logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

ভাগনের অপহরণ নিয়ে ফেসবুক লাইভে কী বললেন সোহেল তাজ?

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১৯ জুন ২০১৯, ০৯:৫৭ | আপডেট : ২৩ জুন ২০১৯, ১৬:০৬
মামাতো বোনের ছেলে নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লাইভে এসে কথা বলেছেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমদ সোহেল তাজ। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিখোঁজ ভাগনে ইফতেখার আলম সৌরভের বাবা-মাকে নিয়ে তিনি ফেসবুক লাইভে আসেন।

এসময় সোহেল তাজ বলেন, ‘দেশের কল্যাণে আমি কিছু উন্নয়নমূলক কাজে অংশগ্রহণ করেছি। এরইমধ্যে আমার ভাগ্নে নিখোঁজ হলো। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে সম্মিলিতভাবে আমরা সৌরভকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি এবং আমি নিজে বিষয়টি তদন্ত করে দেখবো।’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গত ১৫ ঘণ্টায় বিষয়টি ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। প্রচুর ভিউয়ার তার এই ফেসবুক লাইভে কমেন্ট ও শেয়ার দিয়েছেন। অনেকেই এই ঘটনায় নিন্দা, প্রতিবাদ ও সহমর্মিতা জানিয়েছেন। তারা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সোহেল তাজের ভাগনেকে অবিলম্বে খুঁজে বের করার আহ্বান জানিয়েছেন।

ফেসবুক লাইভে দেখা যায়, ‘‘সোহেল তাজ নিখোঁজ সৌরভের বাবা ইদ্রিস আলম মানিকের কাছে প্রশ্ন করেন, থানা থেকে আপডেট দেয়ার জন্য আপনার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেছে? এসময় সৌরভের বাবা বলেন, থানা থেকে আমার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করা হয়নি। আমি নিজে থানায় খোঁজ করলে পাঁচলাইশ থানার ওসি বলেন, ‘আমরা এখনও কোনো খোঁজ পাইনি। আপনারা কোনো খোঁজ পেয়েছেন কি না?’ তখন আমি বললাম, আপনাদের কাছে সিসি টিভির ফুটেজসহ সকল প্রমাণাদি থাকার পরেও আপনারা খোঁজ নিতে পারছেন না, সেখানে আমি সাধারণ মানুষ হয়ে কিভাবে খোঁজ পাবো। তখন ওসি সাহেব বলেন, ‘গতকাল যে প্রেস কনফারেন্স করলেন সেটার কোনো ফলাফল পাননি এখনো?’’

এরপর সোহেল তাজ প্রশ্ন করেন, ‘পুলিশের কাছে যে ফুটেজ আছে তাতে কী দেখা যাচ্ছে? জবাবে সৌরভের বাবা বলেন, ফুটেজে দেখা যায় গত ৯ জুন সন্ধ্যা ৬টা কত মিনিটে আমার ছেলে কোথায় দাঁড়িয়ে ছিলো এবং তার সঙ্গে কারা যোগাযোগ করলো। তারপর তাকে একটি কালো গাড়িতে করে তুলে নিয়ে যায়। এর আগে ঢাকার বনানী বাসা থেকে গত রমজান মাসে মে মাসের ১৬ তারিখে যারা তুলে নিয়ে গেছিলো র‌্যাব-১ পরিচয়ে তারাই গত ৯ জুন সকালে সৌরভকে ফোন করে দেখা করতে বলে।’

সোহেল তাজ আরও বলেন, ‘এই ঘটনা যারা স্বচক্ষে দেখেছেন আমরা তদের কাছে যাবো ও বিস্তারিত শুনবো। আমি ব্যক্তিগতভাবে আইনের শাসনে বিশ্বাস করি। কেউ অন্যায় করলে গণতান্ত্রিক দেশের নিয়মে তাকে দোষী সাব্যস্ত করে সাজা দেওয়াটাই নিয়ম। আমাকে ছোটবেলা থেকেই সেই বিশ্বাসে মানুষ করা হয়েছে এবং আমি নিজেকেও সেই নীতি ও আদর্শে সবসময় পরিচালিত করেছি। সৌরভ শুধু আমার ভাগ্নে না, সে এই দেশেরই একটি ছেলে। তাকে জীবিত ফিরে পেতে আমরা সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।’

এসময় সোহেল তাজের মামাতো বোন ও নিখোঁজ সৌরভের মা সৈয়দা ইয়াসমিন আরজুমান বলেন, ‘গত রমজান মাসে যারা ডেকে নিয়েছিলেন তারাই আইটি বিভাগে চাকরি দেয়ার কথা বলে সার্টিফিকেট নিয়ে ঢাকায় দেখা করতে বলেন। এরপর গত ৯ তারিখে তাকে জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি এবং সার্টিফিকেটের ফটোকপি নিয়ে চট্টগ্রামে ২ জন অফিসারের সঙ্গে দেখা করতে বলেন। তাদের কথামতো সেখানে গিয়ে আর ফিরে আসেনি সৌরভ।’

পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়