Mir cement
logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

বিনোদন ডেস্ক, আরটিভি নিউজ

  ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ১৮:১৬
আপডেট : ২০ জানুয়ারি ২০২২, ০৭:৪৩

শিমু হত্যার পর মরদেহের সঙ্গে রাতভর ছিলেন নোবেল

শিমু হত্যার পর মরদেহের সঙ্গে রাতভর ছিলেন নোবেল
ছবি : সংগৃহীত

ঢাকাই সিনেমার চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমু। সোমবার (১৭ জানুয়ারি) সকালে তার মরদেহ উদ্ধারের ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হয় পুলিশ। তার বস্তাবন্দি মরদেহ পাওয়ার পর থেকেই টক অব দ্য কান্ট্রিতে পরিণত হয়েছেন এই অভিনেত্রী। এ যেন এক নির্মম হত্যাকাণ্ড, যা ঘটে গেল তার জীবনে।

শিমুকে হত্যা করার অভিযোগে তার স্বামী শাখাওয়াত আলীম নোবেল ও তার বন্ধু ফরহাদকে গ্রেপ্তার করেছে কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে শিমুকে হত্যার দায়ও স্বীকার করেছেন তার স্বামী। যদিও শিমুর বোন ফাতিমা নিশা এ বিষয়ে একমত নন বলে জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে তিনি এর সুষ্ঠু বিচার ও তদন্তের দাবি করেছেন।

গ্রেপ্তার করার পর পুলিশের জেরার মুখে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন নোবেল ও তার বন্ধু ফরহাদ। তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য অংশ গণমাধ্যমে জানিয়েছেন পুলিশ।

পুলিশের কাছে নোবেল জবানবন্দি যা দিয়েছে তারমধ্যে চুম্বক অংশ হচ্ছে, ‘শনিবার (১৫ জানুয়ারি রাতে রাজধানীর গ্রিন রোডের বাসায় শ্বাসরোধ করে হত্যা করে শিমুকে। হত্যার পরদিন রোববার (১৬ জানুয়ারি) নোবেলের ছোট বেলার বন্ধু ফরহাদকে নিয়ে কেরানীগঞ্জে গিয়ে মরদেহ ফেলে দিয়ে আসেন। এরপর ঢাকায় ফিরে কলাবাগান থানায় স্ত্রী নিখোঁজ হয়েছেন বলে একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তিনি।’

এ প্রসঙ্গে ঢাকা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত সুপার শাহাবুদ্দিন কবির বলেছেন, ‘নোবেল তার স্ত্রী শিমুকে হত্যার পর সারা রাত মরদেহের সঙ্গে ছিলেন। পরদিন সকালে বন্ধু ফরহাদকে বাসায় ডেকে আনেন নোবেল। এরপর বাসার নিরাপত্তাকর্মীকে নাশতা আনার জন্য বাইরে পাঠান। এই ফাঁকে একটি বস্তায় করে শিমুর মরদেহ গাড়ির ভেতরে রাখেন। তারপর সুযোগ বুঝে সেই গাড়িতে করে বাসার বাইরে বের হয়ে যান। মরদেহটি গাড়ি থেকে ফেলে দেওয়ার জন্য জায়গা খুঁজতে থাকে। প্রথমে তারা সাভার, আশুলিয়া ও মিরপুর বেড়িবাঁধের দিকে মরদেহ ফেলার চেষ্টা করেন। তবে উল্লেখিত তিন স্থানে লাশ ফেলতে না পেরে বিকেলে আবারও মরদেহ গাড়িতে করে নিয়ে বাসায় ফেরেন। এরপর সারা রাত ধরে অপেক্ষা করে আবার দুই বন্ধু মিলে মরদেহ নিয়ে গাড়িতে করে বেরিয়ে পড়েন কেরানীগঞ্জের দিকে। সেখানকার আলিয়াপুর নামক একটি স্থানে মরদেহটি ফেলে দিয়ে আসতে সক্ষম হন।’

মূলত পারিবারিক ও দাম্পত্য কলহের জেরে অভিনেত্রী শিমুকে খুন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারি দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেন ঢাকার পুলিশ সুপার (এসপি) মারুফ হোসেন সরদার।

এ ঘটনার বিবৃতি দিতে এক সংবাদ সম্মেলন করেন। সেখানে তিনি বলেন, ‘নোবেল ও ফরহাদকে জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মিলেছে। সেইসব তথ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে ও ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে অভিনেত্রী শিমু হত্যায় এ দুজনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। বিভিন্ন পারিবারিক বিষয়কে কেন্দ্র করে স্বামী নোবেলের সঙ্গে শিমুর দাম্পত্য-কলহ শুরু হয়। সেই কলহের জেরে গত রোববার (সকাল ৭টা থেকে ৮টা) যেকোনো এক সময় শিমুকে হত্যা করা হয়। শিমুর মরদেহ গুম করতে যে গাড়িটি ব্যবহার করেছে হত্যাকারীরা সেই গাড়ি জব্দ করে থানায় নিয়েছে পুলিশ। অন্যান্য আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, সোমবার ১৭ জানুয়ারি দুপুরে স্থানীয়দের কাছে খবর পেয়ে কেরানীগঞ্জের হজরতপুর ব্রিজের কাছে যায় পুলিশ।পরে আলিয়াপুর এলাকায় রাস্তার পাশে বস্তাবন্দি এক অজ্ঞাতনামা নারীর মরদেহ উদ্ধার করে তারা। পরবর্তীতে মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে রাতে গিয়ে ওই মরদেহ চিত্রনায়িকা শিমুর বলে শনাক্ত করেন তার বড় ভাই শহীদুল ইসলাম খোকন।

কেইউ/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS