logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৫ ফাল্গুন ১৪২৬

প্রাচীন মানুষের রহস্যময় ‘ভৌতিক জনগোষ্ঠীর’ সন্ধান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:১৩
Mysterious 'ghost population' of ancient humans discovered
সিএনএন থেকে নেয়া
প্রাচীন মানুষের এক রহস্যময় জনগোষ্ঠী প্রায় পাঁচ লাখ বছর আগে পশ্চিম আফ্রিকাতে বসবাস করতো। বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করেন যে, তাদের জিন আজও মানুষের শরীরে রয়েছে।

‘সায়েন্স অ্যাডভান্সেস’ জার্নালে প্রকাশিত গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়ান্ডারথালস ফ্যামিলি ট্রি থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার আগে এই ‘প্রাচীন ভৌতিক জনগোষ্ঠী’ আধুনিক মানব থেকে বিচ্যুত হয়েছিল। খবর সিএনএনের।

লস এঞ্জেলসের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইউসিএলএ) গবেষকরা বলছেন, এই বিভাজনটি তিন লাখ ৬০ হাজার থেকে ১০ লাখ বছর আগে হয়েছিল। প্রজননশাস্ত্রবিদ অরুণ দুর্বাসুলা এবং শ্রীরাম শংকররমণ লিখেছেন, আধুনিক প্রাচীন ইউরোপীয়দের পূর্বপুরুষদের সঙ্গে যেমন নিয়ান্ডারথাল ছিল তেমনি আধুনিক আফ্রিকানদের পূর্বপুরুষদের  ছিল এই প্রাচীন মানুষ।

তারা বলছেন, আধুনিক পশ্চিম আফ্রিকানদের বংশগত জিনের ২ থেকে ১৯ শতাংশের মধ্যে এই প্রাচীন জনগোষ্ঠীর ডিএনএ মধ্যে রয়েছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, আধুনিক ইউরোপীয় জনগোষ্ঠীর মধ্যে নিয়ান্ডারথাল এবং মহাসাগরীয় জনগোষ্ঠীর মধ্যে ডেনিসভান ডিএনএ’র অস্তিত্ব রয়েছে।

ইউসিএলএ’র গবেষকরা বলছেন যে ‘যদিও বিভিন্ন গবেষণায় ডিপ লিনিয়েজ থেকে বর্তমান আফ্রিকানদের বংশধরদের সম্পর্কে জানা যায়, তবে এগুলোর প্রকৃতি খুব একটা বোঝা যায়নি। আফ্রিকার বিরল জীবাশ্মের রেকর্ড এবং প্রাচীন ডিএনএ প্রাপ্তিতে অসুবিধার কারণে এমনটা হয়েছে।

ইউসিএলএ’র বিজ্ঞানীরা আধুনিক ডিএনএতে কম্পিউটার মডেলিংয়ের কৌশল ব্যবহার করে হোমিনিন জাতিগোষ্ঠীর ‘ভূত’ খুঁজে পেতে এই চ্যালেঞ্জগুলো অতিক্রম করতে সক্ষম হয়েছেন।

তারা তিনটি দেশ- নাইজেরিয়া, সিয়েরা লিওন ও গাম্বিয়ায় বসবাসকারী পশ্চিম আফ্রিকার চারটি জনগোষ্ঠীর ‘প্রাচীন বংশধরদের জিনোম মানচিত্র’ তৈরি করেছেন।

লিভারপুল জন মুরস বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োআর্কিওলজিস্ট অধ্যাপক জোয়েল ডি আইরিশ সিএনএনকে বলেন, সম্ভবত প্রাচীন মানবদের ভিন্ন ভিন্ন জনগোষ্ঠী ছিল। আমি মনে করি এক সময়, সব ধরনের জনগোষ্ঠী ছিল। কিন্তু জেনেটিক্স পার্থক্যের তাদের চেহারা ভিন্ন ভিন্ন ছিল।

অধ্যাপক আইরিশ বলেন, ভিন্ন ভিন্ন জনগোষ্ঠী নিজেদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের দিকে ঝুঁকেছিল। আমরা এই ‘ভৌতিক’ জনগোষ্ঠী সম্পর্কে আরও অনেক কিছু জানতে পারবো।

নিয়ান্ডারথাল (বাম) ও আধুনিক মানুষের কঙ্কাল

স্টোন এজ হমিনিন্সের হাড় থেকে প্রথম জিনোমগুলো বের করার পর, ২০১০ সালে বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেন যে ইউরোপীয়, এশীয় ও আমেরিকানদের প্রাথমিক পূর্বপুরুষ নিয়ান্ডারথাল।

গত মাসে প্রিন্সটনের লুইস-সিগলার ইন্সটিটিউট ফর ইন্টিগ্রেটিভ জিনোমিক্সের গবেষকরা জানান যে, তারা প্রথমবারের মতো আফ্রিকানদের পূর্বপুরুষের মধ্যে নিয়ান্ডারথালদের অস্তিত্ব শনাক্ত করেছেন।

তাদের তথ্য মতে, আধুনিক মানবদের একটি অংশ প্রায় দুই লাখ বছর আগে আফ্রিকা থেকে ইউরোপে চলে যায় এবং আফ্রিকা ফিরে যাওয়ার আগে নিজেদের শরীরে নিয়ান্ডারথালদের ডিএনএ নিয়ে যায়।

এ/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়