logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট

  ০৯ জানুয়ারি ২০২০, ১৮:০১
আপডেট : ০৯ জানুয়ারি ২০২০, ১৮:১০

নরসিংদীতে প্রবাসীর টেক্সটাইল মিলস দখলের অভিযোগ

প্রবাসী, মিল, দখল
সংবাদ সম্মেলন সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন সুইডেন প্রবাসী মো. আতাউর রহমান

নরসিংদীতে এক প্রবাসীর স্পিনিং মিল দখলের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে। আজ বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর রুনি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে সুইডেন প্রবাসী মো. আতাউর রহমান এ অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, দেশের প্রতি ভালোবাসা এবং স্থানীয় মানুষদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে ২০১৩ সালে সুইডেন-বাংলা টেক্সটাইল মিলস লি. নামে একটি স্পিনিং মিল প্রতিষ্ঠা করি। আমার মিলটি অল্প দিনেই লাভের মুখ দেখায় স্থানীয় প্রভাবশালীরা সেটি দখলের পায়তারা করেন।

এর ধারাবাহিকতায় তারা আমার নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে এই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে পুলিশ আমাকে জেলহাজতে প্রেরণ করেন। আমি জেলে থাকা অবস্থায় তারা আমার মিলটি পুরোপুরি দখল করে নেয়।

সংবাদ সম্মেলনে সুইডেন প্রবাসী মো. আতাউর রহমান বলেন, স্থানীয় ব্যবসায়ী আমজাদ হোসেনের নিকট থেকে নির্ধারিত ভাড়ার বিনিময়ে মিলের ভবন ও যন্ত্রপাতি ভাড়া করি। এর কয়েক বছর পর আমজাদ হোসেনের মামা আব্দুল মতিন মোল্লা ও তার ছেলে রেন্টু মোল্লা ওই ভবনের মালিকানা দাবি করেন। এই দাবির কয়েক মাসের মধ্যে তারা ২০০ থেকে ৩০০ সশস্ত্র ক্যাডার নিয়ে এসে আমার মিলটি দখল ও লুটতরাজ করে।

এ সময় তিনি আরও অভিযোগ করেন, এই বিরোধের একপর্যায়ে আমজাদ হোসেন মারা যান। এরপরে আমজাদ হোসেনের স্ত্রী মোছা. সুলতানা বেগম, দুই পুত্র মো. সানিয়াল আরেফিন ও মো. মাহমুদুল আরেফিন এবং এক মেয়ে মাহমুদা তাইরান আব্দুল মতিনের পক্ষ নিয়ে আমার মিলটি পুনরায় দখলের পরিকল্পনা করেন। এর অংশ হিসেবে আমার নামে মিথ্যা মামলা দেয়। আমি প্রায় দুই মাস জেলে থাকি। জেলে থাকা অবস্থায় আমার মিলটি পুরোপুরি দখল করে তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয় তারা।

প্রায় দুই মাস পর আমার নামে করা মিথ্যা মামলাটি প্রাথমিকভাবে আদালতে প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত আমাকে জামিন দেন। আমি জেল থেকে বের হওয়ার পর থেকে আমি মিলটি উদ্ধারে যেন কোনও ব্যবস্থা নিতে না পারি সে জন্য আমাকে নানা ভাবে হয়রানি করছে তারা। আমার নামে থানায় এবং দুর্নীতি দমন কমিশনে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে আমাকেই উল্টো দখলবাজ হিসেবে প্রমাণ করার চেষ্টা করছে তারা। এরই মধ্যে আমাকে কয়েকটি উকিল নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

এজে

RTVPLUS