logo
  • ঢাকা রোববার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

নুরদের গ্রেপ্তারের দাবি: শাহবাগে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের অবরোধ

Demand for arrest of Nur: Blockade of Muktijuddha Mancha in Shahbag
শাহবাগে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের অবরোধ
ধর্ষণ মামলায় ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরসহ তার সহযোগীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নিয়েছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। এই মুহূর্তে সেখানে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে বলে জানা গেছে। ফলে চলাচলে পথচারীদের ব্যাপক হয়রানির মধ্যে পড়তে হচ্ছে।

আজ শনিবার (১০ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তারা শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নিয়ে ধর্ষণের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। এসময় তারা পৃথক দুটি ধর্ষণ মামলায় সহযোগী হিসেবে অভিযুক্ত সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরসহ অন্য ৫ আসামির গ্রেপ্তারের জোর দাবি জানান। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ থেকে বারবার বলা হচ্ছে নুরসহ অন্যদের দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রেপ্তার করা না হলে শিগগিরই কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

এদিকে সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের বহিষ্কৃত আহ্বায়ক হাসান আল মামুন ও যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হাসান সোহাগের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও তাকে সহায়তাকারী হিসেবে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরসহ মোট ৬ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলার বাদী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ছাত্রী অনশনে চালিয়ে যেতে যেতে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তার অনশন আজ দ্বিতীয় দিনে গড়িয়েছে। শারীরিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ায় গতকাল শুক্রবার রাত থেকেই তার প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

রোকেয়া হলের সাবেক এজিএস ফাল্গুনী দাস তন্বী আরটিভি নিউজকে বলেন, ডা. শেখ মো. আল আমিনের নেতৃত্বে একটি চিকিৎসক টিম রাতে ওই ছাত্রীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়। আমরা তাকে খাবার গ্রহণের জন্য অনেক অনুরোধ করেছি। কিন্তু তিনি আসামিদের না ধরা পর্যন্ত আমরণ অনশনে করতে সংকল্পবদ্ধ। পরে চিকিৎসক টিম এসে তাকে স্যালাইন দিয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, প্রক্টরিয়াল টিম ওই ছাত্রীর সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্বে কাজ করছেন। রাতে আমাদের সহকারী প্রক্টর তাকে দেখে এসেছেন। ওই শিক্ষার্থীর পাশে আমরা আছি। তার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে যা যা করা দরকার, তা করা হচ্ছে।

গত ২০ সেপ্টেম্বর রাতে রাজধানীর লালবাগ থানায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা (নং-২৮) দায়ের করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী। সেই মামলায় ৬ জন এজহারনামীয়ের মধ্যে নুর ৩ নম্বর আসামি। মামলায় নুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণে সহযোগিতার অভিযোগ আনা হয়। এজহার অনুযায়ী মামলার অন্য আসামিরা হলো- হাসান আল মামুন, নাজমুল হাসান, নুরুল হক নুর, মো. সাইফুল ইসলাম, নাজমুল হুদা ও আবদুল্লাহ হিল বাকি। 

২০১৮ সালের কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের অন্যতম যুগ্ম-আহ্বায়ক হিসেবে নুরুল হক নুর আলোচনায় আসেন। এরপর ২০১৯ সালের ১১ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে সহ-সভাপতি (ভিপি) পদে ১১ হাজার ৬২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন তিনি। 
কেএফ/পি

আরও পড়ুনঃ

মা কারখানায়, অসুস্থ মেয়েকে ধর্ষণ করলো বাবা

সালিসের টাকা পেল না দলবেঁধে ধর্ষণের শিকার কিশোরী

খালি ঘরে ধর্ষণ করতে গিয়ে হাতেনাতে যুবক আটক


 

RTVPLUS