Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

জামালপুরে বন্যাকবলিত এলাকায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে     

জামালপুরে বন্যাকবলিত এলাকায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে        
জামালপুরে বন্যাকবলিত এলাকায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে     

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর জামালপুরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১২ সেপ্টেম্বর খুলছে সকল প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলায় শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবকদের মাঝে সৃষ্টি হয়েছে উৎসবমুখর পরিবেশ। সেই সাথে জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হওয়ায় সদ্য বন্যাকবলিত এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খোলার জন্য প্রস্তুত রয়েছে।

বিশ্বে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় সারাদেশের ন্যায় ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে দীর্ঘ দেড় বছর বন্ধ ছিল জামালপুরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো।

সরকারি নের্দেশনা মেনে সারাদেশের ন্যায় ১২ সেপ্টেম্বর থেকে খুলছে জামালপুরের সকল স্কুল-কলেজগুলো। সরকারের ১৯ দফা সহ অন্যান্য শর্তাবলি যথাযথভাবে মেনে উৎসবমুখর পরিবেশে স্কুল-কলেজগুলো খোলার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। স্কুল-কলেজ খোলার সিদ্ধান্তে জেলার ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-অভিভাবকদের মধ্যে রয়েছে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা।

জামালপুর জিলা স্কুলের দশম শ্রেনীর ছাত্র আরহাব হোসেন আরটিভি নিউজকে জানিয়েছেন, দেড় বছর ক্লাসে যেতে না পেরে পড়াশোনার আগ্রহ কমে গেছে। ফ্রি ফায়ার, পাবজি, টিকটকের প্রতি নেশা বেড়ে গেছে। স্কুল খুললে পড়ার আগ্রহ বাড়বে।

জামালপুর সরকারি আশেক মাহামুদ কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ইভা রহমান আশা আরটিভি নিউজকে বলেন, কলেজ লাইফ কাকে বলে, ফার্স্ট ইয়ারের কি মানে কিছুই বুঝতে পারলাম না। অথচ কলেজ লাইফ থেকে অনেক সময় চলে গেল। কলেজ খুললে কিছুটা আক্ষেপ মেটাতে পারবো।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন অভিভাবকরাও। তবে স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে জোর দিয়েছেন তারা।

জামালপুর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা হালিমা খাতুন আরটিভি নিউজকে জানিয়েছেন, স্কুল-কলেজগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে উৎসবমুখর পরিবেশে পাঠদানে প্রস্তুত শিক্ষকরা। ছাত্র-ছাত্রীদের পর্যায়ক্রমে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে আশাবাদী।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্রীদের জন্য একটি শিক্ষাবান্ধব ও নিরাপদ শ্রেণিকক্ষ যেখানে কোনো করোনার স্বাস্থ্য ঝুঁকি থাকবে না। এমন একটি পরিবেশ তৈরি করার সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা থাকবে।

জামালপুর সরকারি আশেক মাহামুদ কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডঃ মুজাহিদ বিল্লাহ ফারূকী আরটিভি নিউজকে আরও বলেন, শুধু করোনা নয় ডেঙ্গু প্রতিরোধেও প্রস্তুত তার কলেজ। ১২ সেপ্টেম্বর কলেজ ক্যাম্পাসে প্রাণের স্পন্দন ফিরে আসবে।

সেই সাথে বন্যার পানি নেমে যাওয়ায় সদ্য হয়ে যাওয়া বন্যায় প্লাবিত ১৮৭ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম চালু হচ্ছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আব্দুর রাজ্জাক আরটিভি নিউজকে বলেন, ইসলামপুর উপজেলার ডেবরাইপ্যাচ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ দুই থেকে তিনটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রচুর কাদা থাকায় পার্শ্ববর্তী স্কুল বা মাদরাসায় সাময়িকভাবে ক্লাস নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এমআই

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS