Mir cement
logo
  • ঢাকা সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

ক্রীড়া প্রতিবেদক, আরটিভি নিউজ

  ১৯ নভেম্বর ২০২১, ১৭:৩৭
আপডেট : ১৯ নভেম্বর ২০২১, ১৮:১৯

বাংলাদেশ-পাকিস্তান

লড়লেও হারের বৃত্ত ভাঙতে পারেনি বাংলাদেশ

শের ই বাংলা স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে গর্জন উঠেছিল দর্শকদের। বাংলাদেশ-পাকিস্তানের সমর্থকেরা মাঠে এসেছিল প্রিয় দলের খেলা দেখতে। কোভিড হানা দেয়ার পর দর্শকদের মাঠে প্রবেশ বন্ধ করে দেয়ার প্রায় দুই বছর পর আবারও গর্জে শোনা গেছে মিরপুর স্টেডিয়ামের গ্যালারি থেকে। তবে শেষ পর্যন্ত চুপসে যেতে হয়েছে স্বাগতিক দর্শকদের।

সদ্য শেষ হওয়া বিশ্বকাপের মূল পর্বে পাঁচ ম্যাচ হেরে ব্যর্থতার যে বৃত্তে আটকা পড়েছে বাংলাদেশ, সেই বৃত্ত ভাঙতে পারল না ঘরের মাঠেও। মিরপুরে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩ ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে জয়ের দারুণ সম্ভাবনা থাকলেও শেষ পর্যন্ত হারতে হলো ৪ উইকেটে।

বিশ্বকাপ থেকে ব্যর্থতার গ্লানি নিয়ে দেশে ফেরা বাংলাদেশ দল থেকে বাদ দেয়া হয়েছে বেশ কয়েকজনকে। তরুণদের নিয়ে গড়া দলটা ঘরের মাঠে প্রতীক্ষায় ছিল ঘুরে দাঁড়ানোর। কেন না এ মাঠেই বিশ্বকাপের আগে এই মাঠেই অস্ট্রেলিয়া আর নিউজিল্যান্ডকে সিরিজে হারিয়েছিল টাইগাররা।

তবে পাকিস্তান ছিল বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট দল। মূল পর্বে টানা পাঁচ জয়ে সবার আগেই নিশ্চিত করে সেমি-ফাইনাল তবে, সেমিতে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে ভেঙে যায় ফাইনালে খেলার স্বপ্ন।

শুক্রবার মিরপুরের শের ই বাংলা স্টেডিয়ামে টস জিতে বাংলাদেশ অধিনায়ক সিদ্ধান্ত নেন ব্যাটিং করার। ব্যাট করতে নেমে টাইগার ব্যাটাররা ব্যর্থ হয় সফরকারী বোলারদের তোপের মুখে। শেষ পর্যন্ত ১২৮ রানে লক্ষ্য দিয়েও পাকিস্তানকে বেঁধে ফেলেছিল অনেকটা।

জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে পাক ওপেনার মোহাম্মদ রিজওয়ান (১১) তৃতীয় ওভারেই বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন মোস্তাফিজুর রহমানের বলে। এরপর চতুর্থ ওভারের তাসকিন আহমেদের বলে স্টাম্প উড়ে যায় ফখর জামানের (৭)। দুজনেই ব্যাট হাতে দুর্দান্ত ছিলেন বিশ্বকাপে।

পাওয়ার প্লে শেষ হবার আগে হায়দার আলীকে রানের খাতা খোলার আগে এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেলে ফেরান শেখ মেহেদী আর ষষ্ঠ ওভারের শেষ বলে উইকেট রক্ষক নুরুল হাসান সোহানের দুর্দান্ত থ্রোতে রান আউট হয়ে সাজঘরের পথ ধরেন শোয়েব মালিক।

মাত্র ২৪ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়া পাকিস্তানকে টেনে তোলেন ফখর জামান ও খুশদিল শাহ। দুজনের জুটি থেকে আসে ৫৬ রান। তবে দলীয় ৮০ রানের মাথায় ফখর জামানকে (৩৪) ফিরিয়ে বাংলাদেশকে ম্যাচে ফেরান তাসকিন। দলীয় ৯৬ রানের মাথায় ৩৪ রান করা খুশদিল শাহকে ফেরান শরিফুল ইসলাম।

ফখর ও খুশদিলের বিদায়ে জয়ের সম্ভাবনা জাগে বাংলাদেশের। তবে শেষ ২.৩ ওভারে পাকিস্তান তুলে ৩৬ রান। ১৮তম ওভারে মোস্তাফিজ দেন দুই চার এক ছয়ে ১৫ রান, ১৯তম ওভারে শরিফুল দেন দুই ছক্কায় ১৫ রান। শাদাব খানের ১০ বলে ২১ আর মোহাম্মদ নেওয়াজের ১০ বলে ২১ রানে ভর করে ৪ বল হাতে রেখে ৪ উইকেটের জয় নিশ্চিত করে পাকিস্তান।

বাংলাদেশের পক্ষে ২টি উইকেট নেন তাসকিন, ১টি করে উইকেট নেন মেহেদী, মোস্তাফিজ ও শরিফুল।

এর আগে দুপুরে ব্যাট করতে নেমে পাওয়ার প্লে-তে মাত্র ২৭ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। নাঈম শেখ ১, সাইফ হাসান ১ ও নাজমুল হাসান শান্ত ফেরেন ৭ রান করে। সাইফ, শান্ত দুজনেই দলে ফিরেছেন লম্বা সময় পর। দুজনকেই ফেরান পেসার মোহাম্মদ ওয়াসিম। নাঈমকে ফেরান হাসান আলী।

দলের বিপর্যয়ে হাল ধরেন আফিফ হাসান। ধীর গততে রান তুলে থিতু হবার চেষ্টা করলেও ১১তম ওভারে মোহাম্মদ নেওয়াজকে হাঁকান পরপর দুই ছয়। ৩৪ বলে ৩৬ রান করে বিদায় নেন আফিফ শাদাব খানের বলে ক্যাচ দিয়ে। মাহমুদউল্লাহ ৬ রানে বোল্ড হন নেওয়াজের বলে।

এরপর নুরুল হাসান ও শেখ মেহেদী হাসান গড়েন ইনিংসের সবচেয়ে বড় জুটি। দুজন মিলে যোগ করেন ২৪ বলে ৩৫ রান। এই জুটি ভাঙে নুরুল হাসানের ২২ বলে ২৮ রানে বিদায়ের মধ্য দিয়ে। হাসান আলীর বলে রিজওয়ানের হাতে ক্যাচ দেন নুরুল। আমিনুল ইসলাম বিপ্লবকে বোল্ড করে ফেরান হাসান আলী। তবে মেহেদী হাসানের ২০ বলে অপরাজিত ৩০ রান আর তাসকিন আহমেদের ৩ বলে ৮ রানে ভর করে ১২৭ রান তোলে বাংলাদেশ।

পাকিস্তানের পক্ষে ৩ উইকেট নিয়েছেন হাসান আলী, ২ উইকেট নিয়েছেন ওয়াসিম ও একটি করে উইকেট নিয়েছেন নেওয়াজ এবং শাদাব। সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে একই মাঠে আগামীকাল শনিবার দুপুর ২টা থেকে।

এমআর/

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS