Mir cement
logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ১১ আষাঢ় ১৪২৮

ওই পাড়ে যেতে হতাশা

পাটুরিয়ায় ফেরি বন্ধ, শিমুলিয়ায় চলছে 
ফাইল ছবি

ঈদে ঘরমুখী যাত্রীদের ঢল নেমেছে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে। কোনোভাবে থামানো যাচ্ছে না যাত্রীদের বাড়ি যাওয়া। রোববার (৯ মে) বিজিবি চেকপোস্ট সত্ত্বেও উপেক্ষা করে দক্ষীণবঙ্গগামী হাজার হাজার মানুষ ঘাটে আসছেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এই ভিড় আরও বাড়ছে। যাত্রা অনিশ্চিয়তা দেখে অনেকের হতাশা বাড়ছে।

ঘাটগুলোতে গিয়ে দেখা যায়, পরিবারের বা স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করতে সবাই জড়ো হয়েছে ঘাটে। করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে আছে তারা। ফেরিতে উঠার সুযোগ পেলে গায়ে গা লাগিয়ে ঝুঁকি নিয়ে যাত্রীরা ফেরিতে উঠছেন।

আজ শিমুলিয়া ঘাটে কয়েক হাজার যাত্রীকে ফেরির জন্য অপেক্ষা করতে দেখা যায়। মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের বাংলাবাজার ফেরিঘাটে সীমিত আকারে তিনটি ফেরি জরুরি ভিত্তিতে আসা যানবাহন ও যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে। এদিন সকাল আটটায় কুঞ্জলতা ও সাড়ে দশটায় ফেরি শাহপরাণ নামের দুটি ফেরি শিমুলিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে যায়। আর শিমুলিয়া থেকে সকাল আটটায় ফরিদপুর নামের একটি ছোট ফেরি সকাল সাড়ে নয়টায় বাংলাবাজার ঘাটে এসে পৌঁছায়। এতে কমপক্ষে দেড় হাজার যাত্রী ছিল।

ভোর থেকে বেসামরিক প্রশাসনের সহায়তায় বিজিবি মোতায়েন করা হয় শিমুলিয়া ঘাট এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে। বিজিবি সদর দপ্তর পরিচালক (অপারেশন) লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফয়জুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

বিআইডব্লিউটিসির সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, দিনের বেলায় ফেরি বন্ধ। শুধু জরুরি পরিষেবার কিছু যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। সেই ফেরিতেই লোকজন স্রোতের মতো উঠে যাচ্ছে।

মাওয়া নৌ-পুলিশ স্টেশনের ইনচার্জ জেএম সিরাজুল কবির বলেন, ভোররাত থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ। ফেরি বন্ধের নির্দেশনার পরও প্রচুর যাত্রী শিমুলিয়া ঘাটে আসছে। ফেরিতে উঠতে না পেরে অনেকে বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে ইঞ্জিন চালিত ছোট ছোট ট্রলারে করে পদ্মা পার হওয়ার চেষ্টা করে। জরুরি পণ্যবাহী যানবাহন ও অ্যাম্বুলেন্স জড়ো হওয়ায় সকাল পৌনে ১০টার দিকে ফেরি শাহপরান ছেড়ে যায়।

বিআইডব্লিউটিসি বলছে, ঈদ উপলক্ষে গত শুক্রবার থেকে এই নৌপথে যাত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ বেড়ে যায়। এতে বাধ্য হয়ে গতকাল শনিবার দুপুরের পর থেকে যাত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়ি পারাপার করতে হয়।

এদিকে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদ্বার মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ও রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া নৌপথে রোববার সকাল থেকে সাধারণ পরিবহনবাহী ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। ঈদ উপলক্ষে ঘরমুখী যাত্রীদের চাপও কম দেখা গেছে। তবে দুটি ফেরি দিয়ে অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি পণ্যবাহী যান পারাপার করা হচ্ছে।

গত ২ দিনে দৌলতদিয়া ঘাটে ঈদে ঘরমুখী মানুষের উপচেপড়া ভিড় থাকলেও আজ রোববার সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ঘাট এলাকাতে তেমন যাত্রী ও যানবাহন দেখা যায়নি। গতকাল সন্ধ্যা ৬টার পর থেকে সব কয়টি ফেরি চলাচল শুরু করায় চাপ কমতে শুরু করেছে এ ফেরি ঘাটে।

অপরদিকে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে লাশবাহী গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি কাজে নিয়োজিত যানবাহনের সঙ্গে যাত্রীরাও ফেরি পার হচ্ছেন। নদী পারাপার অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে আসায় ভোগান্তি কমতে শুরু করেছে পণ্যবাহী ট্রাকের চালকদের। তবে এখনও ফেরি পারের অপেক্ষায় রয়েছে শতাধিক যানবাহন। শৌচাগার ও খাবার হোটেলের অভাবে নারী ও শিশু যাত্রীদের ভোগান্তি হচ্ছে বেশি।

হাসিব নামে একজন বলেন, ‘পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় এখনও শতাধিক যানবাহন পারের অপেক্ষায় রয়েছে। আশা করা যায় মধ্য রাতের মধ্যেই সব যানবাহন পারাপার করতে পারবো এবং ঘাট এলাকা ফাঁকা হয়ে যাবে।’

পাটুরিয়ায় যাত্রী পারাপারের বিষয়ে বিআইডব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. জিল্লুর রহমান বলেন, করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ফেরি বন্ধ রাখা হয়েছে। শুধু অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি পণ্যবাহী গাড়ি পারাপার করা হচ্ছে। ভোগান্তি এড়াতে যাত্রীদের পাটুরিয়ায় না আসার পরামর্শ দেন তিনি।

বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট শাখার সহকারী ব্যবস্থাপক খোরশেদ আলম বলেন, গতকাল শনিবার সকাল ৬টা থেকে সারাদিন ঘাট এলাকায় প্রায় ৩০০ পণ্যবাহী ট্রাক আটকে থাকে। সন্ধ্যার পার ফেরি চলাচল শুরু করায় গাড়ির চাপ অনেকাংশে কমে গেছে। এখন যাত্রীর কোনো ভিড় নেই ঘাটে।

পাটুরিয়ায় যাত্রী পারাপারের বিষয়ে বিআইডব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. জিল্লুর রহমান বলেন, করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ফেরি বন্ধ রাখা হয়েছে। শুধু অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি পণ্যবাহী গাড়ি পারাপার করা হচ্ছে। ভোগান্তি এড়াতে যাত্রীদের পাটুরিয়ায় না আসার পরামর্শ দেন তিনি।

মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে যাত্রীদের আসা ঠেকাতে এরই মধ্যে বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েন করা হয়েছে। জেলার মোট তিনটি জায়গায় বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয় জানিয়েছে, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে সন্ধ্যা ৬টার পর থেকে ১৬টি ফেরি দিয়ে লাশবাহী গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স ও পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার করা হচ্ছে। ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে মানিকগঞ্জের প্রবেশপথ বারোবাড়ীয়া ও শিবালয়ের টেপরা এবং হেমায়েতপুর-সিংগাইর আঞ্চলিক সড়কের ধল্লা এলাকায় বিজিবির তিন প্লাটুন সদস্য দায়িত্ব পালন করছে।

এমআই/এম

RTV Drama
RTVPLUS