logo
  • ঢাকা সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১১ মাঘ ১৪২৭

মেয়ের আত্মহত্যায় প্ররোচনাকারীদের বিচার চান বাবা

বাবা×যশোর×পুলিশ×মেয়ে×বাংলাদেশ×
আরটিভি নিউজ

যশোরের অভয়নগরে স্কুলপড়ুয়া মেয়েকে আত্মহত্যায় প্ররোচনাকারীদের বিচার চেয়ে যশোর জেলা পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন বাবা নেহাল তরফদার

গত জানুয়ারি যশোর জেলা পুলিশ সুপার বিষয়টি আমলে নিয়ে অভয়নগর থানা পুলিশকে তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছেন

নিহত তিশা উপজেলার পায়রাহাট টিএম আব্দুল হামিদ বালিকা বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী ছিলেন

অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, অভয়নগর উপজেলার পায়রা ইউনিয়নের কাদিরপাড়া গ্রামের নেহাল তরফদারের মেয়ে তিশাকে (১৩) উত্ত্যক্ত করতো একই গ্রামের মৃত মোনতাজ শেখের ছেলে ইকবাল হোসেন, মৃত মমিনউদ্দিন শেখের ছেলে রফিকুল ইসলাম বাবু, আব্দুর রাজ্জাক শেখের ছেলে মো. রুবেল, মৃত সলেমন শেখের ছেলে হালিম শেখ, আরজোব শেখের ছেলে বেল্লাল শেখ, মোজাহার শেখের ছেলে কাশেম শেখ, রহমান শেখের ছেলে নূরুজ্জামান, আতিয়ার শেখের ছেলে জসিম শেখ, আজিজ শেখের ছেলে ইসলাম শেখ, মিহজান শেখের স্ত্রী মিতু সলেমন শেখের ছেলে গফফার শেখ

গত বছর ডিসেম্বর মঙ্গলবার সকালে তিশা নিজবাড়ির পাশে একটি আমবাগানে পাতা কুড়াতে যায় ওই সময় ইকবাল হোসেন মো. রুবেল তিশাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে মারপিট করতে যায় তখন শিশু তিশা প্রাণ রক্ষায় দৌড়ে বাড়ি চলে আসে অপমান সইতে না পেরে ওইদিন বেলা আনুমানিক ১১টায় সে বিষপান করে পরিবারের সদস্যরা অসুস্থ তিশাকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই দিন দুপুরে তিশা মারা যায় মরদেহ বাড়িতে আনার পর দাফন করতে গেলে উল্লিখিত ব্যক্তিরা বাধা দেয় পরে অন্যত্র দাফন করা হয়

মেয়ে আত্মহত্যায় প্ররোচণাকারীদের বিরুদ্ধে বিচার না পেয়ে জেলা পুলিশ সুপার বরাবর আবেদন করা হয়েছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়

এর আগে উল্লিখিত অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে ২০১৯ সালের ১৫ ডিসেম্বর অভয়নগর থানায় জিডি করেছিলেন নেহাল তরফদার যার নম্বর ৪৮১

অভয়নগর থানার ইনসপেক্টর (তদন্ত) মিলন কুমার মণ্ডল জানান, তিশা আত্মহত্যার বিষয়টি তদন্তাধীন আছে

জেবি

RTV Drama
RTVPLUS