• ঢাকা রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ১০ চৈত্র ১৪২৫

টাইগারদের শতভাগ জয়ের মাঠ

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২১:২৪ | আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৬:৪১
২০০৫ সালে কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনসে ১০১ বলে ১০০ রানের ম্যাচ জয়ী ইনিংস খেলেছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল
ইংল্যান্ডের ওয়েলসে অবস্থিত বিখ্যাত ক্রিকেট মাঠ কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনস। ১৯৬৭ সাল থেকে  মাঠটি ইংলিশ কাউন্টি দল গ্ল্যামরগানের অধীনে পরিচালিত হয়ে আসছে। এ মাঠের দুই প্রান্ত পরিচিত রিভার টাফ প্রান্ত ও ক্যাথেড্রাল রোড প্রান্ত। ছোট এই মাঠের দর্শক ধারণক্ষমতা মাত্র ১৫ হাজার ৬৪৩ জন।

আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সোফিয়া গার্ডেন যাত্রা শুরু করে ১৯৯৯ সালের ২০ মে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার ওয়ানডে ম্যাচের মধ্য দিয়ে। এরপর ২০০৯ সালের ৮-১২ জুলাই এই দুই দলের ম্যাচ দিয়েই এই সবুজ বাগানে শুরু হয় টেস্ট ক্রিকেটের পথযাত্রা। 

২০১০ সালের ৫ সেপ্টেম্বর ইংল্যান্ড-পাকিস্তানের ম্যাচ দিয়ে টি-টোয়েন্টি ভেন্যু হিসেবেও যাত্রা শুরু করে সোফিয়া গার্ডেন।

২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড ম্যাচ শুরুর আগে সোফিয়া গার্ডেনসের গ্যালারি

কার্ডিফের ২২ গজে এখন পর্যন্ত ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হয়েছে ৪৪টি। যেখানে হার-জিত নিশ্চিত হয়েছে ৩৬টি ম্যাচে। টাই হয়েছে দুটি আর ফলাফল আসেনি ৬টি ম্যাচের।

এই সবুজ গালিচায় সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলা দল ইংল্যান্ড। স্বাগতিকরা খেলেছে ১১টি ম্যাচ, আর সবচেয়ে কম ১টি ম্যাচ খেলেছে জিম্বাবুয়ে। 

খেলার পরিসংখ্যানের মতোই জয়ের পাল্লাও ভারী ইংলিশদের। এই মাঠে সর্বোচ্চ ৬টি জয় পেয়েছে তারা। অন্যদিকে ১টিও জয় পাওয়াদের দলে রয়েছে শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবুয়ে। এ পর্যন্ত ভেন্যুটিতে দুটি ম্যাচে অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ। ২০০৫ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ উইকেটের ঐতিহাসিক জয় পেয়েছিল টাইগাররা। ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পাঁচ উইকেটের কাব্যিক জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন সাকিব-মাহমুদুল্লাহরা। সেদিন রিয়াদ-সাকিব দুজনেই খেলেছিলেন শট রানের ইনিংস। অর্থাৎ এই মাঠে বাংলাদেশের জয়ের সমীকরণ ১০০ শতাংশ।

এবারের বিশ্বকাপে চারটি ম্যাচ আয়োজিত হবে এই মাঠে। ৮ জুন স্বাগতিক ইংল্যান্ড আতিথেয়তা দিবে বাংলাদেশকে। ম্যাচটি খেলার আগে নিজেদের লাকি ভেন্যুতে ২৬ মে পাকিস্তান ও ২৮ মে ভারতের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে অংশ নেবে মাশরাফি বিন মুর্তজা নেতৃত্বাধীন দলটি।

এদিকে ১ জুন কার্ডিফে লডবে আফগানিস্তান ও নিউজিল্যান্ড। এছাড়া ৪ জুন আফগানদের বিপক্ষে মাঠে নামবে শ্রীলঙ্কা। ১৫ জুন আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে দক্ষিণ আফ্রিকা।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২২৪ রানের জুটি গড়ে জোড়া শতক হাঁকান সাকিব আল হাসান ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ

সোফিয়া গার্ডেনে সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহের কীর্তি ভারতের। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৮ উইকেটে তাদের সংগ্রহ ছিল ৩৩১ রান। এ মাঠে সর্বনিম্ন স্কোরের লজ্জাটা পেয়েছে শ্রীলঙ্কা। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তারা অল-আউট  হয়েছিলো মাত্র ১৩৮ রানে।

কার্ডিফের পরিসংখ্যানে থ্রি লায়নরাই (ইংল্যান্ড) সবচেয়ে শক্তিশালী অবস্থানে। ১১ ম্যাচে ৬ জয়, ২টি হারের পাশাপাশি ৩টি পরিত্যক্ত ম্যাচের সাক্ষীও হয়েছে তারা।

ওয়াই/এমআর

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়