logo
  • ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

শীত বুঝি এলোরে

winter,
শীতের সকাল
কবিতায় কবি লেখে শীত বুঝি এবার এলোরে ধানক্ষেতের পাতায়। পাখির স্নিগ্ধ সুর বলে দেয় কুয়াশার জলে ভোরের নীরবতার বার্তা। তেমনি সারাবেলা একটু গরম অনুভূত হলেও মধ্যরাতের শীতল পরিবেশ আর ভোরের কুয়াশা বলে দেয় শীত এসে গেছে। 

মাঠের সবুজ ঘাস কুয়াশার মায়াতে শীতল করে তুলে হৃদয় গহীনকে। সূর্যের নরম রোদ মুক্তো দানার মত করে দ্যুতি ছড়াতে শুরু করেছে ভোরের আলোতে। হিমেল হাওয়াতে শীতের পরশ। গাছের পাতাতে শিশিরবিন্দু মায়া। গানের সুরে এই বেলায় না হারিয়ে শীতের সন্ধ্যায় হোক পথচলা, এমন বায়নাগুলো উঁকি দিচ্ছে শীত প্রেমীদের মনে।

যারা ভোরের আলোতে হাঁটতে যারা বের হন, তাদের মনের জানালায় পরিকল্পনার তালিকা চলছে বিচরণ। শীতের শিশিরবিন্দুর সাথে সকালে হরেক রকম পিঠা না হলে কি চলে। ভাঙালির শীত মানে উৎসবের রঙ। শহরের ইট পাথর থেকে ছুটি নিয়ে গ্রামের আঁকাবাঁকা পথে মুক্তির নিঃশ্বাস ফেলতে শীতের আবরণকে  খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা সবসময় থাকে সবার।   

জীবন ব্যবস্থার মাঝে মানুষ যখন ক্লান্ত হয়ে উঠে তখন অপেক্ষায় থাকে শীতের আগমণের জন্য। সেই দিনটিকে সঙ্গী করে খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা করে স্মৃতির আয়নাতে।  

শীত আমাদের ছয় ঋতুর মধ্যে অন্যতম। হেমন্তের পর বসন্তের আগে শীতের অবস্থান। বাংলা সনের পঞ্চম ঋতু হচ্ছে শীত। পৌষ ও মাঘ মাস এই দুই মাস মিলে শীতকাল। এই ঋতু প্রধানত শুষ্ক এবং দিনের তুলনায় রাত হয় দীর্ঘ। বাংলাদেশে শীতের সময় খেজুরের রস আর হেমন্তের নতুন চালের গুঁড়ো দিয়ে বিভিন্ন ধরনের পিঠা পায়েস খাওয়া তো চলতেই থাকে তার সাথে বসন্ত জাগিয়ে দিয়ে শীত যেন চলে যায়।

কুয়াশার জালে ফুলের বন্ধ হয়ে উঠে প্রকৃতির সৌন্দর্য। শীতকালে অনেক ফুল যেমন গাঁদা, অশোক, ইউক্যালিপটাস, কুরচি, ক্যামেলিয়া, বাগানবিলাস, গোলাপ এবং সরিষা। এ সময় ঘন কুয়াশা হয়, পাতা ও ঘাসে শিশির বিন্দু দেখা যায়।

এছাড়াও শীতে বিভিন্ন রকমের শাকসবজির দেখা মেলে। বন্যার ছোবল থাকে না। নতুন ধানের আনন্দে কৃষক যেন খুঁজে পায় জীবনের সৌন্দর্য। শীত হয়ে ওঠে অন্যান্য ঋতুর চেয়ে আরও বেশি উৎসবমুখর।

তবে শীতের সকালের স্থায়িত্ব ক্ষণিকের হলেও মানুষের মনে তার পরশের মায়া বুলিয়ে যায় এবং রেখে যায় কমল কঠিন স্পর্শ। শীতের শুষ্কতায় প্রকৃতির সবুজ সেজে উঠুক আপন-মহিমায়, মানুষ ফিরে পাক তার সুন্দর জীবনের ভাবনা।

জিএম/ এমকে

RTVPLUS