logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২ ফাল্গুন ১৪২৭

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের শহীদ দিবস পালন

শহীদ দিবস

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের উদ্যোগে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জাতীয় পতাকা উত্তোলন, বীর শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া, নিরাবতা পালন, অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পন, বাণী পাঠ ও আলোচনা সভার মধ্যদিয়ে শেষ হয় এবারের অনুষ্ঠান।

বৈশ্বিক মহামারি করোনার কারণে মালয়েশিয়া সরকারের বিধিনিষেধ মেনে শুধুমাত্র কুয়ালালামপুর হাইকমিশনে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখা হয় এ অনুষ্ঠান। ফেইসবুকের মাধ্যমে সরাসরি প্রচার করা হয় পুরো অনুষ্ঠানটি।

কুয়ালালামপুর হাইকমিশনের দুতালয় প্রধান রুহুল আমিনের প্রাণবন্ত সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো. গোলাম সারওয়ার।

সভাপতির বক্তব্যে হাইকমিশনার বলেন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস এখন শুধু একটি দিবস নয় বাংলাদেশের কৃষ্টি ও সংস্কৃতি'কে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়ার একটি অন্যতম মাধ্যম। মালয়েশিয়ায় থাকা প্রায় দশ লাখ বাংলাদেশিকে নিজ নিজ জায়গা থেকে দেশাত্ববোধে উদ্বুদ্ধ হয়ে পথ চলার পরামর্শ দেন হাইকমিশনার।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে আমাদের ভাবতে হবে শহীদদের আত্মত্যাগের মর্যাদা আমরা দিতে পেরেছি কি না? সীমিত স্বামর্থ্য নিয়ে নি:স্বার্থভাবে প্রবাসীদের পাশে দাঁড়ানোর প্রতিশ্রুতিও ব্যাক্ত করেন হাইকমিশনার।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে যার যার জায়গা থেকে নিবেদিতভাবে কাজ করতে হবে।

এসময় দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী দেয়া বাণী পাঠ করেন যথাক্রমে হাইকমিশনের উপ-হাইকমিশনার ও মিনিস্টার খোরশেদ আলম খাস্তগীর, কাউন্সিলর (শ্রম) জহিরুল ইসলাম, কাউন্সিলর ( শ্রম-দুই) হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল ও কাউন্সিলর (রাজনৈতিক) তাহমিনা ইয়াসমিন।

অনুষ্ঠানে ভাষা শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন হাইকমিশনের প্রশাসনিক কর্মকর্তা ওয়াহিদুজ্জামান।

এসময় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার উপর নির্মিত একটি প্রামান্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানের শেষাংশে মালয়, মান্দারিন, তামিলসহ বেশ কয়েকটি ভাষায় বক্তব্য রাখেন স্থানীয় নাগরিকেরা।

এম

RTV Drama
RTVPLUS