smc
logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ৭ কার্তিক ১৪২৭

ভারত থেকে পেঁয়াজ আসুক না আসুক সার্বিক পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকবে (ভিডিও)

  নাজিব ফরায়েজী, আরটিভি নিউজ

|  ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২৩:১৭ | আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:০৮
ভারত পেঁয়াজ না দিলেও বর্তমান মজুদ আর বিকল্প উৎস থেকে আমদানি করে বর্তমান সংকট মোকাবিলা করা সম্ভব বলছেন, আমদানিকারক, ব্যবসায়ী আর ভোক্তা অধিকার সংগঠন। বাজার সংশ্লিষ্টদের মতে বর্তমান মজুদ আর বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করায় এবার গত বছরের মতো পেঁয়াজের দাম বাড়বে না। ভবিষ্যতে সংকট এড়াতে দেশে পেঁয়াজ উৎপাদন বাড়ানোর তাগিদ দেন তারা।

দ্বিতীয় মৌসুমের মতো ভারত পেয়াজ রপ্তানি বন্ধ করলে দেশের বাজারে এক রাতের ব্যবধানের পণ্যটির দাম এক’শ তে ওঠে। গতবারের অভিজ্ঞতায় শুরুতে ক্রেতারা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। অসাধু ব্যবসায়ীরা যার সুযোগ নেন। অথচ দেশে পাঁচ থেকে ছয় লাখ টন পেয়াজ মজুদ আছে। যা দিয়ে অন্তত দুই মাস চলা সম্ভব। 

সরকার দ্রুত পেঁয়াজ আমদানির শুল্ক প্রত্যাহার করে। আমদানিকারকরা মিয়ানমার, চীন, তুরস্ক, মিশরসহ বেশ কয়েকটি দেশ থেকে আমদানি শুরু করে। ফলে কমতে শুরু করেছে পেঁয়াজের দাম।

কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর সভাপতি গোলাম রহমান বলেন,  গত মৌসুমে দেশে পেঁয়াজ উৎপাদন পর্যাপ্ত হয়েছিল এবং এখনও দেশে পর্যাপ্ত পরিমাণ পেঁয়াজ মজুদ আছে। ভারত থেকে পেঁয়াজ আসুক না আসুক সার্বিক পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকবে।

রাজধানীর শ্যামবাজার পেঁয়াজ ব্যবসায়ী সমিতি এর প্রচার সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, ৯০ হাজার টন পেঁয়াজ যদি এখন বাংলাদেশে ৩০ দিনের মধ্যে পৌঁছায়। তাহলে ভারতের উপর ১% ও নির্ভর হতে হবেনা। বড় চালানগুলো দেশে পৌঁছালে পেঁয়াজের দাম আরও কমবে।

রাজধানীর শ্যামবাজার পেঁয়াজ ব্যবসায়ী সমিতি এর সাধারণ সম্পাদক ও পেঁয়াজ আমদানিকারক বলেন, আগামী মাসের পাঁচ তারিখের পর থেকে পেঁয়াজগুলো আসতে পারে। এর ভেতরেও কিছু পেঁয়াজ আসবে।

কৃষি অধিদপ্তরের তথ্য মতে, দেশে বছরে পেঁয়াজের চাহিদা ৩০ লাখ টনের মতো। উৎপাদন কমবেশি ১৯ লাখ টন। আমদানি করতে হয় প্রায় ১১ লাখ টন। কৃষি অধিদপ্তর তৎপর হলে দেশে উৎপাদিত পেঁয়াজ দিয়েই ঘাটতি মেটানো সম্ভব।

উন্নত জাতের পেঁয়াজের বীজ আমদানি করতে হবে এবং কৃষকদের অল্প সময়ে এবং অল্প সুদে ঋণ দিতে হবে বলে জানান মো. শহিদুল ইসলাম।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ভোক্তারা অতিরিক্ত পেঁয়াজ না কিনলে আর নিয়মিত মনিটরিং বাজারকে দ্রুত স্থিতিশীল করতে পারে।  

এসএ/এম

RTVPLUS
bangal
corona
দেশ আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ৩৯৪৮২৭ ৩১০৫৩২ ৫৭৪৭
বিশ্ব ৪,১৫,৭০,৮৩১ ৩,০৯,৫৮,৫৪৬ ১১,৩৭,৭০৩
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • অর্থনীতি এর সর্বশেষ
  • অর্থনীতি এর পাঠক প্রিয়