

একটি ফোন। আর কিছু ক্ষণের মধ্যেই নির্ধারিত জায়গায় পৌঁছে যাবে মদ। খোদ রাজধানীতে মিলছে মদের এমন হোম সার্ভিস। এসব মদ খেয়েই এশিয়াটিকের ৩ কর্মকর্তা মারা যায় গত জানুয়ারি মাসে। পুলিশ বলছে, গেল দেড় মাসে শুধু ভেজাল মদ পানেই মারা গেছেন ২৯ জন। দেশে সরবরাহ না থাকায় একটি চক্র এই সুযোগটাকে কাজে লাগাচ্ছে।

করোনার কারণে দেশে মদ আমদানি কম। সেই সুযোগে দেশের বিভিন্ন এলাকায়, রেক্টিফাইড স্প্রিরিট, এসিড আর রঙ মিশিয়ে এভাবে তৈরি হয় মদ। সেটিও আবার রিফিল হয় নামি দামি বিদেশি ব্র্যান্ডের বোতলে। আর এসব মদ একটি ফোন কলেই পৌঁছে যাচ্ছে ক্রেতার বাসায়।

এমনই এক দৃশ্য দেখা যায় বনানী এলাকার সিসি ক্যামেরার ফুটেজে। মোটরসাইকেল নিয়ে একটি বাসার সামনে থামলেন দুজন ব্যক্তি। এসময় সবুজ শার্ট পড়া এক ব্যক্তি এগিয়ে গিয়ে তাদের কাছ থেকে একটি পার্সেল নিয়ে আবার ভেতরে প্রবেশ করলেন। গোয়েন্দা পুলিশের তথ্য অনুযায়ী তিনি ছিলেন এশিয়াটিকের এক কর্মকর্তা।

শুধু রাজধানী নয় এমন মদ পানে গাজীপুরসহ সারাদেশে গেল দেড় মাসে ২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর যারা জীবিত আছেন তাদের অনেকের অবস্থা এখনো আশংকাজনক।

অন্যদিকে যারা ভেজাল মদ তৈরি করছেন বা হোম সার্ভিসের মাধ্যমে বিষাক্ত মদ সরবরাহ করছে তাদের ধরতে অভিযান চালাচ্ছে গোয়েন্দা পুলিশ।

এই বিষয়ে গুলশান গোয়েন্দা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মশিউর রহমান বলেন, ভেজাল মদ হোক বা খাটি মদ হোক। এসব খেলে কোনও প্রকার উপকার নেই। এসবের জন্য কিডনির সমস্যা দেখা দেয়। এ বিষয়ে জনগণকে আরও সচেতন হতে হবে।

জিএম/এসএস

RTV Drama
RTVPLUS