• ঢাকা বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১
logo

আশুরার দিন রোজা রাখার ফজিলত

আরটিভি নিউজ

  ০৫ জুলাই ২০২৪, ২২:২৪
ফাইল ছবি

রজব, জিলকদ ও জিলহজ ছাড়াও আরবি বর্ষপঞ্জির প্রথম মাস মহররমের রয়েছে বিশেষ মর্যাদা। এই মাসগুলোয় যুদ্ধবিগ্রহ নিষিদ্ধ রয়েছে। এছাড়া মহররমের ১০ তারিখ আশুরার দিন। এই দিনে রোজা রাখার বিশেষ ফজিলত রয়েছে।

আশুরার দিনটি ঐতিহাসিক নানা ঘটনাবলিরও সাক্ষ্য বহন করে। এই দিনে আদি পিতা আদম (আ.) কে সৃষ্টি ছাড়াও তাকে পৃথিবীতে প্রেরণ করা হয়। হযরত নূহ (আ.) এর নৌযানের যাত্রা শুরু হয় ও মহাপ্লাবন শেষে ঈমানদারদের নিয়ে তিনি নৌকা থেকে নামেন এই দিনেই। আবার আশুরার দিনেই কারবালার বিয়োগান্তরের মর্মান্তিক ঘটনার অবতারণা হয়।

হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রমজানের সাওম (রোজা) ফরজ হওয়ার আগে মুসলিমগণ আশুরার রোজা পালন করতেন। সে দিনই কাবাঘর (গিলাফে) আবৃত করা হতো। তারপর আল্লাহ যখন রমজানের সাওম ফরজ করলেন, তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, আশুরার সাওম যার ইচ্ছা সে পালন করবে, আর যার ইচ্ছা সে ছেড়ে দেবে। (সহিহ বুখারি, হাদিস: ১৪৯৭)

অপর হাদিসে এসেছে, হুমায়দ ইবনু আবদুর রাহমান (রহ.) থেকে বর্ণিত, যে বছর মু’আবিয়া (রা.) হজ করেন সে বছর আশুরার দিনে (মসজিদে নববীর) মিম্বরে তিনি (হাদিস বর্ণনাকারী) তাকে বলতে শুনেছেন যে, হে মদিনাবাসীগণ! তোমাদের আলিমগণ কোথায়? আমি রাসুলুল্লাহ (সা.) কে বলতে শুনেছি, আজকে আশুরার দিন, আল্লাহ তা’আলা এর সাওম তোমাদের ওপর ফরজ করেননি বটে, তবে আমি (আজ) সাওম পালন করছি। যার ইচ্ছা সে সাওম পালন করুক, যার ইচ্ছা সে পালন না করুক। (সহিহ বুখারি, হাদিস: ১৮৭৭)

অন্যদিকে, খোদ রাসুল (সা.) ও আশুরার দিনে রোজা রাখায় প্রাধান্য দিতেন। ইবনু আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে আশুরার দিনের সাওমের উপরে অন্য দিনের সাওমকে প্রাধান্য প্রদান করতে দেখিনি এবং এ মাস অর্থাৎ রমজান মাস (এর ওপর অন্য মাসের গুরুত্ব প্রদান করতেও দেখি নাই)। (সহিহ বুখারি, হাদিস: ১৮৮০)

আবূ কাতাদা (রা.) থেকে বর্ণিত একটি হাদিসে এসেছে, একবার এক ব্যক্তি রাসুল (সা.) এর কাছে সাওম নিয়ে প্রশ্নের একপর্যায়ে নবীজি বলেন, প্রতি মাসে তিন দিন সাওম পালন করা এবং রমজান মাসের সাওম এক রমজান থেকে পরবর্তী রমজান পর্যন্ত সারা বছর সাওম পালনের সমান। আর আরাফাত দিবসের সাওম সম্পর্কে আমি আল্লাহর কাছে আশাবাদী যে, তাতে পূর্ববর্তী বছর ও পরবর্তী বছরের গুনাহর ক্ষতিপূরণ হয়ে যাবে। আর আশুরার সাওম সম্পর্কে আমি আল্লাহর কাছে আশাবাদী যে, তাতে পূর্ববর্তী বছরের গুনাহসমূহের কাফফারা হয়ে যাবে। (সহিহ মুসলিম, ২৬১৭)

মন্তব্য করুন

  • অন্যান্য এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
রাজধানীতে শিয়া সম্প্রদায়ের তাজিয়া মিছিল শুরু
সেদিন কী ঘটেছিল কারবালা প্রান্তরে
আজ পবিত্র আশুরা
আশুরার রোজায় মাফ হবে এক বছরের গোনাহ