logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২১, ১৪ মাঘ ১৪২৭

ত্রিশের পর মা হতে চাইলে যে বিষয়গুলো মানতেই হবে

Probable woman child (file photo)
সন্তানসম্ভবা নারী (ফাইল ছবি)
লেখাপড়া, চাকরি এরপর বিয়ে একজন নারীর ক্ষেত্রেও সময়টা অনেক দূর। ইদানীং দেখা যায় কর্মস্থলে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে, আয় করে বিয়ে করতে করতে বয়স ৩০ পার হয়ে যাচ্ছে। বলা যেতে পারে পূর্ব ভাবনাচিন্তা থেকে সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন মেয়েরা।    
কিন্তু সন্তানের জন্ম দিতে গেলে বেশি অপেক্ষা করা যায় না। এমন অনেকেই আছেন বিয়ের পরবর্তী জীবন মজায় কাটিয়ে এরপর মা হতে চান। এতে দেখা যায় বয়স ত্রিশের কোটা পেরিয়ে যায়। ৩৫ বছরের পর বাচ্চা হতে চাইলে কী ধরনের ঝুঁকির মধ্যে দিয়ে যেতে হতে পারে, সে বিষয়গুলো মাথায় রেখে পরিকল্পনা করা ভালো বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। 

প্রথমত, বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সন্তান ধারণক্ষমতা আস্তে আস্তে কমতে থাকে।

দ্বিতীয়ত, ৩৫ বছরের পর কিছু সমস্যা, যেমন- গর্ভকালীন ডায়াবেটিস, প্রসব পূর্ব রক্তক্ষরণ, গর্ভকালীন উচ্চ রক্তচাপ, বাচ্চা নষ্ট হওয়ার অধিকতর ঝুঁকি ও প্রসবকালীন জটিলতা বেড়ে যায়।

এর সঙ্গে আরও একটি সমস্যা যুক্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে, তা হলো জন্মগত ত্রুটিযুক্ত সন্তানের জন্মদান।

তৃতীয়ত, বিভিন্ন জটিলতার পরিণতিতে অপরিপক্ব শিশুর জন্মহার যেমন বেড়ে যায়। স্বাভাবিক প্রসবের পরিবর্তে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে শিশুর জন্মহার বেড়ে যায় অনেকগুণ। 

চতুর্থত, প্রথম সন্তান ত্রিশোর্ধ্ব বা পঁয়ত্রিশোর্ধ্ব বয়সে হলে দ্বিতীয় সন্তান নেয়ার আগে যে দুই বা তিন বছর বিরতি দিতে হয়, সে সুযোগটা থাকে না। 

পঁয়ত্রিশের পর মা হতে চাইলে প্রস্তুতি হিসেবে ৩০ থেকে শরীর স্বাস্থ্য ভালো রাখা ও নিয়মিত চেকআপ ও ডায়েটে থাকতে হবে। প্রসূতিবিদ্যা বিশেষজ্ঞের সঙ্গে পরামর্শক্রমে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে গর্ভধারণ করা উচিত।

সূত্র- জিনিউজ

জিএ   

RTV Drama
RTVPLUS