logo
  • ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

জাহিদ রহমান

  ২২ নভেম্বর ২০২০, ০৯:৫০
আপডেট : ২২ নভেম্বর ২০২০, ১২:৩১

দর্শনীয় স্থানগুলো এখন টিকটক-লাইকি নির্মাতাদের দখলে (ভিডিও)

টিকটক লাইকির মতো ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ ব্যবহারে অশ্লীলতায় জড়াচ্ছে তরুণ প্রজন্ম। সস্তা জনপ্রিয়তার লোভে বুঝে না বুঝে অনেকেই অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ ভিডিও তৈরি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করছেন। মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এতে অল্প বয়সেই অপরাধপ্রবণ হয়ে উঠতে পারে তরুণ-তরুণীরা। 

সিনেমা বা নাটকের কোনও দৃশ্যের চিত্রায়ন নয়। রাজধানীর দিয়াবাড়িতে টিকটকের ভিডিও বানানোর দৃশ্যের দেখা মিলে প্রতিদিন। টিকটক-লাইকির মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জন্য ভিডিও ধারণ করতে এখানে আসে বহু তরুণ-তরুণী। নিরিবিলি আর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্যই এই জায়গা বেছে নেয় তারা। 

জনপ্রিয় হতে স্কুল পড়ুয়া ছেলে মেয়েরা দল বেঁধে এসব দৃশ্য ধারণে ব্যস্ত। উৎসবে বন্ধু-বান্ধবদের জন্যও তৈরি করা হয় নানা ধরনের ভিডিও। তবে আরটিভির ক্যামেরা দেখেই শুরু হয় লুকোচুরি। প্রশ্ন জাগে ভালো কাজ কেন লুকিয়ে করতে হবে? 

টিকটক যারা বানান তারা বলেন, জন্মদিন পালন করতে এখানে এসেছি। আমরা ভিডিও বানাই না। শুধু দিয়াবাড়ি নয়, রাজধানীর হাতিরঝিল, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান চন্দ্রিমা উদ্যানসহ দর্শনীয় স্থানগুলো এখন টিকটক-লাইকি নির্মাতাদের দখলে।
আউটডোরের মতো ইনডোর নানা ভিডিও আপলোড করা হয় এসব সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে। এর অনেকগুলোই অশ্লীলতার অভিযোগে অভিযুক্ত। 

মনোরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে সস্তা জনপ্রিয়তার মোহে এমন কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে না বুঝেই অপরাধপ্রবণ হয়ে উঠতে পারে উঠতি বয়সী ছেলে-মেয়েরা। 

বিএসএমএমইউ এর মনোরোগ চিকিৎসক ডা. এস এম আতিকুর রহমান বলেন, তাদের ছেলে বন্ধু আছে এবং ছেলে বন্ধু কী সেই বিষয়েও তারা জানে না। এভাবে তারা গ্রুপ বন্ধু তৈরি করছে। নতুন প্রজন্মের বড় অংশ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, যা আমরা ধরতে পারছি না, পোশাক থেকে সকল ক্ষেত্রে এমনটি হচ্ছে।  

সন্তানরা অনলাইনে কি করছে কাদের সাথে মিশছে এসব ব্যাপারে অভিভাবক ও শিক্ষকদের আরও মনোযোগী হওয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

জিএম/এমকে  

RTVPLUS