logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬

ফেসবুকে ছবি পোস্ট, কলেজছাত্রীর আত্মহত্যা

বাগেরহাট প্রতিনিধি
|  ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১২:০৩ | আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১২:২৬
বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলায় ফেসবুকে অশ্লীল ছবি পোস্ট করা ও বারবার অনৈতিক প্রস্তাবের যন্ত্রণা সইতে না পেরে দিশা মজুমদার (১৭) নামে এক কলেজছাত্রী আত্মহত্যা করেছে।

bestelectronics
গেল বুধবার রাতে উপজেলার দড়িউমাজুড়ি গ্রামের বাড়িতে ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে সে। দিশা উপজেলার খাসেরহাট কালিদাস বড়াল স্মৃতি মহাবিদ্যালয়ের ছাত্রী ছিলেন।

তার অকাল মৃত্যু এবং আত্মহত্যার জন্য দায়ীদের বিচারের দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে সহপাঠীরা বিক্ষোভ মিছিল করেছেন। এছাড়া ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী। ঘটনার পরপর লম্পট মিঠুন মজুমদার ও তার পরিবারের লোকজন বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে গেছেন।

এ ঘটনায় দিশার বাবা সুকুমার মজুমদার চিতলমারী থানায় অভিযোগ করেছেন। পুলিশ দিশার  মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

দিশার বাবা সুকুমার মজুমদার অভিযোগ করেন, দীর্ঘদিন ধরে প্রতিবেশী জগদীশ মজুমদারের ছেলে মিঠুন মজুমদার তার মেয়ে দিশাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এতে রাজি না হওয়ায় মিঠুন সুকৌশলে দিশার গোসলের সময়ের কিছু অশ্লীল ছবি মোবাইলে ধারণ করে। দু-তিন মাস আগে সেই ছবি দিয়ে দিশাকে সে ব্ল্যাকমেল এবং অনৈতিক প্রস্তাব দিতে থাকে। দিশা রাজি না হওয়ায় মিঠুন ওইসব ছবিসহ ফেসবুকে একটি ফেক আইডি খোলে। এক সপ্তাহ ধরে ফেসবুকের ওই ছবিগুলো নিয়ে এলাকায় তোলাপাড় হচ্ছিল। এসব ঘটনায় গত বুধবার সন্ধ্যায় দিশা মিঠুনকে ফেসবুক থেকে ওই ছবিগুলো সরানোর অনুরোধ করে। কিন্তু মিঠুন উল্টো তাকে অনৈতিক প্রস্তাব দিলে দিশা আত্মহত্যা করেন।

দিশার প্রতিবেশীরা জানান, মিঠুন এলাকার চিহ্নিত মাদকসেবী। তার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মাদক মামলা রয়েছে।

কালিদাস বড়াল স্মৃতি মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার রায় জানান, দিশার আত্মহননের খবর পেয়ে রাতেই ওদের বাড়িতে গিয়ে খোঁজখবর নেন তিনি। দিশা বিনয়ী ও মেধাবী ছিল। বিনা কারণে আত্মহত্যা করার মতো মেয়ে সে নয়। তাকে আত্মহননে বাধ্যকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের আওতায় না আনলে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবেন বলেও জানান অধ্যক্ষ।

চিতলমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মো. ইকরাম হোসেন জানান, দিশার পরিবারের অভিযোগ গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। ঘটনার পর থেকেই মিঠুনের গোটা পরিবার পলাতক রয়েছে। মিঠুনকে আটকে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে।

আরও পড়ুন :

জেবি

bestelectronics bestelectronics
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়