• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬

মাছ ধরা বন্ধের প্রতিবাদে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি
|  ০৯ জুন ২০১৯, ১৩:১১ | আপডেট : ০৯ জুন ২০১৯, ১৫:৪৯
বঙ্গোপসাগর ও সন্দ্বীপ চ্যানেলে ৬৫ দিন মাছ ধরা বন্ধের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করেছে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থেকে সীতাকুণ্ড পর্যন্ত বসবাসকারী ৩৮ গ্রামের উপকূলীয় জেলেরা।

whirpool
রোববার (৯ মে) সকাল ১০টার দিকে উত্তর চট্টলা উপকূলীয় মৎস্যজীবী জলদাস কল্যাণ ফেডারেশনের ব্যানারে তিন হাজারেরও বেশী নারী পুরুষ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের ফৌজদারহাট-বন্দর সড়কের মাথায় অবরোধ করেন তারা।

সরেজমিনে দেখা যায়, সকাল সোয়া নয়টার দিকে বাস, ট্রাকে করে জেলেরা মহাসড়কের ফৌজদারহাট বন্দর সড়কের মাথায় জড়ো হতে থাকেন। সকাল ১০টার দিকে বৃষ্টির মধ্যে মহাসড়কে মানবন্ধন শুরু করেন তারা। এসময় মহাসড়কের উভয় দিকে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও তাদের ওপর কোন ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি। 

বেলা ১১টার দিকে অবরোধস্থলে আসেন সীতাকুণ্ডের সংসদ সদস্য দিদারুল আলম। পরে সাড়ে ১১টার দিকে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত অবরোধস্থলে গিয়ে বক্তব্যের পর বেলা পৌনে ১২টার দিকে অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয় জেলেরা।

এসময় সাংসদ দিদারুল আলম বলেন, মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা শুধু সীতাকুণ্ডের জন্য নয়। এটি সারাদেশের জেলেদের উপর নিষেধাজ্ঞা কার্যকর রয়েছে। তবুও জেলেদের স্মারকলিপি তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌঁছে দেবেন।

অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত বলেন, জেলেদের দাবীর সঙ্গে তিনি একমত। আগামীকাল সোমবারের মধ্যে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা না হলে, আগামী মঙ্গলবার গণঅনশন কর্মসূচী পালন করা হবে। এরপর তিনি অবরোধ কর্মসূচী প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। 

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, সামুদ্রিক ছোট মাছ বৃদ্ধির লক্ষ্যে গত ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত টানা ৬৫ দিন সমুদ্রে সব ধরনের মাছ ধরার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে সরকার। এসময়ের মধ্যে তালিকাভুক্ত জেলেদের জন্য ৮০ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেয়া হয়। ইতোমধ্যে ৪০ কেজি করে চাল সীতাকুণ্ডে পৌঁছেছে।

ফেডারেশনের সভাপতি লিটন জলদাস বলেন, আগে শুধু ইলিশ ধরাকে কেন্দ্র করে মা ইলিশ নিধন ও ঝাটকা নিধন বন্ধে নিষেধাজ্ঞা ছিল। তারা সেটা মেনে নিয়েছেন। এবার সরকার সবধরনের নিষেধাজ্ঞা দেয়ায় তারা আর্থিকভাবে ব্যাপক সংকটের মুখে পড়ছেন। তাই তারা এ নিষেধাজ্ঞা মানছেন না।

ভাটিয়ারী বাসিন্দা নন্দকিশোর জলদাস বলেন, ‘আমরা দিনে এনে দিনে খাই। আমাদের কাজ করতে দিন, আমাদের দয়ার চাল (বরাদ্দ করা চাল) লাগবে না।’

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সেলিম রেজা বলেন, সামুদ্রিক ছোট মাছ আশঙ্কাজনক হারে কমছে। এসময়ে ছোট মাছের প্রজননের সময়। এসময়ে আগে ইন্ডাস্ট্রিয়াল মৎস্য আহরণ বন্ধ থাকত। এবার সরকার সব ধরনের মাছ ধরার উপর নিষেধাজ্ঞা দেয়। এবার সীতাকুণ্ডে চার হাজার ৮০৫ জনের জন্য প্রথম কিস্তি চাল তালিকাভুক্ত জেলেদের সীতাকুণ্ডে পৌঁছেছে। কিন্তু জেলেরা নিচ্ছে না।

সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার(ওসি) সুমন বণিক বলেন, জেলেরা দেড় ঘণ্টারমতো মহাসড়ক অবরোধ করেছিল। পরবর্তী কর্মসূচী ঘোষণা দিয়ে পৌনে ১২টার দিকে অবরোধ তুলে নেয়। তারা মহাসড়ক সচল করার চেষ্টা করছেন।

এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়