logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

সংসদ উপ-নির্বাচনে ৮৬ শতাংশ ভোটার আসেনি

election, Nirbachon, commission
নির্বাচন কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কমছে
নির্বাচনে ভোটারের উপস্থিতি কমছে আশঙ্কাজনক হারে। এখন নির্বাচন মুখি হচ্ছেন না ভোটাররা। যা সম্প্রতি জাতীয় নির্বাচন, সিটি করপোরেশন ও উপজেলা নির্বাচনগুলোতে ভোটারদে উপস্থিতি ছিল কম। ভোটারদের ভোট দেওয়ার ক্ষেত্রে উপস্থিত বাড়াতে সংশ্লিষ্ট সংস্থার কোনো পরিকল্পনা চোখে পড়ছে না।

নির্বাচন বিশ্লেষকদের মতে, এভাবে জাতীয় সংসদ, সিটি করপোরেশন ও অন্যান্য নির্বাচনে ভোটারের উপস্থিত কমায় গণতন্ত্রের জন্য হুমকি। যত দ্রুত সম্ভব ভোটারদের  ভোট কেন্দ্রে আসার জন্য নির্বাচন কমিশনকে উদ্যোগ নিতে হবে।

আজ বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) ঢাকা-১৭ আসনের উপনির্বাচন উপনির্বাচনে ৮৬ শতাংশ ভোটার উপস্থিত হয়নি। এর আগের নির্বাচনগুলোও কমবেশি একই চিত্র ফুটে উঠে। ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনে ভোট পড়েছে মাত্র ১৪.১৮ শতাংশ।  এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৫ লাখ ৭৭ হাজার ১৮৮ জন, এর মধ্যে মোট ভোট পড়েছে মাত্র ৮১ হাজার ৮১৮ ভোট। অর্থাৎ, ভোট দিতে যাননি ৮৬ শতাংশ নাগরিক।

বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা-১৮ আসনে উপনির্বাচনে মাত্র ৭৫ হাজার ৮২০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী হাবিব হাসান।  তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন পেয়েছেন ৫ হাজার ৩৬৯ ভোট। রিটার্নিং অফিসার জিএম সাহাতাব উদ্দিন স্বাক্ষরিত ফলাফলে আরও জানা যায়, নির্বাচনে জাতীয় পার্টির নাসির উদ্দিন সরকার পেয়েছেন ৩২৫ ভোট, মাছ মার্কা নিয়ে গণফ্রন্ট থেকে কাজী মো. শহীদুল্লাহ পেয়েছেন ১২৬, ডাব মার্কা নিয়ে উমর ফারুক নামে বাংলাদেশ কংগ্রেস প্রার্থী পেয়েছেন ৯১ ভোট।  এছাড়া মুহিবউল্লা বাহার (পিডিপি) বাঘ মার্কা নিয়ে পেয়েছেন ৮৭টি ভোট।  মোট ভোট পড়েছে মাত্র ৮১ হাজার ৮১৮ ভোট।

অন্যদিকে সিরাজগঞ্জ-১ আসনের উপনির্বাচনে ভোট সিরাজগঞ্জের কাজীপুর, সদরের একাংশ ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত এ আসনে ভোটার তিন লাখ ৪৫ হাজার ৬০৩ জন। এরমধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রয়াত মোহাম্মদ নাসিমের সিরাজগঞ্জ-১ (কাজিপুর ও আংশিক সদর) আসনে উপ-নির্বাচনে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হলেন তারই ছেলে প্রকৌশলী তানভীর শাকিল জয়। নৌকা প্রতীকে ১ লাখ ৮৮ হাজার ৩২৫ ভোট (৫২ শতাংশ) পেয়ে তিনি বেসরকারিভাবে বিজয়ী হন। তার একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী সেলিম রেজা পেয়েছেন মাত্র ৪৬৮ ভোট। কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাহিদ হাসান সিদ্দিকী রাত ১০টায় ফলাফল নিশ্চিত করেন।

নির্বাচনে ভোটারদের উপস্থিত কমলেও ঢাকা-১৮ ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনের উপনির্বাচন বিষয়ে নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. আলমগীর বলেছেন, ভোট সব জায়গায় শান্তিপূর্ণভাবেই হয়েছে। কোথাও কোনো খারাপ খবর পাইনি। গণমাধ্যমেও দেখিনি যে, ভোটকেন্দ্রে গণ্ডগোল হয়েছে, মারামারি হয়েছে বা ভোটকেন্দ্র বন্ধ করে দিতে হয়েছে, এ ধরনের কোনো ঘটনা দেখিনি। বিএনপির অভিযোগ জেনারেল।

প্রসঙ্গত, সংসদের উপনির্বাচন, সিটি করপোরেশন, উপজেলা, ইউনিয়ন পরিষদসহ বিভিন্ন নির্বাচনে শূন্য থাকছে ভোট কেন্দ্র। ভোটাররা ভোট কেন্দ্রে যাচ্ছেন না। কেন ভোটার ভোট দিতে যাচ্ছেন না? এমন প্রশ্ন এখন সবার মুখে মুখে। বিশেষ করে গত ১৭ অক্টোবর ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে মাত্র ১০ দশমিক ৪৩ শতাংশ ভোট পড়ায় এমন প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছে। তবে শুধু ঢাকা-৫ আসনেই ভোট কম পড়েছে বিষয়টা এমন নয়! ঢাকা-১৮ আসন এবং সিরাজগঞ্জ-১ আসনের উপনির্বাচনে ভোটারদের উপস্থিত ছিল কম। 

এফএ/জিএ

RTVPLUS