Mir cement
logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

ঝালকাঠি প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ২৪ জানুয়ারি ২০২২, ১৭:০০
আপডেট : ২৪ জানুয়ারি ২০২২, ১৮:৫৮

লঞ্চে আগুন : পরিবারের দাবি এখনও ৩২ জন নিখোঁজ

লঞ্চে আগুন : ৩২ জন নিখোঁজের দাবি পরিবারের
লঞ্চে আগুন

ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে ঢাকা থেকে বরগুনাগামী লঞ্চ এমভি অভিযান ১০ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার আজ এক মাস পূর্ণ হয়েছে। গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর গভীর রাতে সুগন্ধা নদীর দিয়াকুল এলাকায় লঞ্চটি আগুনে পুড়ে যায়। এ সময় দগ্ধ হয়ে ৪০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

স্বজনদের দেওয়া তালিকা অনুযায়ী, ৩২ জন যাত্রী এখনও নিখোঁজ রয়েছে। তাদের মধ্যে ১৩ শিশু, ১১ নারী ও ৮ জন পুরুষ রয়েছেন। আগুনে পুড়ে মৃত্যু হওয়া ৪২ জনের পরিচয় না পেয়ে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করা হয়েছে।

নিখোঁজের সন্ধানে এখনও নদীর তীরে যান স্বজনরা। লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় ও ঝালকাঠি জেলা প্রশাসন তাদের প্রতিবেদন প্রকাশ করেছেন। প্রতিবেদনে লঞ্চের ইঞ্জিন রুম থেকে আগুন লেগেছে বলে জনানো হয়। এজন্য লঞ্চের স্টাফ ও কর্তৃপক্ষের অবহেলাকেই দায়ী করেছেন। এদিকে এক মাসেও শেষ হয়নি নিখোঁজ ব্যক্তির স্বজনদের ডিএনএ পরীক্ষা।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) তথ্যমতে, নিখোঁজ ৩২ জনের জন্য তাদের ৫১ জন স্বজন ডিএনএ’র নমুনা দিয়েছেন। বরগুনার গণকবরে দাফন করা হয়েছে ২৩ জনের মরদেহ। নদী থেকে উদ্ধারের পর একজনকে সনাতন ধর্মাবলম্বী ধারণা করে ঝালকাঠি পৌর মহাশ্মশানে সমাহিত করা হয়েছে।

পুলিশ আরটিভি নিউজকে জানিয়েছেন, এ ঘটনায় দায়ের করা একটি মামলায় লঞ্চের মালিকসহ গ্রেপ্তার হওয়া অন্য আসামিদের শ্যোন অ্যারেস্ট দেখানো হয়েছে। এখনও তদন্ত চলছে বলেও জানান মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই নজরুল ইসলাম।

গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর গভীর রাতে ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে বরগুনাগামী এমভি অভিযান ১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। দগ্ধ হয়েছেন শতাধিক যাত্রী।

ঝালকাঠি থানার উপ-পরিদর্শক নজরুল ইসলাম আরটিভি নিউজকে বলেন, লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আসামিদের শ্যোন অ্যারেস্ট দেখানো হয়েছে। লঞ্চ থেকে আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। এগুলো সংরক্ষণে রাখা হয়েছে। তদন্ত কাজ এগিয়ে চলছে বলেও জানিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তা।

ঝালকাঠির জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী আরটিভি নিউজকে বলেন, গত ১২ জানুয়ারি জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটির রিপোর্ট আমার কাছে জমা দিয়েছে। এটা নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। লঞ্চের ইঞ্জিন কক্ষ থেকেই আগুন লাগে বলে তদন্ত রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে।

এমআই/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS