logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ২ বৈশাখ ১৪২৮

খরচ করতে না পারার হতাশায় দামি গাড়ি কিনছে ধনীরা

Sales of Bentleys and Lamborghinis are booming because rich people are bored
সংগৃহীত

হঠাৎ করে দামি গাড়ির বিক্রি বেড়ে গেছে। ম্যানহাটন মটরসের প্রেসিডেন্ট ব্রায়ান মিলার বলেছেন, আমি ৪০ বছর ধরে ব্যবসা করছি। কিন্তু কখনও এমনটা দেখিনি। বেন্টলি, ল্যাম্বরগিনি ও বুগাট্টিসের মতো খুবই দামি গাড়ি বিক্রি করেন মিলার।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে সার্বিকভাবে গাড়ি বিক্রি অনেকটাই কমে গেছে। বন্ধ হয়ে গেছে অনেক কারখানাও। কিন্তু ফেরারি, বেন্টলি এবং ল্যাম্বরগিনির মতো দামি গাড়ির কাটতি হঠাৎই বেড়ে গেছে। ২০২০ সালটা যেন দ্রুত গতিতেই এগিয়ে এসব গাড়ির বিক্রি।

২০১৯ সালের তুলনায় ২০২০ সালে গাড়ি বিক্রি ১০ শতাংশ কম হয়েছে। তবে গত বছরের শেষ ত্রৈমাসিকে গাড়ি বিক্রি হঠাৎ করে বেড়ে গেছে। জে ডি পাওয়ারে ডাটা অ্যানালিটিক্সের ভাইস প্রেসিডেন্ট টাইসন জমিনি বলছেন, এটা ২০১৯ সালের শেষ ত্রৈমাসিক বিক্রির সমপর্যায়ে পৌঁছে গেছে।

কিন্তু ২০২০ সালে শেষ ত্রৈমাসিকে ৮০ হাজার ডলারের বেশি দামের গাড়ি বিক্রির পরিমাণ আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় দ্বিগুণ হয়ে গেছে। জমিনি বলেন, তবে ১ লাখ ডলারের বেশি দামি গাড়ির বিক্রি একই সময়ে ৬৩ গুণ বেড়ে গেছে।

তিনি বলেন, বিপুল পরিমাণ সম্পদের প্রভাব দেখতে পাচ্ছি আমরা। আসলে স্টক মার্কেটের ঊর্ধ্বগতি একটা বড় ভূমিকা রেখেছে। যেহেতু ধনীরা তাদের টাকা-পয়সা ভ্রমণে ব্যয় করতে পারছে না, তাই তারা গাড়ির মতো দামি পণ্যের দিকে ঝুঁকছে।

মিলার বলেন, অনেক সময় ক্রেতারা গাড়ির ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট চাহিদার কথা জানায় এবং এজন্য কয়েক মাস পর্যন্ত অপেক্ষাও করে। কিন্তু তারপরও আমি কিছু নতুন রোলস-রয়েস বা ল্যাম্বরগিনি হাতে রেখে দেই, যাতে কেউ চাইলে তার কাছে বিক্রি করতে পারি। কিন্তু এখন আর সেটা করতে পারছি না।

তার ভাষায়, মানুষজন বাসায় বসে রয়েছে। ইন্টারনেটে দামি গাড়ি দেখা ছাড়া তাদের কিছুই করার নেই। জমিনি বলছে, এই বিক্রি বেড়ে যাওয়ার পেছনে তরুণ ক্রেতাদের বড় একটা ঢেউ দেখা যাচ্ছে। বিশেষ করে প্রযুক্তি খাতের তরুণ ধনীরা গাড়ি কেনার দিকে ঝুঁকছে।

করোনার কারণে ইংল্যান্ডের ক্রিউইয়ে বেন্টলির কারখানা সাত সপ্তাহের জন্য বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু মজার বিষয় হচ্ছে যে, বিক্রির দিক দিয়ে গত বছরই সবচেয়ে ভালো বছর কাটিয়েছে ১০১ বছর পুরনো আল্ট্রা-লাক্সারি এই গাড়িটি।

বেন্টলির সিইও অ্যাড্রিয়ান হলমার্ক সিএনএনকে এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, কারখানা চালু করার পরও প্রায় ৯ সপ্তাহ স্বাভাবিকের চেয়ে অর্ধেক গতিতে কাজ করতে পেরেছেন তারা। তারপরও গত বছর ১১ হাজার ২০৬টি গাড়ি ও এসইউভি বিক্রি করেছে তারা। আগের বছরের তুলনায় মাত্র ১০০টি বেশি। যা কোম্পানিটির গাড়ি বিক্রিতে রেকর্ড।

এসময় চীনেও তাদের বিক্রি বেড়েছে বলে জানান হলমার্ক। সেখানে বিক্রি প্রায় ৫০ শতাংশ বেড়েছে। তিনি বলেন, বিশেষ করে রিডিজাইন করা ফ্লাইং স্পার সিডান প্রচুর পরিমাণে বিক্রি হয়েছে। কিছুদিন মার্কেটে ছিল না এই গাড়িটি। কিন্তু যখন গাড়িটি মার্কেটে আসে তখন তা বেন্টলির জন্য আশীর্বাদ হয়ে আসে।

হলমার্ক বলেন, যখন এটা বাজারে এলো তখন অবস্থা অনেকটা এমন যেন মরুভূমিতে বৃষ্টি হলো এবং পানি পেয়ে ফুল ফুটলো। এর ফলে আমাদের বিক্রি তাৎক্ষণিকভাবে স্বাভাবিকের চেয়ে ৩০ শতাংশ বেড়ে যায়।

এদিকে ২০২০ সালটি লাম্বরগিনির সবচেয়ে লাভজনক বছর ছিল। আর বিক্রির দিক দিয়ে দ্বিতীয় সেরা বছর কাটিয়েছে কোম্পানিটি। ২০১৯ সালে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছে তাদের। ২০২০ সালে ৭ হাজার ৪৩০টি গাড়ি ও এসইউভি বিক্রি করেছে তারা, যা আগের বছরের তুলনায় ৯.৫ শতাংশ কম।

তবে ২০২০ সালের শেষ ক্রৈমাসিক নিজেদের ইতিহাসের সবচেয়ে সেরা সময় কাটিয়েছে ইতালির এই সুপারকার কোম্পানিটি। অবস্থা এমন যে লাম্বরগিনির সিইও স্টেফেন উইকেলমান বলেছেন, ২০২১ সালের প্রথম ৯ মাসে অর্ডার পেয়ে গেছেন তারা।

বেন্টলি ও লাম্বরগিনি দুটো গাড়িরই মালিক ভক্সওয়াগান এজি। ফেরারির গাড়ির বিক্রি গত বছর প্রায় ১০ শতাংশ কম হয়েছে। তাদের ফ্যাক্টরি সাত সপ্তাহ বন্ধও ছিল। কিন্তু গত বছরের শেষ ত্রৈমাসিকে রেকর্ড পরিমাণ বিক্রি হয়েছে তাদের। এমনকি রেকর্ড পরিমাণও পেয়েছে তারা।

অবশ্য গত বছরটা দামি গাড়ি প্রস্তুতকারক সব কোম্পানির জন্য ভালো যায়নি। এর সঙ্গে নতুন গাড়ি লঞ্চ করারও একটি সম্পর্ক রয়েছে। যেমন রোলস-রয়েসের বিক্রি গত বছর ২০১৯ সালের তুলনায় ২৬ শতাংশ কম হয়েছে। ২০১৯ সালে নিজেদের কুলিনান এসইউভি বেশ ভালোই বিক্রি করেছে রোলস-রয়েস।

কিন্তু ২০২০ সালে প্রায় পুরো বছর জুড়েই গোস্ট সিডান তৈরি বন্ধ রাখে রোলস-রয়েস। তবে রোলস-রয়েসের প্যারেন্ট কোম্পানি বিএমডব্লিউ বলছে, ২০২১ সালের প্রায় পুরো বছরের জন্যই তারা গোস্ট সিডানের অর্ডার পেয়েছে। আর গত বছরও ভালোই বিক্রি হয়েছে তাদের।

এ/পি

RTV Drama
RTVPLUS