• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

গুলশান ক্লাবে বাড়তি নিরাপত্তা জোরদার

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৪ মার্চ ২০১৯, ১৮:০৭ | আপডেট : ২৪ মার্চ ২০১৯, ১৮:৩৮
রাজধানীর গুলশান ক্লাব ও গুলশান এলাকায় যেনো কোন রকম অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে তার জন্য বাড়তি নিরাপত্তা জোরদার করেছে পুলিশ। 

whirpool
গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক বিষয়টি আরটিভি অনলাইনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ক্লাবের সদস্যদের আমরা রেড এলার্ট জারি করিনি। তবে ক্লাবের বাহিরে বাড়তি নিরাপত্তা ও তল্লাশি বাড়িয়েছি। বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে চলছে গেল কয়েকদিন ধরে। এছাড়া মঙ্গলবার ২৬ এ মার্চ। এ বিষয়গুলো মাথায় রেখে আমরা এ বাড়তি নিরাপত্তা জোরদার করেছি। 

---------------------------------------
আরো পড়ুন: প্রাথমিক সমাপনীতে বৃত্তি পাবে ৮২,৫০০ শিক্ষার্থী: প্রতিমন্ত্রী
---------------------------------------

এদিকে গুলশান ক্লাবের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) নুরুল আলম গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ক্লাবের সদস্যদের নিরাপত্তার জন্য ক্লাবটির সদস্যদের সতর্কতা জারি করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। ডিএমপির পক্ষ থেকে এ সতর্কতা জানানো হয়।

তিনি আরও বলেন, ডিএমপির পক্ষ থেকে আমাদের ক্লাবের সদস্যদের নিরাপত্তার লক্ষ্যে পূর্ব সতর্কতা হিসেবে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। আমরা আমাদের সব সদস্যের কাছে এই বার্তা পাঠিয়ে দিয়েছি। এ ছাড়া পুলিশের সতর্কতার পর ক্লাবের প্রাঙ্গণে বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুলিশ ক্লাবের সামনের চেকপোস্টে অতিরিক্ত সদস্য মোতায়েন করেছে।

উল্লেখ্য- ১৯৭৮ সালের ডিসেম্বরে ঢাকার গুলশান, বনানী ও বারিধারার কতিপয় ব্যক্তির উদ্যোগে গুলশান ক্লাব প্রতিষ্ঠিত হয়। জয়েন্ট স্টক কোম্পানি অ্যাক্ট ১৯৯৩-এর আওতায় ক্লাবটি প্রতিষ্ঠিত হয় এবং এ অ্যাক্ট অনুযায়ী ক্লাবের নাম নির্ধারিত হয় গুলশান ক্লাব লিমিটেড। শুধু গুলশান, বনানী ও বারিধারার অধিবাসীরাই এ ক্লাবের সদস্য হতে পারেন। তবে বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে তার ব্যতিক্রমও হয়। ক্লাবের কার্যসূচি পরিচালনার জন্য সভাপতি সহ ১২ সদস্যবিশিষ্ট পরিচালনা পর্ষদ আছে। ক্লাবে আট ধরনের সদস্য রয়েছে যেমন, স্থায়ী সদস্য, ডোনার, আজীবন সদস্য প্রভৃতি। ক্লাবের নিয়মানুযায়ী সদস্য সংখ্যা ৯০০-এর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে।

প্রাথমিক পর্যায়ে ক্লাবটির ভবন একতালা ছিল। পরবর্তী পর্যায়ে এটিকে সম্প্রসারণ করা হয়। গুলশান ক্লাবকে পারিবারিক ক্লাব বলা হয়, কেননা পরিবারের সকল সদস্য বিনোদনের জন্য ক্লাবে সময় কাটাতে পারে। প্রাথমিক পর্যায়ে খেলাধুলা ছাড়া বিনোদনের জন্য ব্যবস্থা সীমিত ছিল। তবে বর্তমানে ক্লাবের কর্মসূচি বিস্তৃত হয়েছে। ক্লাবে এখন রেস্টুরেন্ট, জিম, টেনিস কোর্ট, স্কোয়াশ কোর্ট ইত্যাদির সুযোগ সুবিধা রয়েছে।

আরো পড়ুন: 

এমসি/এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়