logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

মৃত্যু মাথায় নিয়ে ক্লাস করছে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা

শেখ রিয়াজ আহাম্মেদ নাহিদ, পিরোজপুর
|  ১১ এপ্রিল ২০১৯, ১৮:১৯ | আপডেট : ১১ এপ্রিল ২০১৯, ২২:০৮
পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার ৪২ নম্বর পূর্ব শিয়ালকাঠী হাজিবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও শিয়ালকাঠী মোল্লারহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ও পরিত্যক্ত ভবনে পাঠদান কার্যক্রম চলছে।

অভিভাবকরা অভিযোগ করেন, বারবার কর্তৃপক্ষকে জানানোর পরেও তাদের ছেলে-মেয়েদের  জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিদ্যালয়ে পাঠাতে হচ্ছে।

এ বিদ্যালয় দুইটির ভবনগুলো বহু আগে থেকে জরাজীর্ণ ও পাঠদানের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ভবনগুলোর পলেস্তরা ও বিম খসে খসে পড়েছে। যেকোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। ফলে বিদ্যালয়ে উপস্থিতির হার কমে গেছে।

পূর্ব শিয়ালকাঠী বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সোহেল হোসেন তালুকদার আরটিভি অনলাইনকে জানান, দুর্ঘটনার ভয়ে স্কুলে ছাত্র-ছাত্রী পাঠাচ্ছেন না অভিভাবকরা। এরই মধ্যে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ৩৮ জনে দাঁড়িয়েছে।

অপর দিকে মোল্লার হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টির অবস্থাও ঝুঁকিপূর্ণ। যে কারণে এরইমধ্যে স্কুলটিতে শিক্ষার্থীদের সংখ্যা হাতে গোনা কয়েকজনে এসে দাঁড়িয়েছে।

উপজেলার ৬৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ ভবন রয়েছে পাঁচটি। এর মধ্যে অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করেছে পূর্ব শিয়ালকাঠী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মোল্লারহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দত্তেরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শীর্ষা আব্দুর রহমান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও চিরাপাড়া কে. এম. সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

এ সকল বিদ্যালয়ের ভবনগুলো মাত্র এক দেড় যুগ পূর্বে নির্মাণ হলেও নিম্নমানের কাজ করায় ভবনগুলোর এই অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা খোন্দকার জসিম আহামদ জানান, উপজেলায় অধিক ঝুঁকিপূর্ণ যে ভবনগুলো রয়েছে সেই ভবনগুলোর ফের নির্মাণের জন্য দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

জেবি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়