• ঢাকা বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
logo

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষের তথ্য অসত্য: সাঈদ খোকন

আরটিভি নিউজ

  ১৮ মে ২০২৪, ১৭:৪১
সাঈদ খোকন
ছবি : সংগৃহীত

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সাবেক মেয়র ও ঢাকা-৬ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেছেন, ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা নিয়ে ডিএসসিসির বর্তমান কর্তৃপক্ষ অসত্য তথ্য উপস্থাপন করেছে। ইতোমধ্যে ৩২ জন মারা গেছেন। বুঝতেই পারছেন, আগামীতে কী অবস্থা হতে পারে। আমরা একে অপরকে দোষারোপ না করি।

শনিবার (১৮ মে) জাতীয় প্রেস ক্লাবে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি। এ সময় আরেকজনের ঘাড়ে চাপিয়ে নিজের ব্যর্থতা ঢাকার চেষ্টা না করে আসন্ন ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি মোকাবিলার আহ্বান জানান সাবেক এই মেয়র।

এর আগে, বুধবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, তথ্য বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, ২০১৯ সালের থেকে ৪১ হাজারের মতো রোগী আমরা কম রাখতে পেরেছি এবার। ঢাকাবাসীকে আমরা সেই সুবিধা দিতে পেরেছি, ঢাকাবাসীকে রোগমুক্ত রাখতে পেরেছি, ঢাকাবাসীকে স্বাস্থ্যকর পরিবেশে আমরা রাখতে পেরেছি বলে দাবি করেন তিনি।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস মনগড়া ও অসত্য তথ্য দিচ্ছেন দাবি করে সাঈদ খোকন বলেন, আমি খুব দুঃখ পেলাম, কষ্ট পেলাম। কারণ, দু-তিন দিন আগে বর্তমান যে মেয়র বললেন, ১৯ সালের তুলনায় ২৩ সালে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে ছিল এবং আক্রান্তের সংখ্যা ৪১ হাজার কম ছিল। আমি কষ্ট পেয়েছি, নগরবাসী হতভম্ব ও অবাক হয়েছে। কারণ, আমরা গত বছর দেখেছি পত্র-পত্রিকার রিপোর্টিংয়ে— ২২ বছরের সব রেকর্ড ভেঙে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা তিন লাখের বেশি ছিল এবং সারা দেশে মৃতের সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৭০৫ জন। এটা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সূত্রমতে।

মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন ‘এগিয়ে ছিল দক্ষিণ ঢাকা, স্মৃতির পাতায় ফিরে দেখা’ শীর্ষক এ মিট দ্য প্রেসে তিনি আরও বলেন, ২০১৯ সালে যখন দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের দায়িত্বে আমি ছিলাম, তখন ডেঙ্গুর ছড়িয়ে পড়ে এবং পরিস্থিতি কিন্তু অনেকটাই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গিয়েছিল সে সময়। আমার চেষ্টার কোনো কমতি ছিল না। ওপরে আল্লাহ রাব্বুল আল-আমিন আছেন, তিনি সমস্ত কিছুর সাক্ষী, নিচে এই শহরের জনগণ। এই শহরের জনগণও সাক্ষী।

আমি চেষ্টা না করে বিদেশে চলে যাইনি। আমি জনগণের সঙ্গে ছিলাম। আমি চেষ্টা করে গেছি। দিন-রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে গেছি। আমার এই হাজার চেষ্টার পরেও আক্রান্ত সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে গিয়েছিল সারা দেশে। আমি দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের দায়িত্বে ছিলাম এবং সারা দেশে প্রায় ১৫৭ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। যাতে আমি অত্যন্ত ব্যথিত ছিলাম। আমি অনেক চেষ্টা করেও এই মৃতের সংখ্যা, আক্রান্তের সংখ্যা কমাতে পারিনি।

মেয়রের দায়িত্ব পালনকালের স্মৃতি তুলে ধরে তিনি বলেন, নাগরিক হিসেবে আমরা আশা করব, যে কোনো ইতিবাচক কাজের সূচনা; যদি নতুন নেতৃত্ব আসে, সেটাকে এগিয়ে নিয়ে জনগণের সেবায় নিয়জিত করাই হোক তাদের উদ্দেশ্য। কোনোভাবেই রাজনৈতিক কিংবা অন্য কোনো উদ্দেশ্যে আরেকজনকে অযথা প্রশ্নের সম্মুখীন, বিভিন্নভাবে অপবাদ দেওয়া, অপরাজনীতি করা এই শহরের জনগণ আশা করে না—এটা কাম্য নয়।'

মন্তব্য করুন

daraz
  • রাজধানী এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
কোরবানির ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য পরিষ্কারের আশ্বাস মেয়র তাপসের
ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আমরা সফল: মেয়র তাপস
ঢাকাবাসীকে গত বছর রোগমুক্ত রাখতে পেরেছি: তাপস
বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে ঢাকার সবুজায়ন আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে পৌঁছাবে: মেয়র তাপস