• ঢাকা সোমবার, ২১ জানুয়ারি ২০১৯, ৮ মাঘ ১৪২৫

‘লাডি লন একশ লাডি’: জয়নুল আবদিনের নাশকতার ফোনালাপ ফাঁস (অডিও)

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ১২:১১ | আপডেট : ২৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৮:০৯
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিএনপির দুই নেতার আরও দুটি ফোনালাপ ফাঁস হয়েছে। যেখানে নির্বাচনে নাশকতা করার জন্য দলের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিতে শোনা যায়। এর মধ্যে একটিতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এবং নোয়াখালী-২ আসনের দলীয় প্রার্থী জয়নুল আবদিন ফারুককে এক কর্মীর কাছে বিস্ফোরক দ্রব্য পাঠানোর কথা শোনা যায়। এমন খবর প্রকাশ করেছে সময়টিভি।

অন্যদিকে লক্ষ্মীপুর-২ আসনের বিএনপি প্রার্থী আবুল খায়ের ভূঁইয়াকে নেতাকর্মীদের দেশীয় অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে প্রতিপক্ষের ওপর হামলার নির্দেশ দেয়ার অডিও প্রকাশ করা হয়েছে।

নির্বাচনের আগ মুহূর্তে বিএনপি প্রার্থীদের একের পর এক নাশকতার পরিকল্পনার তথ্য জানা যাচ্ছে। সর্বশেষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাঁস হওয়া দলটির নোয়াখালী-২ ও লক্ষ্মীপুর-২ আসনের প্রার্থীর আলাদা দুটি ফোনালাপে নাশকতার পরিকল্পনার কথা জানা যায়।


ফাঁস হওয়া ফোনালাপ

জয়নুল আবদিন ফারুক: সাক্কু ভাই! আমি আপনার ৭টা সেন্টারের জন্য ৪ কেজি ১৫ পাউন্ড ডিআইটি।

সাক্কু: হ্যাঁ!

জয়নুল আবদিন ফারুক: বুজঝেন তো?

সাক্কু: বুজঝি, ওকে।

আরেকটি ফোনালাপে আলাউদ্দীন নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলেছেন জয়নাল আবদিন ফারুক:

জয়নুল আবদিন ফারুক: লাঠি, লাঠি ছিলছেন?

সাক্কু: হ্যাঁ।

জয়নুল আবদিন ফারুক: কয়টা ছিলছেন?

আলাউদ্দিন: বাঁশ কাটছি।

জয়নুল আবদিন ফারুক: লাঠি লন, একশ লাঠি লন। যা করেছি জীবনে আর কিছু লাগব না।

অপর একটি ফোনালাপে লক্ষ্মীপুর-২ আসনের বিএনপি প্রার্থী আবুল খায়ের ভূঁইয়া দলীয় নেতার্মীদের দেশীয় অস্ত্র নিয়ে জড়ো হওয়ার নির্দেশ দেন।

আবুল খায়ে ভূঁইয়ার ফোনালাপ:

দুলাল: স্যার, আমাদের পোলাপানদের তো মাইরত্যাছে, দৌড়াইত্যাছে।

আবুল খায়ের ভূঁইয়া: হ্যাঁ, ঠিক আছে এখন তোমরা নিজেরা ৮-১০ জন মিলে ঘুরো। লাঠি, সোটা, রাম দা নিয়ে এবার ওদের দৌড়াও।

দুলাল: স্যার, আমরা নির্বাচন কিভাবে? কেমন করে করবো বুঝতাছি না?

আবুল খায়ের ভূঁইয়া: কোনও ভয় নাই। আমি আছি। তারা মারামারি করবে। তোমরা কি চুমা দিবা নাকি দৌড় দিবা? নাকি মাইর খাবা?

আরেকটি ফোনালাপে আবুল খায়ের ভূঁইয়া ও মিনুর কথোপকথন:

আবুল খায়ের ভূঁইয়া: মিনু, কেন্দ্রে থাকবা তো?

মিনু: ভাই ওরা আজ বাড়িতে গিয়ে হামলা দিসে।

আবুল খায়ের ভূঁইয়া: আচ্ছা ঠিক আছে। এখন হামলা দিসে শুনছি। যদি ব্যাটা হও, তাহলে কাল থেকে লোক যোগাও। ২০-১৫ জন লোক যোগাও। খাসেরহাটে রাম দা, বল্লম-টল্লম যা আছে সবকিছু নিয়ে কালকে বের হও।

তোমরা কাল ওদের দৌড়ানি দিবা। লোক যোগাতে হবে। কেন্দ্রে পোলিং এজেন্ট নিয়ে বসে পড়ো।

এর আগে আরেকটি ফোনালাপে বিএনপির স্থানীয় কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীদের কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ নিতে সব ধরনের কৌশল কার্যকর করতে বলেন। এছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজউদ্দিন আহমেদকে শিবিরকর্মীদের পোলিং এজেন্ট নিয়োগের নির্দেশ দিতে শোনা যায়।

 

পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়