Mir cement
logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ১১ আষাঢ় ১৪২৮

ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে শিশুর কান্না ভেসে আসছিল

ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে শিশুর কান্না ভেসে আসছিল

ইসরায়েলি সাময়িক বাহিনীর ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ফিলিস্তিনি বেশকিছু ভবন ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। এই ধ্বংসস্তূপ থেকে একটি শিশুর কান্না ভেসে আসছিল। শিশুর কান্নার আওয়াজ অনুসরণ করে বুলডোজার ও হালকা সরঞ্জাম দিয়ে কয়েক ঘণ্টা ধরে চেষ্টা চালিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়।

খান ইউনিস থেকে গাজা সিটিতে ধ্বংসস্তূপ ভবনে উদ্ধার কাজ করতে আসেন বেসামরিক উদ্ধারকর্মী মেদহাত হামদান। ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে হতাহতদের উদ্ধারে টানা ১১ ঘণ্টা কাজ করে যাচ্ছিলেন। সূত্র: আল-জাজিরা।

ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে তিনটি শিশুর মরদেহ বের করেন হামদান। সেই অভিজ্ঞতা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, কাজটি করতে গিয়ে নিজের মধ্যে ভয় কাজ করেনি। লাশ বের করতে গিয়ে আবেগ আর কান্না ধরে রাখতে পারিনি।

উদ্ধারকর্মী মেদহাত হামদান আরও বলেন, রকেট হামলায় এক পরিবারে চার সন্তান নিহত হয়েছে। তারা শিশু চতুর্থ শেণিতে পড়ত। তারা ঈদের আনন্দ করতে পারেনি।

আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গতকাল রাতে এক ঘণ্টা ধরে দেড় শতাধিক রকেট বৃষ্টির মতো ছোড়া হয়েছে। জরুরি সহায়তা দল ধ্বংসস্তূপের ভেতর থেকে হতাহতদের উদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। গাজা উপত্যকার আল-ওহেদা শহরকে কেন্দ্র করে ৭০টির বেশি রকেট ছোড়া হয়েছে। এতে আবাসিক ভবন, অবকাঠামো ও সড়ক পুরোপুরি বা কোথাও কোথাও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

একদিনের এ হামলাসহ গত এক সপ্তাহে গাজায় ইসরায়েলি বিমান, ক্ষেপণাস্ত্র ও কামান হামলায় ১৮১ জনের মতো ফিলিস্তিনি মারা গেছেন। এর মধ্যে শিশু রয়েছেন ৫২ জন এবং আহত হয়েছেন এক হাজারেরও বেশি মানুষ। ইসরায়েলি ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় প্রতিনিয়ত ফিলিস্তিনি নাগরিকরা আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন।

এফএ

RTV Drama
RTVPLUS