logo
  • ঢাকা সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

ড. কামালের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলে কাদের সিদ্দিকীর চিঠি

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১২ মে ২০১৯, ১৩:১৪ | আপডেট : ১২ মে ২০১৯, ১৩:৫১
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনকে চিঠি দিয়েছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। তার পক্ষে দলের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তালুকদার শনিবার এ চিঠি দেন। ওই চিঠিতে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে।

চিঠিতে গণফোরামের দুই সংসদ সদস্যের সংসদে শপথগ্রহণ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে ফ্রন্টের শরিক কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ। পাশাপাশি বিএনপির ৫ সংসদ সদস্যের শপথগ্রহণ ও মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সংসদে না যাওয়ার বিষয়টি পরিষ্কার করতে জোট নেতাকে আহ্বান জানানো হয়েছে। অন্যথায় কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ঐক্যফ্রন্ট থেকে বেরিয়ে আসবে বলেও চিঠিতে হুশিয়ারি দেয়া হয়।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শরিক দল জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী এবং দলটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টু এবং জোট গঠনের অন্যতম উদ্যোক্তা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকেও এই চিঠির অনুলিপি দেয়া হয়েছে।

দুদিন আগে দলের বর্ধিত সভায় ঐক্যফ্রন্টে বিদ্যমান সংকট কাটিয়ে উঠতে এক মাসের আলটিমেটাম দেয়ার পর ফ্রন্টের শরিকদের আনুষ্ঠানিক চিঠি দিলেন কাদের সিদ্দিকী।

চিঠিতে বলা হয়, ‘জনগণের মনে আপনার (ড. কামাল হোসেন) নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে যেসব প্রশ্ন জেগেছে, তার যথাযথ প্রতিকার ও প্রতিবিধান কামনা করছি। তা না হলে আগামী ৯ জুন অথবা পরবর্তী দু’একদিনের মধ্যে প্রয়োজনে আরও ব্যাপক আকারে বৈঠক করে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে প্রত্যাহার করে নিতে বাধ্য হব’।

এতে ড. কামাল হোসেনকে উদ্দেশ করে আরও বলা হয়, ‘জাতির বৃহত্তর প্রয়োজনে ঐতিহাসিক দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে গত বছর ১৩ অক্টোবর জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদসহ অন্য যেকোনো সংকটময় মুহূর্তে আমরা যথাযথ ভূমিকা রাখার চেষ্টা করেছি। বর্তমান ভয়াবহ রাজনৈতিক অবক্ষয়ের মুহূর্তে আপনার পদক্ষেপ জাতীয় স্বার্থ রক্ষায় যথাযথ মনে হওয়ায় ৫ নভেম্বর দলের এক বর্ধিত সভায় সিদ্ধান্ত নিয়ে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যুক্ত হয়েছিল। নির্বাচন এবং নির্বাচন-পরবর্তী সময়ে ফ্রন্টের অনেক কর্মকাণ্ডই স্পষ্ট নয়।

এসজে/স

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়