Mir cement
logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারি ২০২২, ৬ মাঘ ১৪২৮
discover

প্রেমিকার আবদার মেটাতে ছাত্রকে খুন, মরদেহ উদ্ধার 

প্রেমিকার আবদার মেটাতে ছাত্রকে খুন, মরদেহ উদ্ধার 
অপহৃত কলেজছাত্র আমিনুর রহমান (বাঁয়ে) ও গ্রেপ্তার ফয়সাল

খুলনার পাইকগাছা উপজেলায় অপহৃত কলেজছাত্র আমিনুরের (১৯) মরদেহ উদ্ধার হয়েছে।

বুধবার (১০ নভেম্বর) সকাল ৯টার দিকে আগড়ঘাটা বাজারের পাশে কপোতাক্ষ নদে তার মরদেহ পাওয়া যায়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. তাকবীর হুসাইন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহত আমিনুর উপজেলার শ্যামনগর গ্রামের সুরমান গাজীর ছেলে ও কপিলমুনি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র।

জানা গেছে, খুলনার পাইকগাছায় মুক্তিপণের দাবিতে কলেজছাত্র আমিনুর রহমানকে অপহরণের পর হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মঙ্গলবার (৯ নভেম্বর) নিহতের বাবা সুরমান গাজী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। হত্যাকাণ্ডের ৪ দিন পর তল্লাশি চালিয়ে বুধবার (১০ নভেম্বর) কপোতাক্ষ নদ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এদিকে হত্যাকাণ্ডে গ্রেপ্তারকৃত আসামি ফয়সাল খুনের বর্ণনা করে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদলতে জবানবন্দি দিয়েছেন। মঙ্গলবার (৯ নভেম্বর) বিকেলে তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন আদালতের বিচারক মো. মনিরুজ্জামান।

আটককৃত ব্যক্তি পাইকগাছার গদাইপুর গ্রামের জিল্লুর রহমানের ছেলে ফয়সাল সরকার।

এর আগে গত ৭ নভেম্বর রাত সাড়ে ৮টার দিকে আমিনুরকে মোবাইল ফোনে ডেকে নেন ফয়সাল। প্রথমে ঘুমের ওষুধ মেশানো জুস খাওয়ানো হয় তাকে। আমিনুরের জ্ঞান হারানোর মতো অবস্থা হলে গলায় ও ঘাড়ে কুপিয়ে জখম করে নদীতে ফেলে দেন ফয়সাল।

এছাড়াও আমিনুরের ব্যবহৃত ফোন থেকে ওইদিন রাত ১০টার দিকে তার বাবার কাছে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন অপহরণকারী। এ সময় মুক্তিপণের টাকা পাইকগাছা সেতুর নিচে রাখতে বলা হয়। পরে আমিনুরের বাবা সুরমান গাজী দাবির কিছু টাকা নির্দিষ্ট স্থানে রেখে দূর থেকে লোক দিয়ে নিরীক্ষণ করেন। পরে ফয়সালকে টাকা নিয়ে ফেরার সময় আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়।

পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে আটক ফয়সাল জানান, তার প্রেমিকার মোটরসাইকেল কেনার আবদার রক্ষা করতে তিনি আমিনুরকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি করে।

কপিলমুনি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাওসার আলী জোয়ার্দ্দার বলেন, কপোতাক্ষ নদে আমিনুরের মরদেহ পাওয়া গেছে। পুলিশকে জানানোর পর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

জিএম/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS