logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

সাকিবের পূজায় যোগ দেয়া নিয়ে যা বলছেন কলকাতার আয়োজকরা

সাকিবের পূজায় যোগ দেয়া নিয়ে যা বলছেন কলকাতার আয়োজকরা
ফাইল ছবি
সাকিব আল হাসান কলকাতায় একটি কালীপূজার উদ্বোধনে থাকা নিয়ে যে সমালোচনা হচ্ছে, সেটা কখনো কাম্য নয়। এটি উগ্র মৌলবাদীদের কাজ বলে মনে করেন ওই পূজা কমিটির প্রধান উদ্যোক্তা ও তৃণমূল কংগ্রেস নেতা পরেশ পাল।

তিনি বলেন, সাকিব আল হাসান পূজা উদ্বোধন করেনি। মুসলিম হয়েও হিন্দুদের পূজায় কেন হাজির ছিলেন এমন প্রশ্ন তুলে তার সমালোচনা করা আসলেই খুব দুঃখজনক।

যে পূজা নিয়ে এত আলোচনা সেটি উদ্বোধন করেছিলেন এক হিন্দু সন্ন্যাসী। এই তথ্যটি নিশ্চিত করেন পূর্ব কলকাতার বেলেঘাটা অঞ্চলের বিধায়ক পরেশ পাল। 

যে কালীপূজার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে বাংলাদেশে সমালোচনার মুখে পড়েছেন তারকা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। সেই পূর্ব কলকাতার কাঁকুড়গাছি এলাকার মণ্ডপটি এখন ফাঁকা।

প্রতিমা বিসর্জন হয়ে গেলেও সেখানে মণ্ডপের চারদিকে এখনও বড় বড় হোর্ডিংয়ে সাকিব আল হাসানের ছবি ছড়িয়ে রয়েছে। অন্যদিকে উদ্বোধনী মঞ্চটিও এখনও রয়েছে যার একদিকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর প্রতিকৃতি।

পূজাটির মূল উদ্যোক্তা এলাকার বিধায়ক পরেশ পাল ৫৯ বছর ধরে এই কাজটি করে যাচ্ছেন। মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় সেই স্থানে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, শুনেছি যে সাকিব দেশে ফেরার পরে তাকে প্রাণে মারার হুমকি দেয়া হয়েছে। একটি মৌলবাদী শক্তিই এসব বলছে। বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের মতামত এটা হতে পারে না। আমারও জন্মভিটা বাংলাদেশে। আমি বাংলাদেশের মানুষকে খুব ভালো করে জানি তারা এসব বলতে পারে না।

পরেশ পাল আরও বলেন, সাকিব যেদিন এসেছিলেন সেদিন কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিমও ছিল। হাকিম প্রতিবছরই আমার পূজার উদ্বোধনে থাকেন। এবছর কলকাতায় বাংলাদেশ উপরাষ্ট্রদূতসহ একাধিক মুসলমান ধর্মাবলম্বী অফিসার হাজির ছিলেন। কিন্তু তারা কেউই পূজার ধর্মীয় কোনও কাজ তো করে নাই। প্রতিমা উদ্বোধন করেছেন আদ্যাপীঠের কালী পূজারী হিন্দু সন্ন্যাসী মুরাল ভাই। 

পূজার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের ভিডিও দেখিয়ে তিনি বলেন, সেখানে একটা বড় প্রদীপ রাখা ছিল। সকলেই সেই প্রদীপটা জ্বালিয়েছেন। আমি যেমন জ্বালিয়েছি তেমন সাকিব আল হাসান, ফিরহাদ হাকিম সবাই জ্বালিয়েছেন। প্রদীপ জ্বালালেই কি জাত যায় নাকি?  সূত্র : বিবিসি বাংলা

জিএম/এসএস

RTVPLUS