logo
  • ঢাকা সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

আরটিভি নিউজ

  ২৩ অক্টোবর ২০২০, ২১:৫৬
আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২০, ২২:০৫

কাফনের কাপড় পরে অনশনে নিয়োগপ্রত্যাশীরা

National press club, teacher
নিয়োগপ্রত্যাশীরা
ফের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করায় ২০১৮ সালের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ নিয়োগপ্রত্যাশীদের দুশ্চিন্তা বেড়ে গেল। ফলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে কাফনের কাপড় পড়ে চার দিন ধরে আমরণ অনশনে বসেছেন তারা।

নিয়োগপ্রত্যাশীরা বলছেন, নতুন করে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করায় তারা একধরনের চাপের মুখে পড়েছেন। প্যানেল করে নিয়োগের দাবি তুললেও প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়, প্যানেলের মাধ্যমে নিয়োগের কোন সুযোগ নেই। এতে তাদের দুশ্চিন্তা আরও বেড়ে গেল।

 

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (ডিপিই) প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে আগ্রহী প্রার্থীরা অনলাইনের মাধ্যমে আগামী ২৫ অক্টোবর থেকে ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। অথচ দেশে ২০১৮ সালে প্রায় ২৪ লাখ পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিলে ৫৫ হাজার ২৯৫ জন লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়।

সরেজমিন দেখা যায়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগপ্রত্যাশীরা কাফনের কাপড় পরে আমরণ অনশন কর্মসূচি করছেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলাবেন।  এর আগে ১০ দিন প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন সহকারী শিক্ষক নিয়োগে প্যানেল প্রত্যাশীরা।  তারা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের সামনেও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন।  নির্দেশনা অনুযায়ী, দাবি সংবলিত কাগজপত্র জমাও দিয়েছেন অধিদফতরে। এর আগে নিয়োগপ্রত্যাশীরা গত ১৯ অক্টোবর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে  এক সংবাদ সম্মেলনে ঘোষণা দিয়ে ২০ অক্টোবর থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আমরণ অনশনে বসেন।

শিক্ষকের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি থেকে জানা যায়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজস্ব খাতভুক্ত ‘সহকারী শিক্ষক’এর শূন্যপদ এবং জাতীয়করণ করা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পিডিইপি-৪ এর আওতায় প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির জন্য রাজস্বখাতে সৃষ্ট ‘সহকারী শিক্ষক’ পদে জাতীয় বেতন স্কেল, ২০১৫ এর ১৩তম গ্রেডে অস্থায়ীভাবে নিয়োগ করা হবে। তবে তিন পার্বত্য জেলা- রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান জেলার প্রার্থীরা এতে আবেদন করতে পারবেন না।

এফএ

RTVPLUS