Mir cement
logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

বিনোদন ডেস্ক, আরটিভি নিউজ

  ১৬ জানুয়ারি ২০২২, ১৩:৪২
আপডেট : ১৬ জানুয়ারি ২০২২, ১৪:২৬

‘দর্শক কিন্তু বুঝবে না শুটিং সেটে আমাদের কী ঘটেছে!’

'দর্শক কিন্তু বুঝবে না শুটিং সেটে আমাদের কী ঘটেছে!'
ছবি: সংগৃহীত

দীর্ঘ অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে গেল শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) দেশের পাঁচটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে এইচ আর হাবিব পরিচালিত সিনেমা ‘ছিটমহল’। এতে একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন লাক্স তারকা মৌসুমী হামিদ। ছোট পর্দায় তার তুমুল জনপ্রিয়তা, বড় পর্দায় অভিনয় করেও হয়েছেন প্রশংসিত। তবে এই সিনেমা মুক্তির খবরে খানিকটা অবাকই হয়েছেন তিনি। অবশ্য এর যথেষ্ট কারণও রয়েছে।

পাঁচ বছর আগে ‘ছিটমহল’-এর শুটিংয়ের মাঝপথ থেকে সরে আসেন মৌসুমী হামিদ। দ্বিতীয় লটের কাজ শেষ করে আর শুটিংয়ে অংশ নেননি। এমনকি ডাবিংও করেননি। হঠাৎ জানতে পারেন, তার সেই অসমাপ্ত সিনেমাটি মুক্তি পাচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে মৌসুমী একটি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘হঠাৎ ফেসবুক পোস্ট দেখে জানতে পারি, আমার সিনেমা রিলিজ হচ্ছে। পাঁচ-ছয় বছর আগে শুটিং করেছিলাম। আমার চরিত্রের শুটিংই তো শেষ হয়নি। প্রথম ও দ্বিতীয় লটের শুটিং করেই আমি সরে যাই। এরপর কবে, কীভাবে শুটিং শেষ হয়েছে আমি জানিও না। আবার পোস্টারেও দেখছি আমি আছি। কী অবস্থায় যে সিনেমাটি রিলিজ দিয়েছে, আমি কিছুই বুঝতে পারছি না। সবকিছু মিলিয়ে আমি আসলে কনফিউজড।’

তিনি আরও বলেন, ‘দর্শক হলে সিনেমা দেখতে গিয়ে যদি দেখে আমার চরিত্র অসমাপ্ত, তখন তারা কিন্তু বুঝবে না শুটিং সেটে আমাদের কী ঘটেছে। দর্শক তো দেখবে যে, মৌসুমী আধা একটা কাজ করছে, ওর কি কাণ্ডজ্ঞান নেই! পরিচালক অনেক সিনিয়র একজন মানুষ, শুটিং নিয়ে আমাদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির আজও অবসান হয়নি।’

ভুল বোঝাবুঝির কারণ জানিয়ে এই অভিনেত্রীর ভাষ্য, ‘ছিটমহল চলচ্চিত্রে আমার চরিত্রের নাম প্রীতিবালা, যার ১২-১৩ বছরের একটা মেয়ে আছে। কিন্তু সেটে গিয়ে দেখি ডিগ্রি পড়া একটা মেয়েকে ১২-১৩ বছরের মেয়ে বলতে চাইছেন পরিচালক! কিন্তু তাকে দেখেও কোনোভাবেই মনে হচ্ছিল না তেমনটা। আমি আপত্তি জানাই। এক কথা-দুই কথায় আমাকে বলা হলো আপনার পছন্দ না হলে কাজ কইরেন না! আমি কিন্তু যুক্তি চাচ্ছিলাম। জোর করে যুক্তি দিয়ে তিনি বোঝাতে চাইলেন। তিনি যেহেতু সিনিয়র একজন ডিরেক্টর, আমিও আর কথা বাড়াইনি। একটা বড় মেয়েকে ফ্রক পরিয়ে মাথার দুই পাশে বেণি ঝুলিয়ে দেবেন, তাহলে কি ১২-১৩ বছরের মেয়ে হয়ে যাবে! কি অদ্ভুত। এটা তো ফাজলামি। আমারও ব্যর্থতা আমি পরিচালককে বোঝাতে পারিনি, তিনিও ভাবছেন হয়তো আমি তার সঙ্গে বেয়াদবি করছি। আমি কিন্তু তাকে বলেছিলাম, ভাইয়া এ রকম করলে তো আমি শুটিং করতে পারব না। তিনিও আমাকে বলেছিলেন, না করতে পারলে চলে যান। তখন দ্বিতীয় লটের কাজ চলছিল। আমি ওই লটের কাজ শেষ করে আর যাইনি। এটাই ছিল সরে দাঁড়ানোর মূল কাহিনি।’

প্রসঙ্গত, সিনেমাটির শুটিং হয়েছে পঞ্চগড়ে ছিটমহলের মধ্যেই। সিনেমাটির কাহিনি, সংলাপ ও চিত্রনাট্য পরিচালকের নিজের। তিনি একটি সাবলীল জীবনের গল্প বলতে চেয়েছেন। এতে অভিনয় করেছেন জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া, মৌসুমী হামিদ, আরমান পারভেজ মুরাদ, শিমুল খান।

এ ছাড়াও এতে আরও অভিনয় করেছেন মীরাক্কেলের সজল, ডন হক, এ বি এম সোহেল রশিদ, উজ্জ্বল কবির হিমু, অঞ্জলি সাথী ও পরিচালক নিজেই। সিনেমাটি প্রযোজনা করেছে কমন হোম এটাচার। এটি পরিবেশনা করছে জাজ মাল্টিমিডিয়া।

এনএস/টিআই

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS