logo
  • ঢাকা রবিবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২০, ১৩ মাঘ ১৪২৭

ন্যাড়া মাথা নিয়ে ভক্তদের কৌতূহল মেটালেন আসিফ আকবর

বিনোদন ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১১ জানুয়ারি ২০২০, ১৭:২১
আসিফ আকবর
ফেসবুক থেকে নেয়া
বাংলা গানের যুবরাজ খ্যাত আসিফ আকবর। চলতি বছর রেকর্ড পরিমাণ গান গাইবার ঘোষণা দিয়েছেন। নতুন গানের রেকর্ডিং-এ মনোযোগ দেবেন তিনি। এদিকে হঠাৎ সোশ্যাল মিডিয়াতে একটি ছবিতে গায়ককে ন্যাড়া মাথায় দেখা যায়। এ নিয়ে ভক্তদের মনে নানা কৌতূহল তৈরি হয়। এবার সব জল্পনার জবাব নিজের ফেসবুকে অফিশিয়াল ফ্যানপেজে জানালেন আসিফ আকবর। গায়কের দীর্ঘ ফেসবুক স্ট্যাটাস পাঠকদের জন্য নিচে তুলে ধরা হলো।  

অনেকদিন নিজের মাথা দেখি না তাই চুল ফেলে দিলাম। মাথার ভেতরে গিজগিজ করা আইডিয়া আর উত্তেজনা মাথার উপর কি প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে সেটাও দেখা দরকার। আমি সবসময় বলতাম শীত আসলে মানুষের পাগলামী বাড়ে- তাহলে আমার ক্ষেত্রেও কি তাই হলো? নাহ ওরকম কিছু হয়নি কারণ পাগল নিজেকে সবসময় সুস্থ্ মনে করে। আমার হেয়ার ড্রেসার জীবন গতকাল খুব আপসেট হয়ে চুলের শেষকৃত্য করেছে। ও ভেবেছিল আমি তাকে নতুন হেয়ার কাটের জন্য ডেকেছি। শীতের সময় চুল কাটানো এক ধরনের অসামঞ্জস্যপূর্ণ কাজ, তবু করতে হয়েছে। নিজের বছরব্যাপী প্ল্যানটাকে সঠিকভাবে বাস্তবায়নের জন্য এটা ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না।

গত তিন বছরে মিউজিক ভিডিওর কারণে আমার জীবনযাত্রা ছিল রীতিমতো দূর্বিষহ। ঘুম খাওয়া রেকর্ডিং এবং ব্যক্তিজীবনে অনিয়মটাই নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছিল। পেশাদারিত্ব দেখাতে গিয়ে হয়েছিল পিষে মরার উপক্রম। সবার কাজ বুঝিয়ে দিতে হবে, মানুষ আরও চায়, আমিতো আর আলাদীনের দৈত্য না। দিতে পারলেই এই নিষ্ঠুর ইন্ডাস্ট্রিতে সব প্রশংসা আপনার, অন্যথায় ছুড়ে ফেলে দিতে কোনও পক্ষই দ্বিধা-বোধ করবে না এবং এটাই বেসিক। এ সমস্ত দেনা পাওনার হিসাবের মাঝখানে লাগাম টানার জন্য একটা প্ল্যান দরকার ছিল, আর সেটা হচ্ছে নিজের সুস্থ থাকার চিন্তা আগে করা। এ বছর অনেক গান গাইবো, এজন্য প্রথম তিনমাস আমার কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমি রেকর্ডিং আর্টিস্ট, তাই এই জায়গাটা অক্ষত রাখতে হবে। মিউজিক ভিডিওর ত্রাস থেকে বেঁচে স্টুডিও ওয়ার্কে মনোযোগ দেয়াই চুল বিসর্জনের মুল লক্ষ্য।

এদেশে একেক দিন একেক ট্রেন্ড আসে, সবই বুঝি আমি, মানুষকে বোঝাবে কে? আমি না করতে পারি না, এই বাজে অভ্যাসটার জন্য চরম মূল্য দিয়ে গেছি সারাজীবন। দিনশেষে ফলাফল একটাই- দিতে পারলে মহামানব, না দিতে পারলে শেষ কিংবা অহংকারী। এই দেশের সঙ্গীতে আমার আরও অনেক কিছু করার বাকী আছে। সব ইমোশনের উপর সাদা পলিথিন মুড়ে দিয়েছি। নানামাত্রিক কাজ হবে, নিজেকে আরও অনন্য উচ্চতায় প্রতিষ্ঠা করার যুদ্ধে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন কাজের প্রতি মনোযোগ। এখন আমার কাছে নিজের শারীরিক এবং মানসিক বিশ্রাম টপ প্রায়োরিটি। অনেক গান গাইতে হবে, বিশেষ করে হামি নাত গাওয়ার জন্য নিরবচ্ছিন্ন মনোযোগ প্রয়োজন।


এম 

 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • বিনোদন এর সর্বশেষ
  • বিনোদন এর পাঠক প্রিয়