logo
  • ঢাকা বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭

শীতে স্বাস্থ্য উপকারিতায় গুড়

গুড়,
গুড়

গুড় স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। গরমের সময় শসা ও তরমুজ ফল যেমন শরীরকে শীতল রাখে ঠিক তেমনি এই শীতে শরীরের জন্য গুড় অনেক উপকারী। সাধারণত যে কোনো রোগ থেকে সুরক্ষা করতে গুড় শরীরকে শক্তি জোগায়। শীতে নিয়মিত গুড় খাওয়া নিয়ে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক জার্নাল ও স্বাস্থ্য বিষয়ক ওয়েবসাইট প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। চলুন এবার তাহলে শীতে গুড় খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

সর্দি-কাশি দূর করতে : শীতে নিয়মিত গুড় খাওয়ার ফলে সর্দি-কাশি সেরে যায়। বিশ্বাস না হলে সর্দি হলে একটু গুড় খেয়ে দেখুন। স্বস্তি পাবেন আপনি।

রক্ত পরিষ্কার : গুড় শরীরের লিভার থেকে টক্সিন বের করে দেয় আর তাই গুড় খাওয়ায় রক্ত পরিষ্কার থাকে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি : গুড় খাওয়ার ফলে রক্ত পরিষ্কার থাকে এবং কোষ্ঠ সাফ থাকে। এজন্য শরীরে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। এছাড়াও গুড় খাওয়ার ফলে কফ, গলাব্যথা, ফোলা বা খুসখুস দূর হয়। সেই সঙ্গে শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা যেমন- কফ বা বুকে জমাট বাঁধা, রক্ত প্রবাহে সমস্যা দূর হয় গুড় খাওয়ার ফলে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ : গুড়ে সোডিয়াম এবং পটাশিয়াম রয়েছে। এসব উপাদান রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে কাজ করে। অ্যাজমা, ব্রঙ্কাইটিসের মতো রেসপিরেটরি সমস্যায়ও বেশ কার্যকরী ভূমিকা রাখে গুড়। এমনকি যাদের গাঁটের ব্যথা রয়েছে তারা ব্যথা দূর করতে গুড়কে কাজে লাগাতে পারেন।

সবশেষে চিনির বদলে গুড়ের উপকারিতা নেহায়েতই কম নয়। নিয়মিত গুড়ের সরবত খাওয়ার ফলে শরীরসহ পেট ঠাণ্ডা থাকে। ডায়াবেটিস না থাকলে নিশ্চিন্তায় গুড় খাওয়া যেতে পারে। শীতে যেমন খেজুরের গুড় পাওয়া যায় তেমনই গরমে পাওয়া যায় আখের গুড়। দুটোই উপকারী। তাই সম্ভব হলে বারোমাসই গুড় খাওয়া যেতে পারে। তবে অবশ্যই মনে রাখতে হবে, বাজারে এখন ভেজাল গুড়ে রমরমা। তাই উপকার পেতে হলে খাঁটি গুড়ের বিকল্প কিছু নেই এবং বড় ধরনের কোনো শারীরিক বা অন্য কোনো সমস্যা থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

সূত্র : সাউথ ল্যান্ডস-সান

এসআর/এম

RTV Drama
RTVPLUS