• ঢাকা মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৯, ৯ মাঘ ১৪২৫

থিয়েটার অলিম্পিকসে ‘কিনু কাহারের থেটার’

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২০ মার্চ ২০১৮, ১৬:৫৩ | আপডেট : ২০ মার্চ ২০১৮, ১৭:০২
ছবি : সংগৃহীত
ভারতে অনুষ্ঠিতব্য ‘৮ম থিয়েটার অলিম্পিকস’-এ অংশ নিতে যাচ্ছে বাংলাদেশের অন্যতম নাট্যদল প্রাচ্যনাট। এই উদ্দেশে প্রাচ্যনাটের ২৬ সদস্যের একটি দল গতকাল সোমবার ভারত রওনা হয়। দলটি এখন দিল্লিতে অবস্থান করছে।

প্রাচ্যনাট সূত্রে জানা গেছে, ২১ মার্চ সন্ধ্যায় দিল্লির অভিমঞ্চে এবং ২৩ মার্চ ভারতের ভূপালে দলটির জনপ্রিয় নাটক ‘কিনু কাহারের থেটার’ এর দুটি প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে।

নাটকটিতে অভিনয় করবেন- মনিরুল ইসলাম, সানজিদা প্রীতি, শাহরিয়ার ফেরদৌস, মিতুল রহমান, চেতনা রহমান ভাষা, জগন্ময় পাল, রফিকুল ইসলাম, শাহরিয়ার রানা, রক্তিম বিপু, তানজি কুন, এবিএস জেম, সজিব, সাদি, পারবিন পারু, ফুয়াদ, সাইফুল জার্নাল প্রমুখ।

‘৮ম থিয়েটার অলিম্পিকস’ এর আয়োজন করেছে ভারতের ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামা (এনএসডি) এবং সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি ভারতের ১৭টি শহরে এই উৎসব শুরু হয়েছে। চলবে ৮ এপ্রিল পর্যন্ত। উৎসবে বাংলাদেশ থেকে ৯টি নাটক অংশ নিচ্ছে।

উল্লেখ্য গত ১৪ মার্চ ঢাকার জাতীয় নাট্যশালায় ‘কিনু কাহারের থেটার’ নাটকের ৫০তম প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবার ভারতের মঞ্চে নাটকটির প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে।
--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন: হানিমুনে কী করলেন রাজ-শুভশ্রী? (ভিডিও)
--------------------------------------------------------

নাটকের গল্পে দেখা যাবে- এক নারীর শ্লীলতাহানি ঘটিয়েছে পুতনা রাজ্যের উজির। এ নিয়ে রেগে গেছেন লাট সাহেব। রাজা পড়লেন মহাসংকটে। উজির তার প্রাণের দোসর, তাকে কী করে চৌদ্দ ঘা চাবুক মারতে আদেশ দিবেন লাট সাহেব? উজিরকে বুদ্ধি দিলেন, একজন লোক ঠিক করতে, যে আদালতে এসে সাক্ষ্য দেবে উজির নয়, অপকর্মটি করেছে আসলে সে, তাই সাজাও তারই প্রাপ্য।

চার থলি টাকার বিনিময়ে ঘণ্টাকর্ণের বৌ জগদম্বা উজিরের হাতে তুলে দিল তার স্বামীকে। তারপর ঘণ্টাকর্ণের বাড়ির দুয়ারে যতো চোর, ডাকাত, দাগি আসামির লাইন, থলি থলি টাকা নিয়ে সবাই দাঁড়িয়ে, অপরাধ করে তারা আর সাজা ভোগ করে ‘সাজা খেকো অফিসার’ ঘণ্টাকর্ণ।

জগদম্বা খুশি তার স্বামী কামাই করতে শিখেছে, রাজা খুশি ক্ষমতা টিকে যাওয়ার আনন্দে। উজির খুশি দেশে আর কোনো আইনের সংকট নেই। চারিদিকে শান্তি, শান্তি, শান্তি। কিন্তু এভাবে যদি দিন যেত তাহলে তো কথাই ছিল না। হঠাৎ একদিন রাজা ফেঁসে গেলেন ছাগল হত্যার দায়ে।

লাট সাহেবের বুদ্ধির প্যাঁচে রাজার হলো ফাঁসির আদেশ। রাজা বললেন, ভয় কি, আমার তো মাস মাইনের চাকুরে ঘণ্টাকর্ণ আছেই, ‘নে রে বাপ ঘণ্টাকর্ণ, উঠে পর ফাঁসি কাষ্ঠে'। এরপরই বেঁকে বসে ঘণ্টাকর্ণ। ঘটনা মোড় নেয় অন্যদিকে।

আরও পড়ুন:

পিআর/এ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়