logo
  • ঢাকা শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

নির্বাচনী ফল ঘোষণার আগেই গণমাধ্যমে প্রার্থীর জয়!

america, trum, baiden, election,
নির্বাচন এলেই মানুষের মনে অন্য রকম এক উৎসবের আমেজ চলে আসে। আধুনিকতার এই যুগে দেশের নির্বাচনের পাশাপাশি অন্য রাষ্ট্রের নির্বাচনের দিকেও মানুষের আগ্রহ বাড়ছে। নির্বাচনে কোন প্রার্থীর জয় হয়েছে, কত ভোটে জয় লাভ করেছে। নির্বাচনের এসব তথ্য জানতে সবার আগে গণমাধ্যমের দিকে নজর রাখছেন মানুষ। কিন্তু ইদেনিং গণমাধ্যমগুলো ভোট গণনার আগেই কিংবা নির্বাচন কমিশন নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণা করার আগেই পছন্দের প্রার্থীকে জয়লাভ করিয়ে দেয়। যা নিয়ে মানুষ তথ্য বিভ্রাটের মধ্যে থাকেন। সঠিক তথ্য নিশ্চিত করতে এখন আর মানুষ একটি গণমাধ্যমের ওপর ভরসা রাখতে পারছেন না।

আমেরিকার নির্বাচনে পছন্দের প্রার্থীকে জয় লাখ করিয়ে দিয়েছে বিভিন্ন গণমাধ্যম। সেই বিষয়টি নিয়ে বিবিসি বাংলা একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সবার চোখ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দিকে- হোয়াইট হাউসের লড়াই কে জিতবেন- ট্রাম্প না বাইডেন সেই দিকে।

নির্বাচনী প্রচারণা যখন একেবারে শেষ পর্যায়ে, রাশিয়ার প্রধান আন্তর্জাতিক টিভি চ্যানেল ‘রাশিয়া টুডে’ তখন একবারে সর্বশক্তি দিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে। এই নির্বাচনে ক্রেমলিন নিয়ন্ত্রিত টিভি চ্যানেলটির সব খবর, মন্তব্য এবং টুইট ছিল প্রায় পুরোপুরি ডো বাইডেনের বিপক্ষে।

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন নিয়ে বিবিসির উত্তর আমেরিকা সংবাদদাতা জন সোপেল তিনি ঘুম থেকে উঠে তিনটি শিরোনাম দেখতে পান। তিন ধরণের সম্ভাব্য দৃশ্যপট আমরা দেখতে পারি। এর কোন একটি ঘটলে আমি একটুও অবাক হবো না:

১. জো বাইডেনের সহজ জয়: প্রথম দৃশ্যকল্পে দেখা যেতে পারে জনমত জরিপ ঠিক ছিল এবং জো বাইডেন বেশ সহজে জয়লাভ করেছেন।

২. ট্রাম্পের হতবাক করা জয়: ২০১৬ সালের মতোই জনমত জরিপ ভুল প্রমাণিত হবে এবং ডোনাল্ড ট্রাম্প দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য নির্বাচিত হবেন। তার জয়ের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে পেনসিলভেনিয়া এবং ফ্লোরিডার ফল।

৩. জো বাইডেনের বিপুল বিজয়: জো বাইডেন কেবল যে জিতবেন তাই নয়, তিনি জিতবেন বিপুল ব্যবধানে- এটাও একটা সম্ভাবনা। ১৯৮০ সালে জিমি কার্টারের বিরুদ্ধে রোনাল্ড রেগ্যানের যেরকম ধস নামানো বিজয়, অনেকটা সেরকম। অথবা ১৯৮৮ সালে মাইকেল ডুকাকিসের বিরুদ্ধে জর্জ বুশের বিজয়।


এফএ

RTVPLUS