• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬

বাগেরহাটে রাতের অন্ধকারে বেঙ্গল এলপিজি’র জমি দখলের চেষ্টা

বাগেরহাট প্রতিনিধি
|  ২৯ মে ২০১৯, ১৩:১৩ | আপডেট : ২৯ মে ২০১৯, ১৩:৪১
বাগেরহাটের মোংলায় রাতের অন্ধকারে নির্মাণাধীন বেঙ্গল এলপিজি’র জমি দখলের চেষ্টা করেছে মীর গ্রুপের লোকজন। গত শনিবার ভোররাতে মোংলা উপজেলার শেলাবুনিয়া গ্রামে তিন শতাধিক লোক ৩-৪টি এ্যাক্সেভেটর নিয়ে এই জমি দখলের চেষ্টা চালায়। এসময় বেঙ্গল এলপিজি’র নিরাপত্তাকর্মীরা তাদের নিষেধ করলে তাদেরকেও মারধর করে আহত করা হয়।

whirpool
এ ঘটনার সময় পার্শ্ববর্তী একটি সংখ্যালঘু পরিবারের বাড়িঘর ও মন্দিরেও ওই লোকজন প্রবেশ করে। এতে মন্দিরের কিছু অংশ ভেঙে যায় বলেও পরিবারটি অভিযোগ করে। পরে মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইকবাল বাহার চৌধুরী ও উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বেঙ্গল এলপিজি’র ম্যানেজার (অ্যাডমিন) বাবুল আক্তার জানান, রাতের অন্ধকারে মীর গ্রুপের তিন শতাধিক ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী লোহার রড নিয়ে তাদের সীমানার ভিতর প্রবেশ করেন। এসময় তাদের সাথে থাকা ৩-৪টি এ্যাক্সেভেটর দিয়ে মাটি কেটে জমি দখলের চেষ্টা চালায়। তাদের কয়েকটি ঘরও সিসি ক্যামেরার পোস্ট ভেঙে ফেলা হয়। এসময় বেঙ্গল এলপিজি’র নিরাপত্তাকর্মীরা তাদের নিষেধ করলে তাদেরকেও মারধর করে আহত করা হয়।

তিনি আরও জানান, ঘটনার সময় থানা পুলিশকে বারবার ফোন দেয়া হলেও পুলিশ সাড়া দেয়নি। পরে স্থানীয় সংসদ সদস্যে উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহারকে ফোনে জানানো হলে তিনি ব্যবস্থা নিতে থানাকে নির্দেশ দেন। এরপর পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। ততক্ষণে তাদের জমিতে অনেক মাটি ফেলা হয়।

শেলাবুনিয়া গ্রামের আশিস রায় জানান, আতর্কিতে তাদের বাড়িতে ৩-৪শ লোক প্রবেশ করে। এসময় তার পরিবারের সদস্যরা ঘুমিয়ে ছিল। এসময় তার পারিবারিক মন্দিরের কিছু অংশ ভেঙে ফেলা হয়। পরে অবশ্য নানা চাপে বিষয়টি তিনি মীমাংসা করতে বাধ্য হন।

এবিষয়ে মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, খবর পেয়ে তিনি উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ঘটনাস্থলে যান। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মোংলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তাহের বলেন, খবর পেলে তিনি ঘটনাস্থলে এসে মাটি ফেলা দেখেছেন। দুইপক্ষ সম্মত হলে সালিশ বৈঠকের মাধ্যমে বিষয়টি সমাধান করা হবে।

পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়