logo
  • ঢাকা সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ২৩ চৈত্র ১৪২৬

করোনা আপডেট

  •     ভারতে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩২, মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১১৮ জনে, আক্রান্ত মোট ৪২৯৮: স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। বিশ্বব্যাপী মৃত্যু ৬৯ হাজার ৪৫৬ জন এবং আক্রান্তের ১২ লাখ ৭৩ হাজার ৭০৯ জন, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ লাখ ৬২ হাজার ৪৮২ জন। সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ইতালিতে ১৫ হাজার ৮৮৭, আক্রান্ত এক লাখ ২৮ হাজার ৯৩৮ জন, দ্বিতীয় অবস্থানে স্পেন। এখন পর্যন্ত মৃত্যু ১২ হাজার ৬৪১ জনের এবং আক্রান্ত ১ লাখ ৩১ হাজার ৬৪৬ জন: ওয়ার্ল্ডমিটার। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে একদিনে রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত ১৮ জন, মৃত্যু ১, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ৫৫ জন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

এই ছুটি ক্রিকেট খেলতে নয়, ঘরে থাকার জন্য: শচীন

স্পোর্টস ডেস্ক আরটিভি অনলাইন
|  ২৬ মার্চ ২০২০, ১০:০৯
coronavirus
শচীন টেন্ডুলকার
ভারত জুড়ে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত সব কিছু বন্ধ রাখার ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী ‌নরেন্দ্র মোদি। ক্রিকেট কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকার এই লড়াইয়ে সবাইকে এক হতে আহ্বান জানিয়েছেন। 

টুইট পোস্টে টেস্ট ও ওয়ানডেতে ১০০ সেঞ্চুরির মালিক লিখেছেন, ‘সহজ জিনিস কখনও করতে খুব কঠিন মনে হয়।  কারণ সেটা করতে টানা নিয়মানুবর্তিতা ও স্থির মানসিকতার প্রয়োজন হয়। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২১ দিন নিরাপদ থাকতেই আমাদের বাড়িতে অবস্থান নিতে বলেছেন। এই সহজ কাজটি করতে পারলে প্রচুর মানুষের জীবন বাঁচানো যাবে। কোভিড-নাইনটিন এর বিরুদ্ধে লড়াই চলুন সবাই ঐক্যবদ্ধ হই।’

লকডাউন ঘোষণা আসার পর একের পর এক বার্তা দিচ্ছেন দেশটির ক্রিকেটাররা। বিরাট কোহলি, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, সুরেশ রায়না, রবি শাস্ত্রীর পর এবার ভারতের ‘ক্রিকেট ঈশ্বর’ খ্যাত টেন্ডুলকার জনসাধারণকে বাসায় থাকতে বললেন। 

এদিকে আরেক ভিডিও বার্তায় শচীন বলেন, ‘আমাদের সরকার ও দুনিয়া জুড়ে স্বাস্থ্য পরামর্শকরা যখন বলছে ঘরে থাকার জন্য, ঠিক এমন সময় বেশ কয়েকটি ভিডিও দেখলাম অনেকেই বাইরে ক্রিকেট খেলছেন। সবাই মনে করছেন বাইরে যাই, বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেই, খেলি। মনে রাখতে হবে এটা দেশের জন্য অনেক ক্ষতিকর। এখন ছুটির সময় না।’ 

বাসায় অবস্থান করা নিজের পরিবারের সঙ্গে ভালো সময় কাটানোর সুযোগ হিসেবে দেখছেন মাস্টার ব্লাস্টার খ্যাত এই ব্যাটসম্যান।

‘করোনা ভাইরাস যদি আগুন হয়ে থাকে তাহলে সেটার বাতাস আপনি। এই ভাইরাসকে রুখে দিতে একটাই সমাধান। সেটা হচ্ছে নিজ নিজ বাসায় অবস্থান করুন। চিকিৎসা কর্মীরা যারা আমাদের জন্য জীবন ঝুঁকি রেখে কাজ করছেন। তাদের জন্যতো এতটুকু করা আমাদের কর্তব্য। আমি ও আমার পরিবার গেল ১০ দিন বাসায় আছি। আগামী ২১ দিন এখানেই থাকব। এটাকে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর বড় সুযোগ হিসেবে দেখুন। আপনি আমাদের সমাজ, রাষ্ট্র ও বিশ্বকে বাঁচাতে পারবেন। শুধু নিজ ঘরে অবস্থান করুন।’

গেল রোববার ‘জনতা কারফিউ' ঘোষণা করেছিলেন মোদি। পুরো দেশ এতে সারা দেয়। এরপর মঙ্গলবার ২১ দিনের লকডাউনের ঘোষণা দেন ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) এই নেতা।

ওয়াই

সংশ্লিষ্ট সংবাদ : করোনাভাইরাস

আরও
corona
দেশ আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ৮৮ ৩৩
বিশ্ব ১২৭৩৯৯০ ২৬০১৯৩ ৬৯৪১৯
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • খেলা এর সর্বশেষ
  • খেলা এর পাঠক প্রিয়