logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬

ছাড় দিতে নারাজ মাশরাফি

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৪ মে ২০১৯, ১২:৫২ | আপডেট : ১৪ মে ২০১৯, ১৩:০৪
মাশরাফি বিন মুর্তজা || ফাইল ছবি
একটি ম্যাচ বৃষ্টির জন্য পরিত্যক্ত, দুটিতেই দাপটের সঙ্গে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। এরই মধ্যে ত্রিদেশীয় সিরিজে টেবিল টপার হয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে টাইগাররা। মাশরাফি বিন মুর্তজা নেতৃত্বাধীন দলটির মোট পয়েন্ট ১০। সমান সংখ্যক ম্যাচ খেলে আয়ারল্যান্ডের পয়েন্ট ২। অবস্থান সবার নিচে। অন্যদিকে চার ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

শুক্রবার ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ক্যারিবীয়রা। তার আগে বুধবার আইরিশদের বিপক্ষে নিয়মরক্ষার ম্যাচে আইরিশদের বিপক্ষে মুখোমুখি হবে স্টিভ রোডসের শিষ্যরা। যদিও এই ম্যাচে ছাড় দিতে নারাজ টাইগার দলপতি।

সোমবার ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে পাঁচ উইকেটে জয় পায় বাংলাদেশ। ম্যাচ জেতানোর পেছনে অধিনায়ক মাশরাফির অবদানও কম নয়। ১০ ওভার বল করে তুলে নিয়েছেন তিনটি উইকেট। দুই ইনিংসে বল করে মোট ছয় উইকেট তুলে নিয়েছেন ৩৫ বছর বয়সী এই তারকা।

মালাহাইডের দ্য ভিলেজে এদিন সুনীল অ্যামব্রিস, শাই হোপ ও জেসন হোল্ডারকে ফিরিয়ে দেন মাশরাফি। আগের ম্যাচে আইরিশদের বিপক্ষে ১৪৮ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেছিলেন অ্যামব্রিস। যদিও এদিন ১৯ বলে ২৩ রান করে স্লিপে থাকা সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ দিয়ে মাঠ ছাড়েন ডান-হাতি এই ওপেনার।

এই ম্যাচে ফের সেঞ্চুরির পথে এগোচ্ছিলেন শাই হোপ। ফর্মের তুঙ্গে থাকা এই ব্যাটসম্যানের উইকেটও তুলে নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। ১০৮ বলে ৮৭ রানে থেমেছেন মুশফিকুর রহিমের গ্লাভসে বল দিয়ে। এই নিয়ে চার ইনিংসে ব্যাট করে ৩৯৬ রান সংগ্রহ করেছিলেন তিনি।

বাংলাদেশের বিপক্ষে ৯৯ রানে চার উইকেট হারিয়ে হাবুডুবু খেতে থাকা উইন্ডিজদের হাল ধরেছিলেন অধিনায়ক জেসন হোল্ডার। শাই হোপের সঙ্গে শত রানের জুটি গড়েছিলেন হোল্ডার। তুলে নিয়েছিলেন ক্যারিয়ারের অষ্টম অর্ধশতকও। কিন্তু লোহা কেটেছে লোহাই। এক অধিনায়ককে আরেক অধিনায়ক তুলে নিয়েছিলেন। শেষ পর্যন্ত মাশরাফির বলেই আউট হন হোল্ডার।

মাশরাফির গুরুত্বপূর্ণ উইকেটগুলো ছাড়াও মুস্তাফিজুর রহমান নেন চারটি উইকেট। একটি করে উইকেট তুলে নেন সাকিব আল হাসান ও মেহেদী হাসান মিরাজ। আর তাই জয়ের জন্য বোলারদেরই এগিয়ে রেখেছেন মাশরাফি।

ফাইনাল নিশ্চিত করার পর মাশরাফি বলেন, যেভাবে আমরা জিতলাম, সেটি স্বস্তিদায়ক। আমি মনে করি আমাদের বোলিংটা বেশ ভালো হয়েছে। যদিও শুরুটা তেমন হয়নি। ভাগ্যবান ছিলাম তাই ব্রেকথ্রু পেয়েছি। মাঝের ওভারে মুস্তাফিজ বেশ ভালোই করেছে। সাকিব ও মিরাজও। আমাদের কাছে ফাইনালে পৌঁছানোটাই মূল ব্যাপার। ছেলেরা এখন খানিক স্বস্তিতে আছে। হাতে রয়েছে এখনও দুই ম্যাচ। আমরা ছাড় দিতে রাজি নই। ফাইনালে কী হবে সেটিই এখন দেখার বিষয়।

ওয়াই/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়