logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

মহারাষ্ট্রের পর ঝাড়খণ্ডেও জোট নিয়ে বিপাকে বিজেপি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ১০:১৮ | আপডেট : ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৩৩
bjp in crisis with alliesa in poll bound jharkhand
ছবি সংগৃহীত
মহারাষ্ট্রে তাদের দীর্ঘদিনের সঙ্গী শিবসেনা সরকার গড়তে রাজি না হওয়ার পর এবার ঝাড়খণ্ডেও বেকায়দায় ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। আগামী ৩০ নভেম্বর পাঁচ দফায় বিধানসভা নির্বাচন ঝাড়খণ্ডে। বিজেপির জোটসঙ্গী অল ঝাড়খণ্ড স্ট‌ুডেন্টস ইউনিয়ন বা এজেএসইউ এবং লোক জনশক্তি পার্টি বা এলজেপি তাদের ওপরে চাপ বাড়াচ্ছে।

চিরাগ পাসওয়ানের এলজেপি ২০১৪ সালে মাত্র একটি আসনেই প্রার্থী দিয়েছিল এবং তাতে হেরে গিয়েছিল। কিন্তু এবার তারা একাই ৫০টি আসনে প্রার্থী দিতে চায়। অথচ প্রাথমিকভাবে বিজেপিকে তারা জানিয়েছিল তারা কেবল ছয়টি আসনে প্রার্থী দিতে চায়।

চিরাগ পাসওয়ান টুইট করে জানান, লোক জনশক্তি পার্টি সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা একাই ৫০টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দলের প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশিত হবে।

এদিকে এজেএসইউ বিজেপিকে আরও বড় সমস্যায় ফেলতে পারে। কারণ তাদের সমর্থন আরও বেশি। ২০১৪ সালে আটটি আসনে প্রার্থী দিয়ে পাঁচটিতেই জয়লাভ করেছিল তারা। এলজেপি’র চেয়ে তারা বেশি সফল হয়েছিল।

---------------------------------------------------------------
আরো পড়ুন: অবশেষে মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি, আদালতে শিবসেনা
---------------------------------------------------------------

এজিএসইউ চক্রধরপুরে তাদের প্রার্থী দিয়েছে। এখান থেকেই ভোটে দাঁড়িয়েছেন বিজেপির রাজ্য প্রধান লক্ষ্ণণ গিলুয়া। এই পরিস্থিতিতে বোঝা যাচ্ছে, রাজ্যের ৮১টি আসনের জন্য নতুন করে সমঝোতায় বসতে হবে দুই দলকে। ২০১৪ সালে তারা একসঙ্গে ভোটে লড়েছিল।

এজেএসইউ ১৯টি আসনে প্রার্থী দিতে চাইলেও বিজেপি তাদের ৯টির বেশি আসন দিতে চায় না। এজিএসইউ ১২ জন প্রার্থীর নাম এরইমধ্যে ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে চারটিতে বিজেপিও প্রার্থী দিয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে বিজেপি তাদের দ্বিতীয় প্রার্থী তালিকা প্রকাশ স্থগিত রেখেছে। এর আগে রোববার তারা তাদের প্রথম প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছিল। সেই তালিকায় ৫২ জনের নাম ছিল।

গতবারের নির্বাচনে বিজেপি ৭২টি আসনে প্রার্থী দিয়েছিল। এজেএসইউ আটটি ও এলজেপি একটি আসনে প্রার্থী দিয়েছিল। বিজেপি জিতেছিল ৩৭টি আসনে। এজেএসইউ পেয়েছিল পাঁচটি আসন। এলজেপি কোনও আসন পায়নি।

এদিকে কংগ্রেস ৩১টি আসনে প্রার্থী দিচ্ছে। তাদের জোটসঙ্গী ঝাড়খণ্ড মুক্তিমোর্চা প্রার্থী দিচ্ছে ৪৩টি আসনে। বাকি কেন্দ্রে লালুপ্রসাদ যাদবের দল রাষ্ট্রীয় জনতা দল প্রার্থী দেবে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ
  • আন্তর্জাতিক এর পাঠক প্রিয়